ব্রেকিং নিউজ
Home | জাতীয় | মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিই কেবল দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে : প্রধানমন্ত্রী

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিই কেবল দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে : প্রধানমন্ত্রী

hasina 3স্টাফ রিপোর্টার : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ অনেক ক্ষেত্রে উন্নত দেশের সঙ্গে লড়তে পারবে বলে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিই কেবল দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে।
প্রধানমন্ত্রী আজ এখানে আইসিসি মানের সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি ক্ষমতায় থাকায় বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বর্তমান অগ্রগতির ধারা অব্যাহত থাকলে আমরা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় সক্ষম হবো।’
চা বাগান ও ছোট ছোট পাহাড়সহ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য পরিবেষ্টিত স্টেডিয়ামটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৮৬ কোটি টাকা। এটি বিশ্বের আকর্ষণীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামগুলোর একটি।
আগামী মাসে অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশে আইসিসি টি-২০ ক্রিকেট কাপের পুরুষ ও মহিলা দলের বেশ ক’টি ম্যাচ এই স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আমরা এক সঙ্গে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি জানে কিভাবে দেশের অগ্রগতি করতে হয়।
তিনি বলেন, যে জাতি রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা আনতে পারে, সে জাতি জানে কিভাবে মর্যাদা বৃদ্ধি করতে হবে। তবে আপনাদের সবসময় মনে রাখতে হবে- মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি কখনোই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে দেবে না। তারা দেশকে পিছে ঠেলে দেবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ১৯৭৫ সালের পর তাদের নিজেদের স্বার্থে দেশের অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত করেছে।
বিভাগীয় কমিশনার এন এম জিয়াউল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন সিকদার এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বক্তব্য রাখেন।
প্রধানমন্ত্রী স্টেডিয়ামটি নির্মাণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলকে তার আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, স্টেডিয়ামের নির্মাণ কাজ সময় মতো শেষ না হলে সিলেটবাসী আইসিসি ক্রিকেট খেলা সরাসরি দেখতে পারতেন না।
তিনি আইসিসি ক্রিকেট ম্যাচ পবিত্র এই নগরীতে শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠানে স্থানীয় জনগণের সহযোগিতা কামনা করেন।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিএনপি-জামায়াতের সৃষ্ট রাজনৈতিক অস্থিরতার ওপর আলোকপাত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সর্বত্র তাদের নৈরাজ্যকর কর্মকাণ্ডের কারণে এ ক্রিকেট ভেন্যুর নির্মাণ কাজ কঠিন হয়ে পড়েছিলো।
তিনি বলেন, ডিজাইনার, কনসালটেন্ট, ঠিকাদার, শ্রমিক এবং স্থানীয় জনগণের সহযোগিতাসহ সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিকতার কারণে এ নির্মাণ কাজ আমরা সম্পন্ন করতে পেরেছি।
আইসিসি’র টি-২০ টুর্নামেন্টের সময় শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার ব্যাপারে সতর্ক থাকার জন্য জনগণের প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, এ টুর্নামেন্ট সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় জনগণের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
সিলেটের উন্নয়নে তাঁর সরকারের গৃহীত প্রকল্পসমূহের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় এসেছে তখনই এ নগরী কিছু না কিছু পেয়েছে।
তিনি বলেন, বিএনপি সরকার শুধু কাগজে-কলমে সিলেটকে বিভাগীয় শহর ঘোষণা করেছে। কিন্তু আওয়ামী লীগ এ নির্দেশনা বাস্তবায়ন করেছে।
তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার সিলেটে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, রেল স্টেশন, লন্ডনের সঙ্গে সরাসরি ফ্লাইট চালু এবং অসংখ্য অবকাঠামোগত প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে।
তিনি বলেন, প্রাকৃতিক সম্পদসহ দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সিলেটে সেনাবাহিনীর একটি ডিভিশন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০১ সালে ক্ষমতা গ্রহণ করে বিএনপি জনগণকে নৈরাজ্য, সহিংসতা, দুর্নীতি ও লুটপাট ছাড়া আর কিছুই দিতে পারেনি। তারা দেশকে সহিংসতা, সন্ত্রাস ও অর্থ পাচারের ধূসর এলাকায় নিয়ে যায়।
কিন্তু আওয়ামী লীগ দেশকে সে লজ্জাস্কর অবস্থা থেকে উদ্ধার করে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করে। বাংলাদেশ এখন আর সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদের তালিকায় নেই। বাংলাদেশ এখন বিশ্ব সম্প্রদায়ের মধ্যে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত।
শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার জনগণের জীবনযাত্রার মানোয়ন্নে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এবং বিজ্ঞান ও আধুনিক জ্ঞানভিত্তিক একটি শিক্ষিত ও খেলাধুলায় পারদর্শী প্রজন্ম গড়ে তুলতে কাজ করছে।
বাংলাদেশে অর্থনীতি বিকশিত হচ্ছে এবং এ দেশের জনগণের অর্থনৈতিক সক্ষমতা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশের বৈদেশিক রিজার্ভও বেশ ভালো অবস্থানে রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়নে তাঁর পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাবে।
প্রধানমন্ত্রী আরো অধিক দেশীয় ও বিদেশী পর্যটক আকৃষ্ট করতে সিলেটে পর্যটন কেন্দ্রের উন্নয়ন এবং বিলাসবহুল ও স্বল্প ব্যয়ের হোটেল নির্মাণের ঘোষণা দেন।
স্টেডিয়াম উদ্বোধন শেষে প্রধানমন্ত্রী মাঠ ও গ্যালারিসহ স্টেডিয়ামের বিভিন্ন বিভাগ পরিদর্শন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ইশরাক হোসেনের মাধ্যমে একটি সুন্দর ভাগ্য শহর গড়ে তুলব:মির্জা আব্বাস

স্টাফ রির্পোটার : ২০১৫ সালে নিজে ছিলেন ঢাকা দক্ষিণের মেয়রপ্রার্থী। সেবার মামলার ...

সংসদ সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নানের মরদেহে শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রীর

স্টাফ রির্পোটার : বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের সংসদ সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নানের মরদেহে ...