ব্রেকিং নিউজ
Home | জাতীয় | সংবাদপত্রকে শিল্প হিসাবে ঘোষণার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আগামী সপ্তাহে : তথ্যমন্ত্রী

সংবাদপত্রকে শিল্প হিসাবে ঘোষণার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আগামী সপ্তাহে : তথ্যমন্ত্রী

Enuস্টাফ রিপোর্টার : তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, সংবাদপত্রকে শিল্প হিসাবে ঘোষণার প্রক্রিয়া চলছে। আগামী সপ্তাহে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।
তিনি বলেন, গণমাধ্যমের কর্মীদের জন্য ‘সাংবাদিক সহায়তা ট্রাস্ট ফান্ড’ গঠন করা হচ্ছে। আগামী সপ্তাহে ফান্ড সংক্রান্ত এ ফাইল মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হবে।
তিনি আরো বলেন, মন্ত্রিসভায় এটি অনুমোদন পেলে জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশনেই একে আইনে পরিণত করা হবে।
আজ তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারী ঐক্য পরিষদের নেতাদের সঙ্গে এক মত বিনিময় সভায় তথ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন।
সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থাসমূহে ৮ম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন এবং গণমাধ্যমের সাংবাদিক ও অফিসসমূহে হামলা রোধে করণীয় বিষয়ে তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ঐক্য পরিষদের নেতাদের এ মত বিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।
এতে আরো বক্তৃতা করেন পরিষদের কো-কনভেনার মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল ও রুহুল আমীন গাজী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিষদের সদস্য ওমর ফারুক, শাবান মাহমুদ, খায়রুল ইসলাম, কামাল উদ্দিন প্রমুখ।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, সাংবাদিক সহায়তা ট্রাস্ট ফান্ড আইন আকারে পাস হলে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে সহায়তা নিয়ে একটি বড় আকারের তহবিল গঠন করা যাবে। এর মাধ্যমে সাংবাদিকরা উপকৃত হবেন।
মন্ত্রী ওয়েজবোর্ড প্রসঙ্গে বলেন, ওয়েজবোর্ড ষোষণা হয় ঠিকই, কিন্তু তা বাস্তবায়ন করা হয়ে পড়ে কঠিন। সে জন্য এবার আমি সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার মালিকদের সঙ্গে বৈঠক করেছি।
তাদের দাবির প্রেক্ষিতে নিউজ প্রিন্টের উপর আরোপিত ১০% শুল্ক কমিয়ে ৫% করা হয়েছে। সেই সঙ্গে সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপনের হার আগের থেকে অনেক বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, ওয়েজবোর্ড যেন বাস্তবায়ন করা সহজ হয় সে জন্য আজ সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারী পরিষদের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছি। এ বৈঠক থেকেই ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের সমস্যা ও চ্যালেঞ্জসমূহ চিহ্নিত করা হবে এবং কি পদক্ষেপ গ্রহণ করলে সংবাদকর্মীরা এর সুফল পাবেন সে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
তিনি বলেন, সাংবাদিকদের প্রফেশনকে শ্রম আইনে অর্ন্তভূক্ত না রেখে আবার ৭৪ এর মূল আইনে প্রত্যাবর্তনের উদ্যোগ নিয়েছে বর্তমান সরকার। ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াকেও সেখানে অর্ন্তভূক্ত করতে আইনে কিছু পরিবর্তনেরও চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার।
তথ্যমন্ত্রী সাংবাদিক ও গণমাধ্যম অফিসসমূহের উপর হামলা প্রসঙ্গে বলেন, গণমাধ্যমের উপর হামলা মানেই গণতন্ত্রের উপর হামলা। এটা একটি নিন্দনীয় কাজ।
আমরা যারা নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে বিশ্বাস করি, তাদের গণমাধ্যমে প্রতিপক্ষের সমালোচনা করা ও তথ্য তুলে ধরে ভিন্ন মত প্রকাশের অধিকার রয়েছে। তেমনি গণমাধ্যমও ভিন্নমতের চর্চা ও সমালোচনা করতে পারে এবং সঠিক তথ্য তুলে ধরে প্রতিবেদন প্রকাশ করতে পারে, এ জন্য তার উপর হামলা বিবেকবর্জিত কাজ।
তিনি বলেন, ভবিষ্যতে সাংবাদিক ও গণমাধ্যম অফিসসমূহের উপর কোন হামলা সরকার বরদাস্ত করবে না। হামলাকারীদের বিরুদ্ধে প্রসাশনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সাংবাদিক নেতা মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নে আজ আমরা সব মতাদর্শের সাংবাদিক ঐক্য পরিষদের ব্যানারে ৫ দফা দাবি নিয়ে মন্ত্রীর কাছে এসেছি। মন্ত্রীও আমাদের এ দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন। আশা করি সরকার ও আমরা পরিষদের পক্ষ থেকে যৌথভাবে সব প্রতিষ্ঠানে ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নে সক্ষম হব।
তিনি আরো বলেন, প্রত্যেক মিডিয়ারই নিজস্ব মতাদর্শ আছে। তা কারো পক্ষে না গেলে ওই মিডিয়া হাউস বা ওই সাংবাদিকের উপর হামলা করতে হবে, তা আমরা সমর্থন করি না। আশা করছি সরকার এসব হামলাকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
তিনি সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত সংবাদকর্মীদের চিকিৎসা সহায়তা প্রদানের জন্যও সরকারের প্রতি আহবান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মির্জা ফখরুল ফোন করেছিলেন, চাইলে প্রমাণও দিতে পারি:ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রির্পোটার : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তি নিয়ে ওবায়দুল কাদেরকে ...

খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে সরকারের সঙ্গে কোনো কথা হয়নি:মির্জা ফখরুল

স্টাফ রির্পোটার : কারা হেফাজতে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার ...