ব্রেকিং নিউজ
Home | আন্তর্জাতিক | সংঘর্ষ ভাঙচুড়ে চলছে শেষদিনের হরতাল

সংঘর্ষ ভাঙচুড়ে চলছে শেষদিনের হরতাল

স্টাফ রিপোর্টার, ২৮ মার্চ, বিডিটুডে ২৪ডটকম : বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলের ডাকা ৩৬ ঘণ্টা হরতালের আজ শেষদিন। সকাল থেকেই পুলিশ ও হরতাল সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। কোনো কোনো স্থানে গাড়ি ভাঙচুর করেছে হরতাল সমর্থকরা।

এদিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচার বারডেম-২ হাসপাতালের সামনে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা (ঢাকা মেট্রো ট১২-৭৭০৭) ভাঙচুর করে হরতালকারীরা। এ সময় তারা গাড়িতে আগুন দেয়ার চেষ্টা চালালে আশেপাশের লোকজন এসে ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়।

ভাঙচুরের সময় সিএনজি চালক আহত হন। তাকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মহাখালী ওয়্যারলেস গেটসংলগ্ন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে ছাত্রদল (উত্তর) একটি মিছিল বের করে। এক সময় মিছিল থেকে ৪টি ককটেল ছুঁড়ে মারা হয়। এর মধ্যে ২টির বিস্ফোরণ ঘটে।

এ সময় একটি গাড়িও ভাঙচুর করে ছাত্রদল নেতাকর্মীরা। ঘটনাস্থলে পুলিশ আসার আগেই মিছিলকারীরা পালিয়ে যায়। এখনও ২টি ককটেল রাস্তায় অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে। সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

রাজধানীর নাইটেঙ্গেল মোড়ে হরতালকারীরা মিছিল করার চেষ্টা চালালে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় ককটেলসহ ২ জনকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতদের পল্টন থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

ধোলাইপাড়ে ঢাকা দক্ষিণ মহানগর ছাত্রশিবিরের নেতৃত্বে ৭০ থেকে ৮০ জনের একটি মিছিল বের করে। এর বিপরীত থেকে পুলিশ ফাঁকাগুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে মিছিলকারীদের দিকে আসলে ২টি অটোরিকশা ভাঙচুর করে হরতাল সমর্থকরা।

পরে পুলিশ মিছিল থেকে ২ জনকে আটক করে থানায় নিয়া যায়।

এদিকে পুরান ঢাকার কদমতলী এলাকায় সেচ্ছাসেবক দল একটি মিছিল বের করে। পুলিশ মিছিলকে ধাওয়া দিলে তাৎক্ষণিক ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

সাতক্ষীরায় বিনেরপোতা এলাকায় জামায়াত শিবিরের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় ৪ জন গুলিবিদ্ধসহ ১০ জন আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদশী সূত্র জানায়, জেলার বিনেরপোতা এলাকায় জামায়াত-শিবিরকর্মীরা মিছিল বের করে বিক্ষোভ করতে থাকলে পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় জামায়াত-শিবিরকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে সংঘর্ষ বেধে যায়। পুলিশ টিয়ার শেল রাবার বুলেট ও কয়েক রাউণ্ড গুলি করে।

এ ঘটনায় পুলিশ, পথচারীসহ ৪ জন গুলিবিদ্ধসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের বিভিন্ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জে পুলিশ-বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এসময় পুলিশের লাঠিচার্জে ১০ বিএনপি নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় জেলা শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালকে আটক করেছে পুলিশ।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর কাদের বাংলামেইলকে জানান, বিএনপির পিকেটিংয়ে পুলিশ বাধা দিলে নেতাকর্মীরা চড়াও হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে এ সময় কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও লাঠিচার্জ করা হয়েছে।

এদিকে সকাল সাড়ে ৬টায় সদর উপজেলার ফতুল্লার কাশীপুর দেওয়ান এলাকায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ সড়কে টায়ারে আগুন দেয় বিএনপি ও সেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা। তখন তারা কয়েকটি ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা ভাঙচুর করে।

x

Check Also

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান, পর্তুগালঃ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার ...

বাংলাদেশ ও পর্তুগাল বর্ধিত আন্তঃ-সংসদীয় সহযোগিতায় সম্মত

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম, ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান, পর্তুগাল: বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জনাব ...