Home | ব্রেকিং নিউজ | জোটগত ভাবে সাতক্ষীরার তিনটি আসনে নির্বাচন করবে জামায়াত বিএনপি একটিতে

জোটগত ভাবে সাতক্ষীরার তিনটি আসনে নির্বাচন করবে জামায়াত বিএনপি একটিতে

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাতক্ষীরার তিনটি আসনে ২৩ দলীয় জোটের শরিক জামায়াতে ইসলামী জোটগত ভাবে তিনটি আসনে লড়বে। জামায়াতের এক কেন্দ্রীয় নেতা জানান, তারা সাতক্ষীরা জেলা থেকে ৩টি আসনে জোটগত ভাবে নির্বাচন করবে। বিএনপির সঙ্গে নীতিগত ভাবে তারা আলোচনা করে জামায়াত আসন তিনটি নিশ্চিত করেছেন।

এর মধ্যে সাতক্ষীরা-২ (সদর) আসনে সাবেক সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের আমীর কেন্দ্রীয় নেতা মুহাদ্দীস আব্দুল খালেক, সাতক্ষীরা-৩ আসনে জামায়াতের বর্তমান জেলা আমীর হাফেজ রবিউল বাশার ও সাতক্ষীরা-৪ (শ্যামনগর) আসনে সাবেক এমপি মুক্তিযুদ্ধা গাজী নজরুল ইসলাম। গতকাল জেলা ব্যাপি এটাই ছিল আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে। তবে আজ কাল আনুষ্ঠানিক ভাবে বিএনপি আসন বন্টনের তালিকা ঘোষণা করতে পারে। অন্যদিকে তালা কলারোয়া ১ আসনে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব ২৩ দলীয় জোটের পক্ষে ধানের মীন নিয়ে নির্বাচন করবেন বলে দলীয় সূত্র জানায়।

জেলাতে জামায়াতের রয়েছে শক্তিশালী রাজনৈতিক অবস্থান। নিবন্ধন বাতিল হওয়াতে এবার তারা জোটের প্রতিক বা স্বতন্ত্র নির্বাচন করবেন বলে জামায়াত নেতারা জানান। সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের আমীর হাফেজ রবিউল বাশার জানান, জেলার সবকটি আসনে জামায়াতের জনপ্রিয়তা অনেক বেশি। বিগত নির্বাচন গুলোতে তারা জনগণের বিপুল সমর্থন পেয়েছে। তাই আগামি নির্বাচনেও তারা জনগণের বিপুল সমর্থন পবে।

২০০১ সালের নির্বাচনে জেলার তিনটি আসনে জামায়াত প্রার্থীরা বিজয়ী হন। অবশ্য ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জামায়াত কোনো আসনে জিততে পারেনি। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনবিরোধী আন্দোলনে জামায়াত সাতক্ষীরার চারটি আসনে কঠিন প্রতিরোধ গড়ে তোলে। বর্তমান ক্ষমতাসীনরা দলটির ৫ হাজার নেতাকর্মীদের নামে মামলা করেছে বলে সূত্র জানায়। এসব রাজনৈতিক মামলায় আটক করা হয় প্রায় ২০ হাজার নেতাকর্মীকে। দলটি বলছে সংখ্যা আরো বেশি। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে অফিস গুলোতে পুলিশ তালা দিয়ে রাখে। এত কিছুর পরও বিগত ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনে সাতক্ষীরা জামায়াত সড়কে গাছ কেটে প্রতিরোধ ও সড়ক বিচ্ছিন্ন করার মত কর্মসূচি দিয়ে দেশবাসির নজরে আসে।দলটির দাবী এতে তাদের জনসমর্থন বাড়ে । পরবর্তিতে উপজেলা ও ইউনিয়নপরিষদ নির্বাচনে জামায়াত বিপুল ভোট পাই। উপজেলা চেয়ারম্যান,ভাইসচেয়ারম্যান সহ গুরুত্বপূর্ণ পদে জামায়াতের প্রার্থীরা জয়ী হন। তাই সাতক্ষীরার চারটি আসনের জয়-পরাজয়েই জামায়াতের উপর অনেকটা নির্ভরশীল।

গত কয়েক বছর ধরে জেলাতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতা-কর্মীদের দলীয় কোন্দল প্রকাশ্যে রূপ নেই। আ’লীগের দলীয় কোন্দল মেটাতে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাতক্ষীরাতে সফরও করেন। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। রয়েছ চরম দলীয় কোন্দল। রয়েছে দলের ত্যাগী নেতাদের মুল্যায়ন না হওয়ার অভিযোগ।

