ব্রেকিং নিউজ
Home | শেয়ার বাজার | উন্নতির পথে হাটছে পুঁজিবাজার

উন্নতির পথে হাটছে পুঁজিবাজার

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা, ১৬ ফেব্রুয়ারী, বিডিটুডে ২৪ ডটকম : ধীরে ধীরে উন্নতির পথে হাটছে দেশের পুঁজিবাজার। বাজারের সমন্বয়হীনতা দূরকরার উদ্যোগ ও তারল্য প্রবাহ বাড়ায় বিনিয়োগকারীরা বাজারমুখী হচ্ছেন। ফলে লেনদেন বেড়েছে চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ থেক দ্বিতীয় সপ্তাহে।

গত সপ্তাহে পাঁচ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ লেনদেন ৬’শ কোটি টাকা ছাড়িয়েছিল দেশের দুই পুঁজিবাজারে। অপরদিকে সূচকে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতাও অব্যাহত থাকতে দেখা যায় । তবে অনেকে বলছেন নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণার পর থেকেই মূলত বাজারে চাঙ্গাভাব এসেছে।

গত সপ্তাহে দেশের উভয় শেয়ারবাজারে সূচক ও লেনদেনে উন্নতি লক্ষ্য করা যায়। এসময় দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন বেড়েছে ৫২ দশমিক ২২ শতাংশ। তালিকাভুক্ত অধিকাংশ কোম্পানির লভ্যাংশ ঘোষণার সময় ঘনিয়ে আসায় লেনদেনে অংশগ্রহণ বাড়াচ্ছেন সব শ্রেণির বিনিয়োগকারী।

তবে লেনদেনে সবচেয়ে বেশি সক্রিয় ব্যক্তি-শ্রেণির বড় ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। বিনিয়োগকারীর অংগ্রহণ বাড়ায় গত বৃহস্পতিবার দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ডিএসইতে লেনদেন হয় ৫৫২ কোটি টাকা, যা পাঁচ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

বিনিয়োগ বাড়ায় অধিকাংশ শেয়ারের দরে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা লক্ষ করা গেছে। মুদ্রানীতি ঘোষণার পর থেকে পুঁজিবাজারে ইতিবাচক ধারা তৈরি হয়েছে। চলতি মাসের ১০ কার্যদিবসের মধ্যে আট দিনই সূচক বেড়েছে। অবশিষ্ট দুই দিন সামান্য সংশোধন হয়েছে। ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা অব্যাহত থাকায় ডিএসইর সাধারণ মূল্যসূচক তিন মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে রয়েছে।

অধিকাংশ  শেয়ারের দরবৃদ্ধির কারণে ডিএসইর সাধারণ মূল্য সূচক দাঁড়িয়েছে চার হাজার ৩৯৬ পয়েন্টে, যা তিন মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে গত বছরের ৫ নভেম্বর এ সূচকের অবস্থান ছিল চার হাজার ৩৯৩ পয়েন্টে। মুদ্রানীতি ঘোষণার পর থেকে ডিএসইর সাধারণ মূল্যসূচক বেড়েছে ১৬৬ পয়েন্ট।

গেল সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে ডিএসইর সাধারণ সূচক বাড়ে ৩০ পয়েন্ট। এদিন লেনদেন হয় ৪১৮ কোটি টাকা। পরের কার্যদিবসে সূচক বাড়ে ৫ দশমিক ৬২ পয়েন্ট, লেনদেন হয় ৪৩৮ কোটি টাকা। মঙ্গলবার কিছুটা দর সংশোধন হলে সূচক কমে ২২ পয়েন্ট। লেনদেন হয় প্রায় ৪৪০ কোটি টাকা।

বুধবার ডিএসইর সাধারণ সূচক বাড়ে ১৭ দশমিক ৯৩ পয়েন্ট, লেনদেন হয় ৪৮৩ কোটি টাকা।  শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার সূচক বাড়ে ৪৬ দশমিক ৭৮ পয়েন্ট, লেনদেন হয় ৫৫২ কোটি টাকা।

ডিএসইতে গত সপ্তাহে মোট ২৮৫টি কোম্পানির ৫৮ কোটি ৬৩ লাখ ২৪ হাজার ৭৫৮টি সিকিউরিটিজের লেনদেন হয়, যার বাজারদর ছিল ২ হাজার ৩৩১ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। লেনদেন করা কোম্পানিগুলোর মধ্যে দর বেড়েছে ২১৫টির, কমেছে ৫৫টির ও অপরিবর্তিত ছিল ১৫টির।

সপ্তাহ শেষে ডিএসইর সাধারণ সূচক ৭৮ দশমিক ৬৫ পয়েন্টে বেড়ে দাঁড়ায় ৪৩৯৬ দশমিক ৮৪ পয়েন্টে। ডিএসইর নির্বাচিত সূচক ডিএসই-৩০ আগের সপ্তাহের চেয়ে ২৭ দশমিক ৪৩ পয়েন্ট  বেড়ে দাঁড়ায় ১৫৫১ দশমিক ৯৭ পয়েন্টে। অন্যদিকে ডিএসইএক্স সূচক ১০৫ দশমিক ৩৮ পয়েন্ট  বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৩০৪ দশমিক ৯৭ পয়েন্টে।

দেশের অন্য পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মোট ২৫৫টি কোম্পানির ৬ কোটি ৯২ লাখ ১৪ হাজার ৬১০টি সিকিউরিটিজে লেনদেন হয়, যার বাজারদর ২৫৪ কোটি ২৩ লাখ টাকা। লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে দর বেড়েছে ১৮৩টির, কমেছে ৩৫টির ও অপরিবর্তিত ছিল ৭টির।

সিএসইর সার্বিক সূচক আগের সপ্তাহের চেয়ে ৩৬৩ দশমিক ৮০ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৪৮৫ দশমিক ২৬ পয়েন্টে। অন্যদিকে সিএসই-৩০ সূচক আগের সপ্তাহের চেয়ে ২৩৮ দশমিক ৫১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৬১২ দশমিক ৯৫ পয়েন্টে।

x

Check Also

পুঁজিবাজারে লেনদেনের সূচক ঊর্ধ্বমুখী

ডেস্ক রিপোর্ট : দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও অপর ...

সূচক পতনে লেনদেন

ডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মঙ্গলবার মূল্য সূচকের পতনে লেনদেন ...