ব্রেকিং নিউজ
Home | সারা দেশ | হাকালুকি হাওরে মৎস্য নিধনের মহোৎসব

হাকালুকি হাওরে মৎস্য নিধনের মহোৎসব

Hakaluki fish caughtজালাল আহমদ, মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের বড়লেখায় অবস্থিত এশিয়ার বৃহত্তম হাওর হাকালুকিতে মৎস্য নিধনের মহোৎসব চলছে। প্রতিদিন এক শ্রেণীর ইজারাদার ও মৎস্যজীবিদের যৌথ সমন্বয়ে অবাধে কারেন্ট জাল, বেড়জাল, ফোরাজাল, কাঠিজাল, ফাঁসিজাল ও মশারি ও কাপড়ি জাল দিয়ে মাছ শিকার চলছে। সরেজমিনে হাকালুকি হাওরে  গেলে এ চিত্র দেখা যায়। দীর্ঘদিন থেকে এভাবে মৎস্য নিধন চলে আসলেও কার্যত এসব দেখার যেনো কেউ নেই। হাওরের অভয়াশ্রমঘোষিত বিলগুলোতে মৎস্য নিধন বেশি দেখা গেছে।
সংশিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, হাকালুকি হাওরে বর্তমানে ১৩ টি বিল অভয়াশ্রম তালিকায় আছে। তন্মধ্যে বড়লেখা উপজেলায় পড়েছে ৮ টি। সম্প্রতি মৌলভীবাজার জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) প্রকাশ কান্তি চৌধুরী সরেজমিনে হাকালুকি হাওর পরিদর্শনে গিয়ে অবাধে মাছ শিকারের দৃশ্য দেখতে পান। এ সময় তিনি অভিযান চালিয়ে হাওরের অভয়াশ্রমঘোষিত (পলোভাঙ্গা, মরা সোনাই, চিকনাউটি গ্র“পবদ্ধ জলমহাল) থেকে প্রায় ৬০০ হাত কারেন্ট জাল জব্দ করেন।
সরেজমিনে হাওরের পলোভাঙ্গা, চিকনাউটি, মরা সোনাই গ্র“পবদ্ধ জলমহাল, উত্তর গজুয়া, দণি গজুয়া ও রনসি বিলে মৎস্য নিধন অব্যাহত রয়েছে। হাওরে মৌসুমী জেলে হিসেবে পরিচিত ফেঞ্চুগঞ্জ, ইসলামপুর, গোলাপগঞ্জের বাসিন্দারা ইচ্ছেমতো হাওরের বিলগুলোতে মাছ শিকার করছে। তাদের পেছনে শক্তি হিসেবে কাজ করছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালীমহল। এদের দাপটে প্রকৃত জেলেরা হাওরে মাছ শিকার করতে পারছে না বলে অভিযোগ স্থানীয় জেলেদের।
হাওরতীরবর্তী জেলে সম্প্রদায়ের লোকজন জানান, বর্তমানে যেসব বিল অভয়াশ্রম তালিকায় রয়েছে সেগুলোর কার্যক্রম শুধু কাগজে-কলমে। মাঠপর্যায়ে অবস্থা খুবই শোচণীয়। এর কারণ হিসেবে তারা উলেখ করেন মাঠপর্যায়ে মতামত না নিয়ে ভূমি মন্ত্রণালয় যেসব বিলগুলোকে অভয়াশ্রম ঘোষণা করেছে সেগুলোর বেশিরভাগই ফেঞ্চুগঞ্জ ও গোলাপগঞ্জের কাছাকাছি এলাকায় পড়েছে। দূরবর্তী হওয়ায় বিলগুলো স্থানীয় প্রশাসনের ব্যবস্থাপনা ও তদারকির মধ্যে নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।
স্থানীয়রা আরও জানান, যেসব বিল প্রশাসনের পে ব্যবস্থাপনার মধ্যে নেওয়া সম্ভব হবে সে বিলগুলোকেই অভয়াশ্রম ঘোষণা করা হোক। আর অভয়াশ্রমঘোষিত বিলগুলো যদি এভাবে অরতি থাকে এবং নির্বিচারে মাছ নিধন চলতে থাকে তবে এক সময় মৎস্যভাণ্ডারখ্যাত হাকালুকি হাওর মৎস্যশূন্য হয়ে পড়বে। অরতি এসব বিল ইজারায় দেওয়ারও জোর দাবি জানান তারা। বিলগুলো ইজারা দিলে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব পাবে বলেও তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।
