ব্রেকিং নিউজ
Home | আন্তর্জাতিক | চীনের উইঘুর মুসলিমদের ওপর নিপীড়নের অভিযোগে চীনা কর্মকর্তাদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

চীনের উইঘুর মুসলিমদের ওপর নিপীড়নের অভিযোগে চীনা কর্মকর্তাদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের উইঘুর মুসলিমদের ওপর নিপীড়নের ঘটনায় সম্পৃক্ততার অভিযোগে জড়িত চীনা সরকারের কর্মকর্তা এবং কমিউনিস্ট পার্টির বিভিন্ন কর্মকর্তাসহ তাদের পরিবারের সদস্যদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথা জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, উইঘুর জনগোষ্ঠীর ওপর ভয়াবহ নিপীড়ন চালাচ্ছে চীনা প্রশাসন। তবে চীনের তরফ থেকে বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চীনকে অবিলম্বে এই উইঘুর সম্প্রদায়ের সদস্যকে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

কিন্তু চীন বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। সোমবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জেং সুয়াং বলেন,‘যুক্তরাষ্ট্র চীনে মানবাধিকার লঙ্ঘনের যে ধরনের অভিযোগ করছে, এই ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি।’ তিনি আরো বলেন, চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের জন্য যুক্তরাষ্ট্র মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ করছে।

একই অভিযোগে গত সোমবার ২৮ চীনা প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। ফলে ওই চীনা প্রতিষ্ঠানগুলো ওয়াশিংটনের অনুমতি ছাড়া কোনও মার্কিন পণ্য কিনতে পারবে না। চীনের ওই ২৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সরকারি এবং প্রযুক্তিগত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

এটাই প্রথম নয়। এর আগেও বিভিন্ন চীনা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বাণিজ্যিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এর আগে গত মে মাসে নিরাপত্তা শঙ্কার কারণ দেখিয়ে চীনের বৃহত্তম টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়েকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়।

সম্প্রতি উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ চলছে। এক দেশ অন্য দেশের ওপর আমদানি-রপ্তানিসহ বিভিন্ন ইস্যুতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে।

গত মাসে নিরাপত্তাজনিত কারণ দেখিয়ে চীনের বৃহত্তম টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠান ‘হুয়াওয়েকে’ কালো তালিকাভুক্ত করেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

চীনে সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিমদের ওপর নিপীড়ন ও নির্যাতনের কারণে চীনা সরকারের তীব্র সমালোচনা রয়েছে। গত বছর জাতিসংঘের একটি কমিটি জানতে পেরেছে যে দশ লাখের মতো উইঘুর মুসলিমকে পশ্চিমাঞ্চলীয় শিনজিয়াং অঞ্চলে কয়েকটি শিবিরে বন্দী করে রাখা হয়েছে।

মানবাধিকার সংগঠন দাবি করেছিল যে এসব ক্যাম্পে তাদেরকে ‘নতুন করে শিক্ষা’ দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু বেইজিং সরকারের পক্ষ থেকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। দেশটির দাবি ক্যাম্পগুলো চরমপন্থার বিরুদ্ধে উন্মুক্ত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সম্মেলন শুরু

স্টাফ রির্পোটার :  আজারবাইজানের বাকুতে অনুষ্ঠিত জোট নিরপেক্ষ সম্মেলন নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে ...

ফ্রান্সের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলীয় এক মসজিদে বন্দুক হামলা

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : ফ্রান্সের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলীয় এক মসজিদে বন্দুক হামলা হয়েছে। স্থানীয় ...