Home | আন্তর্জাতিক | বোবা দম্পতির চার হাত এক করল সোশ্যাল মিডিয়া

বোবা দম্পতির চার হাত এক করল সোশ্যাল মিডিয়া

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : কথা বলতে পারেন না৷ কানেও শোনেন না৷ তাতে কী? কথা বলিয়ে দিল ফেসবুক৷ চার হাত এক করল সোশ্যাল মিডিয়াই৷ মন্ত্র উচ্চারণ না-ই হোক, সাতপাক ঘোরা, সিঁদুরদান, কিছুই বাদ গেল না৷

পশ্চিমবঙ্গের মেয়ে তুলসী শর্মার হাত ধরে ছত্রিশগড়ের বিলাসপুরের বাড়িতে ফিরল শুভেন্দু সাহা৷ মঙ্গলবার রাতে বিশুদ্ধ ‘ফেসবুক-বিয়ের’ সাক্ষী রইল কলকাতা থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূর বীরভূম জেলার ঈশ্বরপুর গ্রাম৷ মূক ও বধির হলেও দুজনে লেখাপড়া শিখেছেন৷ উচ্চ মাধ্যমিক পাশ তুলসীকে নিয়ে কত চিন্তাই না ছিল৷ বোবা-কালা মেয়ের বিয়ে হবে কেমন করে? মেয়ে নিজেই পাত্র জুটিয়ে নিলেন৷ শ্বশুরবাড়ি রওনা হওয়ার আগে সলজ্জ হাসিতে তুলসী ইশারায় জানালেন ফেসবুকে শুভেন্দুই প্রথম ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠিয়েছিলেন৷

আর পাঁচটা স্বাভাবিক মানুষের মতো মূক ও বধিররাও যে ইন্টারনেটের সৌজন্যে নিজেদের ভবিষ্যৎ গড়ে নিতে পারেন, প্রমাণ করলেন শুভেন্দু-তুলসী৷

হাসি গোপন করতে পারছিলেন না সুদর্শন শুভেন্দু৷ ইশারায় বোঝালেন তাদের প্রেমের ইতিবৃত্ত৷ ফেসবুকে আলাপের কিছুদিন পর মোবাইল নম্বরের আদানপ্রদান হয়৷ তারপর মেসেঞ্জার চ্যাট৷ ভিডিও কলে দেখাও হয়েছে কয়েক বার৷ সিদ্ধান্ত নিতে দেরি করেননি শুভেন্দু৷ নিজের প্রেমের খবর জানান বাড়িতে৷ বিলম্ব করেননি শুভেন্দুর বাবা সুভাষচন্দ্র সাহাও৷ আদতে মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জের বাসিন্দা কর্মসূত্রে বিলাসপুরে থাকেন৷

সুভাষ বলেন, ‘ভাবতাম, ব্যবসা করে বটে, কিন্তু মূক ও বধির ছেলেটাকে বিয়ে দেব কী করে? ও যখন তুলসীর সঙ্গে সম্পর্কের কথা জানান, সঙ্গে সঙ্গে যোগাযোগ করি আহমেদপুরের শর্মা বাড়ির সঙ্গে৷ পরে এখানে এসে মেয়েকে দেখে ওর পরিবারকে আমাদের বাড়ি যেতে আমন্ত্রণ জানাই৷’ তুলসীর বাবা-মাও ছুটে যান বিলাসপুরে৷ বিয়ে পাকা হয়৷ সেটাই পরিণতি পেল মঙ্গলবার৷

আজকাল প্রায়ই ফেসবুকে আলাপের সূত্রে প্রেমে প্রতারণা, নানা দুষ্কর্মের অভিযোগও ওঠে৷ কিন্তু ফেসবুক যে ভালো পরিণতিও এনে দেয়, শুভেন্দু-তুলসী তার প্রমাণ৷

তুলসীর দুলাভাই প্রশান্ত শীল বলেন, ‘ফেসবুক যে কত ভালো কাজে লাগে, তা বুঝলাম৷ আমরা তো মেয়ের বিয়ের আশা ছেড়েই দিয়েছিলাম৷’ বিয়ে হবে না ভেবে বাড়িতেই ছোট ওয়েল্ডিং মেশিন বসিয়ে তুলসীকে ব্যবসায় নামিয়েছিল তার পরিবার৷ এলাকায় মূক ও বধির স্কুল নেই বলে কলকাতায় পড়ে মাধ্যমিক পাশ করেন তিনি৷ ভর্তি হন আহমেদপুর দুর্গা বালিকা বিদ্যালয়ে৷ শিক্ষিকারাও চ্যালেঞ্জ নিয়ে ছবি এঁকে পড়াতে শুরু করেন তাকে৷

স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা চন্দনা সাহা সর্দার চৌধুরী বলেন , ‘তুলসী আমাদের কাছে প্রেরণা৷ পড়াশোনার জন্য ও এবং ওর মায়ের চেষ্টা দেখে আমরা মুগ্ধ৷ আজ ও সুপাত্রের হাতে পড়ল৷ আমাদেরও মনটা ভরে গিয়েছে৷’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

‘গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশন ইন স্পেন’ নির্বাচনে মুজাক্কির – সেলিম প্যানেল বিজয়ী

জিয়াউল হক জুমন, স্পেন প্রতিনিধিঃ সিলেট বিভাগের চারটি জেলা নিয়ে গঠিত গ্রেটার ...

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান, পর্তুগালঃ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার ...