ব্রেকিং নিউজ
Home | ফটো সংবাদ | জামায়াতের নতুন আমিরকে নিয়ে দলটির নেতা-কর্মীদের মধ্যে কানাঘুষা

জামায়াতের নতুন আমিরকে নিয়ে দলটির নেতা-কর্মীদের মধ্যে কানাঘুষা

স্টাফ রির্পোটার : জামায়াতে ইসলামীর নতুন আমির শফিকুর রহমানকে নিয়ে দলটির নেতা-কর্মীদের মধ্যে নানা কানাঘুষা চলছে। শফিকুর রহমানের বিরুদ্ধে আমি​র পদের নির্বাচন প্রক্রিয়ায় কৌশলে প্রভাব বিস্তার করার কথা উঠেছে।

১০ নভেম্বর জামায়াতের আমির পদের নির্বাচন শেষ হয়। পরদিন রাতে জামায়াত গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে জানায়, শফিকুর রহমান আমির নির্বাচিত হয়েছেন। তবে এখনো তাঁর শপথ গ্রহণ হয়নি।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক জামায়াতের নেতা-কর্মীদের একটি অংশ বলছে, এবার আমির পদে প্রার্থী নির্বাচনের প্রথম ধাপে তিন সদস্যের ‘আমির প্যানেল’ নির্বাচন নিয়ে বিতর্ক আছে। বর্তমান আমির মকবুল আহমাদকে প্যানেল থেকে কৌশলে বাদ দেওয়া হয়। তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ বলে নির্বাচনের আগে থেকেই দলের ভেতরে একধরনের প্রচার চালানো হয়। যদিও মকবুল আহমাদ অসুস্থ বা দলের নেতৃত্ব দিতে অক্ষম, এমন কথা তিনি দলকে কখনো জানাননি। মকবুল আহমাদ ওমরাহ পালন করতে সৌদি আরব আছেন। তাঁর অনুপস্থিতিতে শফিকুর রহমানকে আমির ঘোষণা করা হয়।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, জামায়াতের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, দলের কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরার সদস্যরা গোপন ভোটে তিন সদস্যের ‘আমির প্যানেল’ নির্বাচন করেন। এবার এই প্যানেলে ছিলেন, দলের সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমান এবং দুই নায়েবে আমির মুজিবুর রহমান ও মিয়া গোলাম পরওয়ার। তাঁদের মধ্যে সবার জ্যেষ্ঠ হলেন মুজিবুর রহমান। শফিকুর রহমান ৬ ভোট বেশি পেয়ে প্যানেলে ১ নম্বরে আসেন।

অতীতে জামায়াতের আমির নির্বাচনগুলোতে দেখা গেছে, প্যানেলে যিনি ১ নম্বরে থাকেন, শেষ পর্যন্ত তিনিই আমির হন। দলে আলোচনা আছে, মজলিশে শুরার নারী সদস্যদের ভোটে শফিকুর রহমান আমির নির্বাচনে এগিয়ে গেছেন। আগে মজলিশে শুরার নারী সদস্যরা কেবল আমির নির্বাচনে ভোট দিতেন, কিন্তু তিন সদস্যের আমির প্যানেল নির্বাচনে তাঁদের ভোটাধিকার ছিল না। এবার শফিকুর রহমানের আগ্রহে নারী সদস্যদের এই ভোটাধিকার দেওয়া হয় বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। জামায়াতের মহিলা বিভাগ তত্ত্বাবধান করেন দলের আমির। তিনি ‘অসুস্থ’ বলে এ দায়িত্ব পালন করতেন শফিকুর রহমান। যদিও তিনি ‘অসুস্থ’ নাকি তাঁকে ‘অসুস্থ’ বলে নিষ্ক্রিয় করে রাখা হয়, তা নিয়ে নেতা-কর্মীদের কারও কারও মধ্যে প্রশ্ন আছে।

এ ছাড়া আমির নির্বাচনের আগ থেকেই শফিকুর রহমান ও মুজিবুর রহমানকে ঘিরে দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের মধ্যে পৃথক তৎপরতা ছিল। শুরু থেকে একটা প্রচার ছিল যে শফিকুর রহমান আমির হচ্ছেন। তা নির্বাচনে প্রভাব ফেলেছে বলে নেতা-কর্মীদের অনেকে মনে করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জামায়াতের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য আবদুল হালিম বলেন, ‘কথা তোলার মতো কিছুই নেই। এ রকম কিছু বলে থাকলে সেটা হয়তো কারও চিন্তা। আমরা এমন কিছু শুনিনি।’

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এবারই প্রথম নির্বাচন শেষ হওয়ার পরদিনই নতুন আমিরের নাম ঘোষণা করা হয়। অতীতে নির্বাচন শেষ হওয়ার এক-দুই সপ্তাহ পর ফল ঘোষণা করা হতো। সারা দেশে দলের প্রায় ৪৫ হাজার শপথধারী সদস্য বা রুকন আছেন। তাঁরা গত ১৭ অক্টোবর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত ভোট দেন। শেষ দিন কত ভোট পড়েছিল, কখন ব্যালট ঢাকায় পৌঁছাল, কখন গণনা শেষ হলো, এত দ্রুততার সঙ্গে কেনই-বা ফল ঘোষণার প্রয়োজন হলো? এ নিয়ে নেতা-কর্মীদের একটা অংশের মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে।

এসব বিষয়ে বক্তব্য জানতে মুঠোফোনসহ নানাভাবে চেষ্টা করেও নতুন আমিরের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। আমির প্যানেলে থাকা মিয়া গোলাম পরওয়ারের কাছে জানতে চাইলে তিনি  বলেন, ‘আমাদের নতুন আমিরের এখনো শপথ হয়নি। তাই এই মুহূর্তে আমি সাংগঠনিক কোনো বিষয়ে কথা বলব না। আমি গণমাধ্যমে কথা বলার জন্য ক্ষমতাপ্রাপ্তও না। শপথের পর নতুন আমির কথা বলবেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ঢাকা প্লাটুনের দেয়া ১৩৫ রানের টার্গেটে ব্যাট করছে রাজশাহী রয়্যালস

ক্রীড়া ডেস্ক : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) আজ দিনের প্রথম ম্যাচে ঢাকা ...

রোহিঙ্গা গণহত্যার মামলায় আজ যুক্তিতর্ক তুলে ধরবে গাম্বিয়া ও মিয়ানমার

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : নেদারল্যান্ডসের হেগে আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে রোহিঙ্গা গণহত্যার মামলায় আজ ...