ব্রেকিং নিউজ
Home | ব্রেকিং নিউজ | হতদরিদ্র ভ্যান চালক ফরজনের ভাগ্যে জুটেনি ‘জমি আছে ঘর নেই’ প্রকল্পের একটি ঘর

হতদরিদ্র ভ্যান চালক ফরজনের ভাগ্যে জুটেনি ‘জমি আছে ঘর নেই’ প্রকল্পের একটি ঘর

মামুন মোল্লা, চুয়াডাঙ্গা : জীবনগরের হত দরিদ্র এক ভ্যান চালকের নাম শেখ ফরজন আলী। সর্বদা হাসি মাখা মুখ ফরজনকে কে না চেনে তাকে। ভ্যান চালানোর সময় যাত্রীদের চলারপথে একটু বিনোদনের জন্য গান গেয়ে কষ্টেভরা জীবন পার করছে ফরজন। বয়সও প্রায় ষাটের ঘরে পৌঁছে গিয়েছে।

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর পৌর ৩ নং ওর্য়াডের গোপালনগর (ডাঙ্গাপাড়া) গ্রামে তিন শতক জমির উপর মাটির তৈরী একটি ভাঙ্গা ঘরে তার বসবাস। অভাবের সংসারে হাড় ভাঙ্গা খাটুনির রোজগারে তার সংসার চলে।
অভাব অনটনের মধ্যদিয়ে তার দুই কন্যা সন্তানকে লালন পালন করেছেন। দুই কন্যা সন্তানকে বিয়ে দিয়েছেন অনেক কষ্ট করে। সে সময় অনেকের কাছে হাত পেতেও কোন প্রকার সাহয্য সহযোগিতা মেলেনি। শত অভাব অনটনের মাঝেও হাসিমুখে গান গায় আর ভ্যান চালায় ফরজন। সভ্যতার এই আধুনিক যুগে পা দিয়ে ভ্যান চালিয়ে কত টাকাই বা উপার্জন করতে পারে। ভ্যান গুলো এখন আধুনিক সভ্যতার ছোয়ার ব্যাটারী ইঞ্জিন চালিত পাখি ভ্যানে পরিনত হয়েছে। ফরজনের সাধ্য নেই সেই পাখি ভ্যান কেনার। তাই অন্যের কাছ থেকে ভাড়ায় নেওয়া পায়ে ঠেলা ভ্যান চালিয়ে দিনে দু’একশ টাকা উপার্জন করে। যাতে তার অনেক সময় সংসার ঠিক মত চলে না। বর্ষার সময় মাথা গোঁজার ঠাই টুকুন খুবই নাজেহাল অবস্থায় থাকে। কোন রকম সরকারী সাহায্য সহযোগিতা ও পাননা কখনও।

এ বিষয়ে শেখ ফরজন আলীকে জিজ্ঞেস করলে সে এই প্রতিবেদককে জানায় খুব কষ্ট করে পরের ভ্যান ভাড়ায় নিয়ে পায়ে ঠেলে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে উপায় করছি। এখনকার যুগে সবকিছুরই দাম বেশী তাই পেটের ভাত জোগার করাই দায়।
সে জানায় আমি দীর্ঘদিন যাবৎ মাটির তৈরী একচালা ভাঙ্গা বসবাস করে আসছি। তাকে যদি বলা হয় আপনি কাকে ভোট দিয়েছেন সাবলীল ভাবে সে উত্তর দেবে আমি বঙ্গবন্ধুর আর্দশের বর্তমান সরকার শেখ হাসিনার দল করি নৌকা মাকায় ভোট দেই। উৎসুক হয়ে তাকে জিজ্ঞেস করলাম তাহলে সরকারের কোন অনুদান তুমি পাওনি কেন। সে উত্তরে জানায় কে দিবে আমার সাহায্য। প্রশ্ন জাগে এ সমস্থ হত দরিদ্র ভ্যান চালকেরা নৌকায় ভোট দিয়ে যদি কোন অনুদান না পেয়ে থাকে তাহলে অনুদান গুলো পায় কারা। অদৃশ্য কারন বশত তা আজানায় থেকে যায়।

ফরজন জানায় শুনেছিলাম সরকার গরীব মানুষদের জন্য একটি করে ঘর বানিয়ে দিচ্ছে। সে কথা শুনে আমি কতবার মেম্বার,চেয়ারম্যানদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি তার কোন হিসাব নেই। সরকারের জমি আছে ঘর নেই প্রকল্পে উল্লেখ আছে মাঠ পর্যায়ে জরিপ করে যাদের জমি আছে মাথা গোজার ঠাইটুকুও অনিরাপদ এবং অভাবী ও হতদরিদ্র তাদের কে ঘর বানিয়ে সহযোগিতা করবে সরকার। কিন্তু বাস্তবে তার উল্টো দিক পরিলক্ষিত হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে সরেজমিনে দেখা গেছে যারা আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী ও পাকা আধাপাকা ঘর আছে তারাও ঘরের বরাদ্দ পেয়েছেন।
এবিষয়ে জীবননগর উপজেলার নির্বাহী অফিসার সেলিম রেজা জানান এবছর ৩৭২ টি ঘরের বরাদ্দ আমরা পেয়েছি। ইতোমধ্যেই তার বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। শেখ ফরজুন এর বিষয়টি তালিকায় না থাকার কারনে সে ঘর পায়নি। তিনি আরো জানান আমরা জনপ্রতিনিধিদের দেওয়া তালিকানুযায়ী ঘর বরাদ্দ দিয়েছি।

জীবনগর পৌর মেয়র জনাব জাহাঙ্গীর আলম জানান এবারও প্রত্যেকটি ওয়ার্ড থেকে ৫টি করে ঘরের তালিকা নেওয়া হয়েছে। তার ভিতরে ফরজনের নাম আছে কিনা তা জানি না এ বিষয়ে আমি সংশ্লিষ্ট ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর
ও মহিলা কাউন্সিলর কে আমি তালিকার জন্য দায়িত্ব দিয়েছি।

এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর আতিয়ার রহমান জানান এ ব্যাপারে যখন তালিকা করা হয় তখন আমার কোন মতামত গ্রহন করা হয়নি। এবং আমাকে তালিকা প্রস্তুতির দায়িত্ব পর্যন্ত দেওয়া হয়নি। শুধু তাই নয় গত কোরবানী ঈদের ভিজিএফ এর তালিকা তৈরী ও ভুক্তভোগীদের কার্ড বিতরনের সুযোগ দেওয়া হয়নি।
আমার ওয়ার্ডে তালিকার দায়িত্ব পেয়েছিলেন মহিলা কাউন্সিলর মাহফুজা খাতুন বিউটি তাকে জিজ্ঞেসা করলেই সবকিছু জানা যাবে।

তবে সচেতন মহলের দাবী এরকম গরীব ফরজনদের জন্য কাজ করলে আগামী দিনে পৌর মেয়রের সুনাম আরো বৃদ্ধি পাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

সাধারণ মানুষ যেন পুলিশের হয়রানি ও চাঁদাবাজির শিকার না হন:শফিকুল ইসলাম

স্টাফ রির্পোটার : ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অধীনস্থ কোনো থানায় মানুষ যদি ...

ফকিরহাটে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় মেয়ে নিহত, বাবা-মা আহত

ফকিরহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : বাগেরহাটের ফকিরহাটে ভ্যানের সাথে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় মারিয়া ...