স্থানীয় মৎস্যজীবিদের সাথে কথা বলে আরও জানা গেছে, কারেন্ট জাল, বেড়জাল, ফোরাজাল, কাঠিজাল, ফাঁসিজাল ও মশারি ও কাপড়ি জাল দিয়ে ডিমওয়ালা মাছ নিধন, বিভিন্ন প্রজাতির মা মাছ, মাছের রেনু পোনা নির্বিচারে ধরার কারণে মাছের স্বাভাবিক বংশবিস্তার হচ্ছে না। চরমভাবে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে বংশবৃদ্ধি। মৌসুমী জেলে ও ইজারাদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলে এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যাবে বলে এলাকাবাসীর অভিমত।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, হাকালুকিতে মৎস্য শিকারিরা তাণ্ডব চালাচ্ছে ২৪ ঘণ্টাই। ফলে শুধু মাছই নির্বংশ হচ্ছে না, ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে হাওরের জলজ উদ্ভিদের অস্তিত্বও। শিকারিদের তাণ্ডবে দেশীয় প্রজাতির মাছ হুমকির মুখে পড়েছে। তাদের কাছে যেমন মা মাছ বলে কোনো মাছ নেই তেমনি ডিমওয়ালা বলেও কোনো বিচার নেই।
সূত্র আরও জানিয়েছে, হাওরে প্রায় ৪০০ শতাধিক বেড়জাল নিয়ে প্রতিদিন শিকারিরা ঝাঁপিয়ে পড়ে হাওরের অভয়াশ্রমঘোষিত বিলে। দিবারাত্রি আহরণ করে সব ধরণের মাছ। শিকারিরা বিত্তবান শ্রেণীর না হলেও জালের মালিকরা সবাই বিত্তবান। হাওর থেকে প্রতিদিন অন্তত কোটি টাকার মাছ আহরণ হচ্ছে। আর এই কোটি টাকার বাণিজ্যে শরীক বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা থেকে শুরু করে সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি ও গ্রামের প্রভাবশালী ব্যক্তিরা।
এ ব্যাপারে বড়লেখা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আজিবুর রহমান জানান, মাঠপর্যায়ে মতামত না নিয়ে ভূমি মন্ত্রণলায় বিলগুলোকে অভয়াশ্রম ঘোষণা করেছে। সেগুলো আমাদের পে ব্যবস্থাপনার মধ্যে আনা সম্ভব না। অভয়াশ্রমের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হলে এর সাথে জড়িত সংস্থাগুলোকে আরও সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে। তবেই সফলতা আসবে। সুবিধাজনক স্থানে আছে এমন বিলগুলোকে অভয়াশ্রম ঘোষণা করলে তা রা করা সম্ভব হবে, তবে স্থানীয় জনগণের সক্রিয় অংশগ্রহণ জরুরী বলে তিনি মন্তব্য করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মদনে সরকারি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে অবাধে মাছ শিকার

সুদর্শন আচার্য্য, মদন (নেত্রকোণা) ঃ নেত্রকোণার মদনে তিয়শ্রী ইউনিয়নের তিয়শ্রী বাজারের পাশে ...

মদনে অবৈধভাবে চলছে মাছ শিকারের মহোৎসব

সুদর্শন আচার্য্য, মদন (নেত্রকোণা) : নেত্রকোণা মদন উপজেলার মাঘান ইউনিয়নের নয়াপাড়া ও ...