অন্যদিকে ২০১৩ সালের ৬ সেপ্টেম্বও জেলা শিল্পকলাতে বিএনপির বর্ধিত সভা চলাকালে জেলা মৎস্যজীবী দলের সাবেক সম্পাদক সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ ভিপি আমানউল্লাহ আমানকে প্রকাশ্যে হত্যা করা হয়। ওইদিন রাতে তার মা ফাতেমা খাতুন বাদী হয়ে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি মামলা করেন। ২০১৪ সালের ২৪ অক্টোবর সদর থানার এস.আই আবুল কাসেম ৮৯ জন আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এ মামলায় জেলা বিএনপির অর্ধশতাধীক নেতাকর্মীকে কারা ভোগ করতে হয়েছে। দলীয় কোন্দল মেটাতে হিমশিম খাই দলটি।

এদিকে বিগত দশম জাতীয় সংসদ (২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী) নির্বাচনে সাতক্ষীরার চারটি আসনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের তিনজনের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জন, সরকারি বিদ্যালয়ে নাইটগার্ড নিয়োগ এবং বেসরকারি স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসার শিক্ষক, কর্মচারী নিয়োগে ঘুষ-দুর্নীতি, কাবিখা ও কাবিটা এবং সোলার প্যানেল বাণিজ্যেও ব্যাপক অভিযোগ উঠেছে।

আওয়ামী লীগের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, জেলার চারজন এমপি’র মধ্যে তিন জনের আমালনামা খুবই খারাপ। তারা এলাকায় চরমভাবে বিতর্কিত ।

২০০৮ সালের নির্বাচনে সাতক্ষীরা-২ আসনে জামায়াতে ইসলামীর আবদুল খালেক মন্ডল ১,১৪,৫১৭, সাতক্ষীরা-৩ আসনে রিয়াসত আলী বিশ্বাস ১,৩৩,৮০২, সাতক্ষীরা-৪ গাজী নজরুল ভোট পান। সিমীত ভোটে পরাজিত হন দলটির প্রাথীরা। ১৯৭৯ সালের (জিয়াউর রহমানের আমলে) জাতীয় নির্বাচনে সাতক্ষীরার তিনটি আসনে মুসলিম লীগের প্রার্থী জয়লাভ করেন।

১৯৮৬ সালের নির্বাচনে সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) আসনে জামায়াতের এড. শেখ আনসার আলী এবং সাতক্ষীরা-২ (সদর) আসনে কাজী শামছুর রহমান নির্বাচিত হন। পরে ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালের নির্বাচনেও জামায়াতের প্রাথী হিসেবে তিনি সাতক্ষীরা-২ (সদর) আসন থেকে নির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে সাতক্ষীরার পাঁচটি আসনের মধ্যে চারটি আসনেই জামায়াতের প্রার্থী জয়লাভ করেন। ১৯৯৬ সালে একমাত্র সাতক্ষীরা-২ (সদর) আসনে কাজী শামছুর রহমান নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে আবার সাতক্ষীরা ২, ৩ ও ৫ এই তিনটি আসন পায় জামায়াত। ২০১৩ সালের ইউপি নির্বাচনে জেলার সাতটি উপজেলার ৭৮টি ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামী লীগ ১৬টি, বিএনপি ৩০টি, জামায়াত ২৭টি এবং জাতীয় পার্টি পাঁচটিতে নির্বাচিত হয়। ২০১৩ সালের সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামী লীগের একজন এবং বিএনপি-জামায়াতের ১৩ জন চেয়ারম্যান ছিল। তালায় ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে দুটিতে আওয়ামী লীগ, বাকি ১০টিতে জামায়াত-বিএনপির সমর্থকেরা চেয়ারম্যান। কলারোয়ার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামী লীগের তিনটি, বাকি নয়টিতে জামায়াত-বিএনপির সমর্থকেরা চেয়ারম্যান। দেবহাটায় পাঁচটির মধ্যে আওয়ামী লীগের দুজন ও জামায়াতের তিনজন চেয়ারম্যান। কালীগঞ্জে ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে জামায়াত-বিএনপির নয়জন এবং আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির তিনজন চেয়ারম্যান। শ্যামনগর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০ জন জামায়াত-বিএনপি ও দুজন আওয়ামী লীগের সমর্থক চেয়ারম্যান রয়েছেন। আশাশুনিতে ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে আটটিতে আওয়ামী লীগ এবং বাকি চারটিতে জামায়াত-বিএনপির চেয়ারম্যান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

করোনা সংক্রমণের হার ২০ শতাংশ ছাড়িয়েছে-স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার ২০ শতাংশ ছাড়িয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ...

না.গঞ্জে উন্নয়নবিমুখ রাজনীতির ভরাডুবি হয়েছে: কাদের

স্টাফ রিপোর্টার: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ...