Home | ব্রেকিং নিউজ | ফুলবাড়িয়া থানা মসজিদ

ফুলবাড়িয়া থানা মসজিদ

বিডিটুডে ডেস্ক : ১৯৬৭ সালে স্থাপিত হয় ফুলবাড়িয়া থানা। একটি টিনশেড ঘরে থানার সব কার্যক্রম চলে দীর্ঘ কয়েক যুগ। ২০১২ সালে নির্মিত হয় আধুনিক দ্বিতল থানা ভবন। থানা ভবনের উন্নয়ন হলেও অন্যান্য অবকাঠামোর কোনো উন্নয়ন হয়নি বললেই চলে। ২০১৭ সালের মে মাসে অফিসার ইনচার্জ হিসেবে যোগদান করেন শেখ কবিরুল ইসলাম। তিনি যোগদান করার পর থেকে পাল্টে যায় থানার দৃশ্যপট। নিজ উদ্যোগে ও সবার সহযোগিতা নিয়ে থানার অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ শুরু করেন তিনি। অবকাঠামো উন্নয়নের পাশাপাশি সবার দৃষ্টি কাড়ছে থানার দ্বিতল আধুনিক জামে মসজিদটিও।

ফুলবাড়িয়া-ময়মনসিংহ প্রধান সড়কের পাশেই ফুলবাড়িয়া থানা। থানায় প্রবেশ পথে করা হয়েছে গোলাপের বাগান। থানা ভবন থেকে প্রায় ৬৫ মিটার দক্ষিণে থানা জামে মসজিদটি অবস্থিত। ৪৬ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৪০ ফুট প্রস্থের মসজিদের ভেতরে-বাইরে সম্পূর্ণ টাইলস করা। দৃষ্টিনন্দন মসজিদটির ৬০ ফুট লম্বা মিনারের ওপর ১০ ফুট উঁচু গম্বুজ সম্পূর্ণ অত্যাধুনিক টাইলস দিয়ে করা হয়েছে। কারুকাজ সংবলিত স্টিলের তৈরি দর্শনীয় গেইট, উন্নত মানের রঙিন থাইগ্লাস ও অ্যালুমিনিয়াম দিয়ে তৈরি করা হয়েছে দরজা-জানালা। নতুন করে মেরামত করা হয়েছে মেহরাব কক্ষ। এছাড়াও তৈরি করা হয়েছে আধুনিক অজুখানা, দুটি টয়লেট ও দুটি প্রস্রাবখানা। মসজিদের চারদিকে তৈরি করা হয়েছে ইট দিয়ে সীমানা প্রাচীর। মসজিদের সঙ্গেই রয়েছে ফুল ও ড্রাগন ফলের বাগান। সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য ফুল ও ফলের বাগানে করা হয়েছে নানা রঙের লাইটিং। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের সুবিধার্থে প্রধান সড়ক ও থানা থেকে মসজিদে প্রবেশের সড়কটুকু পার্কিং টাইলস দিয়ে করার পাশাপাশি সড়কের দুই পাশে লাগানো হয়েছে ফুল ও ফলের গাছ। এককথায় দৃষ্টিনন্দন মসজিদটি উপজেলাবাসীকে সবচেয়ে আকৃষ্ট করেছে।

Image result for ফুলবাড়িয়া থানা মসজিদ

২ একর ২৪ শতাংশ জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত ফুলবাড়িয়া থানা। চারদিকে রয়েছে বিশাল সীমান প্রাচীর। সীমানা প্রচীরের ভেতরে আলাদাভাবে করা হয়েছে বিভিন্ন ফুল ও ফলের বাগান, শিশুবান্ধব ডেস্ক, এলইডি লাইটিং, পুলিশ কনফারেন্স রুম, গাড়ি পার্কিং ঘর, সোলার প্যানেল স্থাপন, খাবারের জন্য ডাইনিং রুম, কনস্টেবলদের জন্য গোসলখানা, ওয়াশরুম। অফিসারদের সরকারি বাসভবনের সামনের পতিত জায়গায় করা হয়েছে মিনিপার্ক। বর্তমানে থানার অবকাঠামো উন্নয়ন ও মনোমুগ্ধকর পরিবেশ দেখলে যে কারো মন কেড়ে নেয়। শেখ কবিরুল ইসলাম থানার সৌন্দর্যবর্ধনে যেমন ছিলেন যত্নবান, তেমনি উপজেলার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ছিলেন কঠোরহস্ত।

গত ৬ আগস্ট থানার উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন করেন ময়মনসিংহ পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম (বার) ও পিপিএম।

শেখ কবিরুল ইসলাম ১৯৯০ সালে সাব-ইন্সপেক্টর হিসেবে পুলিশে যোগদান করেন। ২০০৭ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি ওসি হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। যেসব থানায় ওসি হিসেবে কর্মরত ছিলেন সেসব থানায় তিনি নিজ উদ্যোগে অবকাঠামো উন্নয়নসহ ফুল ও ফলের বাগান করেছেন বলে জানিয়েছেন। জনবান্ধব এ পুলিশ অফিসার যোগদান করার পর উপজেলার আইন-শৃঙ্খলারও ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। মামলা-মোকদ্দমাও কম হয়েছে থানায়। থানায় বেশিরভাগ অভিযোগ বাদী ও বিবাদী উভয় পক্ষকে নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করার রেকর্ড করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

করোনায় ১০ জনের মৃত্যু

স্বাস্থ্য ডেস্ক: বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ১০ জনের মৃত‌্যু হয়েছে। এ ...

বিলবাওকে হারিয়ে সুপার কাপ জিতল রিয়াল

স্পোর্টস ডেস্ক: সৌদি আরবের রিয়াদে স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে অ্যাথলেটিক ক্লাব বিলবাওকে ...