Home | বিবিধ | আইন অপরাধ | হাটহাজারীতে চাইনিজ রেস্টুরেন্টে ভালবাসার আদলে চলছে অসামাজিক কার্যকলাপ

হাটহাজারীতে চাইনিজ রেস্টুরেন্টে ভালবাসার আদলে চলছে অসামাজিক কার্যকলাপ

chittagong mapএকে.এম নাজিম, হাটহাজারী, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : আলো-আঁধারীর মাঝে ছোট-ছোট কেবিন তৈরি করে হাটহাজারীতে গড়ে উঠেছে অসংখ্য মিনি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট। এসব রেস্টুরেন্টে একদিকে চড়া দামে খাবার পরিবেশন ও অন্যদিকে স্কুল-কলেজ-ভার্সিটি পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস চলাকালিন ভালবাসার নামে অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত হওয়ার সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে । এ সকল রেস্টুরেন্টের মালিকরা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ রেখে দেদারছে এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, হাটহাজারী পৌরসভার বাসষ্টেশন এলাকা, কলাবাগন এলাকা, কাচাড়ী সড়ক, জেলাপরিষদ মার্কেট এলাকা, হাটহাজারী বাজার এলাকা, সরকারহাট বাজারসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে অসংখ্য মিনি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট। এসব রেস্টুরেন্ট কোন সুনির্দিষ্ট নিয়মনীতি মেনে চলার বাধ্যবাধকতা নেই। এ সুযোগ নিয়ে রেস্টুরেন্টের মালিকরা অসাধু পুলিশ কর্মকর্তাদের সহায়তায় দেদারছে চাইনিজ রেস্টুরেন্টে এই অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।
সূত্র জানায়, রেস্টুরেন্ট গুলোতে আলো-আধাঁরির মাঝে আড়াআড়ি করে দু’জন বসার জন্য ছোট-ছোট কেবিন তৈরি করা হয়েছে। শিক্ষার্থীসহ নানা বয়সী জুটিদের জন্য এসব ছোট ছোট কেবিন রাখা হয়েছে ভালবাসার আদলে অনৈতিক কর্মকান্ডে লিপ্ত হওয়ার জন্য। খাবারের উচ্চ মূল্যের পাশাপাশি কেবিনে বসে অতিরিক্ত সময় কাটানোর জন্য রেস্টুরেন্টের মালিকরা কাস্টমারদের কাছ থেকে আলাদা মূল্য আদায় করে থাকে। এ সকল রেস্টুরেন্টগুলোতে প্রতিনিয়তই জুটিদের ভিড় লেগে থাকে। রেস্টুরেন্টে আগতরা অভিভাবকদের চোখ ফাঁকি দিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা এসব রেস্টুরেন্টে অবস্থান করে। এ দের বেশিরভাগই উপজেলা সদরের কলেজ, স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়–য়া শিক্ষার্থীরা। তাছাড়া হাটহাজারী উপজেলা চট্টগ্রাম মহানগরীর লাগোয়া হওয়ায় ফটিকছড়ি ও রাউজান উপজেলা থেকেও বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থীরা এসে এখানে প্রিয় জনের সাথে মধুর সময় কাটায়। এতে যেবাবে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা বিনষ্ট হচ্ছে অন্যদিকে এসব শিক্ষার্থীরা নানা অনৈতিক কার্যকলাপে লিপ্ত হচ্ছে। কিছুদিন পূর্বে বাসষ্টেশন এলাকার একটি হোটেল থেকে প্রবাসীর স্ত্রীও অসামাজিক কার্যকলাপে ধরা পরার খবর লোকমুখে। কিন্তু আইন শৃঙ্খলাবাহিনী নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। একটি সূত্রে জানা গেছে, পুলিশের সাথে হোটেল ও রেষ্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের সাথে ভাগ ভাটোয়ারার হিসাব না মিললে তারা লোক দেখানো অভিযান পরিচালনা করেন। আবার বিপুল অংকের টাকা নিয়ে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়ার ঘটনাও রয়েছে হাটহাজারী মডেল থানা পুলিশের।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রেস্টুরেন্টের এক কর্মচারী বলেন, এসব রেস্টুরেন্টগুলোতে মাসোহারা নেয় না এমন কিছু আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য অনেক সময় এসব রেস্টুরেন্টগুলোতে অভিযান চালায়। কিন্তু তারা অভিযানে আসার আগেই অসাধু সোর্সরা রেস্টুরেন্ট মালিকদের সংকেত দিয়ে দেয়। এছাড়া মালিকরা নির্দেশ দেয়ার সাথে সাথে রেস্টুরেন্ট আলোকিত করে ফেলি।
এসব রেস্টুরেন্টগুলোর বিরুদ্ধে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের সম্ভাবনাময় জীবনের অবক্ষয় জাতিকে ধ্বংসের দিকে এগিয়ে নেবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন সচেতন মহল। সাধারন জনগন বলছেন লোক দেখানো অভিযান চালিয়ে আবার তাদেরকে ব্যবসা করার সুযোগ দিলে অভিযান না চালানোই ভাল। আমরা অনেকবার বাসষ্টেশন এলাকা থেকে অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ আটকের খবর পেয়েছি। কিন্তু তারাতো আর এ ব্যবসা বন্ধ করেনি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পৌর প্রশাসক ইসরাত জাহান পান্নার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, শীঘ্রই ভালবাসার আদলে সৃষ্ট হোটেল ও রেষ্টুরেন্ট সমূহে অভিযান চালানো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

রংপুরে শিশু ধর্ষণ মামলার ২ আসামি গ্রেফতার

রংপুর ব্যুরো : রংপুরে র‌্যাব-১৩ দলের বিশেষ অভিযানে শিশু ধর্ষণ মামলার ২ ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। ...

মা দিবসে ছেলের হাতে প্রাণ গেল মায়ের

ডেস্ক রিপোর্ট : মা দিবসে ঢাকার ধামরাইয়ের ছেলের পাথরের আঘাতে মা ওজিফা খাতুনের (৬৫) ...