ব্রেকিং নিউজ
Home | জাতীয় | সম্রাটকে গ্রেপ্তারের পর কুমিল্লা থেকে ঢাকায় আনা হয়েছে

সম্রাটকে গ্রেপ্তারের পর কুমিল্লা থেকে ঢাকায় আনা হয়েছে

স্টাফ রির্পোটার : ক্যাসিনো চালানোর তথ্য প্রকাশের পর আত্মগোপনে থাকা ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে গ্রেপ্তারের পর কুমিল্লা থেকে ঢাকায় আনা হয়েছে। সম্রাটের সঙ্গে গ্রেপ্তার হওয়া তার সহযোগী আরমানকেও ঢাকায় আনা হয়েছে। ঢাকায় আনার পর তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদও শুরু করেছে পুলিশের এই এলিট ফোর্সটি।

রবিবার ভোর পাঁচটার দিকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রাম থেকে সম্রাট ও আরমানকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এরপর তাদের ঢাকায় আনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন (র‌্যাব) মহাপরিচালক (অপারেশন্স) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার।

তবে সম্রাটকে কোথায় রাখা হয়েছে সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কেউ কিছু জানায়নি। তবে র‌্যাব-৩ এর ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, আপাতত তাকে র‌্যাব সদর দপ্তরে রাখা হয়েছে। আজই তাদের আদালতে তোলা হতে পারে। তবে কোন থানার মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে তোলা হবে তা জানা যায়নি।

সহযোগী সংগঠন যুবলীগের নেতাদের চাঁদাবাজি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার অসন্তোষ প্রকাশ পাওয়ার পর জুয়ার আখড়া বন্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযানে নামে।

মতিঝিলের ইয়ংমেন্স ফকিরেরপুল ক্লাবে ক্যাসিনো চালানোর ঘটনায় ১৮ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার করা হয় যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে। পরদিন কলাবাগান ক্লাব থেকে গ্রেপ্তার হন কৃষক লীগের নেতা শফিকুল আলম ফিরোজকে। দুদিন পর নিকেতন থেকে গ্রেপ্তার করা হয় ঠিকাদার জি এম শামীমকে, তিনিও যুবলীগ নেতা হিসেবে পরিচয় দিতেন।

১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার মতিঝিলের ক্লাবপাড়ায় র‌্যাবের অভিযানে অবৈধ ক্যাসিনো চলার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পর থেকে আলোচনায় উঠে আসে যুবলীগ নেতা সম্রাটের নাম।

সেদিন যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূইয়া গ্রেপ্তার হওয়ার পর সদলবলে কাকরাইলে সংগঠনের কার্যালয়ে অবস্থান নিয়ে রাতভর সেখানে ছিলেন সম্রাট। কিন্তু এরপর তিনি নিরুদ্দেশ হন।

র‌্যাবের অভিযানের সময় মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রের ভেতরে সম্রাটের বিশাল ছবি দেখা যায়। ওই ক্লাবের ক্যাসিনো তিনিই চালাতেন এবং মতিঝিল ক্লাবপাড়ায় অন্য ক্যাসিনোগুলো থেকেও প্রতিদিন নির্দিষ্ট হারে চাঁদা তার কাছে যেত বলে গণমাধ্যমে খবর আসে।

সম্রাটের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত যুবলীগ নেতা আরমানও দীর্ঘদিন ধরে ক্যাসিনোর কারবারে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।

ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের মধ্যে সম্রাটের গ্রেপ্তার হওয়ার গুঞ্জন উঠলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে সে বিষয়ে কিছুই জানানো হয়নি। এর মধ্যেই তার দেশত্যাগেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এরপর রবিবার ভোরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয় এই ক্যাসিনো সম্রাটকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

সম্রাটকে র‍্যাবের কাছে হস্তান্তর ডিবির

স্টাফ রির্পোটার :  রিমান্ডের প্রথম দিনেই যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ...

‘অশ্লীল’ পোশাক পরায় ফিলিপাইনে নারী পর্যটক গ্রেপ্তার

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : প্রেমিকের সঙ্গে ফিলিপাইনের সমুদ্রসৈকতে ছুটি কাটাতে গিয়ে নিজের পছন্দ ...