Home | জাতীয় | সিটি করপোরেশনকে জলাবদ্ধতার দায়িত্ব দিলেন মন্ত্রী

সিটি করপোরেশনকে জলাবদ্ধতার দায়িত্ব দিলেন মন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার :  জলাবদ্ধতা নিরসনের মূল দায়িত্ব ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনকে দিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসনে। তিনি বলেন, ‘ওয়ার পক্ষে জলাবদ্ধতা নিরসন করা সম্ভব হবে না। ওয়াসা জনগণ থেকে দূরে। এখন থেকে জলাবদ্ধতা নিরসনের কাজ করবে সিটি করপোরেশন। আর তাদের সহায়তা করবে সবাই।’

রোবারর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নগর ভবনে আয়োজিত নগরীর জলাবন্ধতা নিরসনে আন্তঃবিভাগীয় সমন্বয় সভায় আলোচকদের আলোচনা শোনার পরে মন্ত্রী এমন সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা দেন।

ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসনে বলেন, ঢাকার জলাবদ্ধতাসহ নানা সমস্য নিরসনে নতুন করে স্ট্যান্ডাট এরিয়া নির্ধারণের মাধ্যমে একদম নতুন একটি মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করা জরুরি। জলজট নিরসনে ঢাকা ওয়াসার পক্ষে দূরিকরণ সম্ভব নয়। জলাবদ্ধতার সঙ্গে যে সকল প্রতিষ্ঠান জড়িত তাদের সঙ্গে আমি ৩ মাস পর পর খোলামেলা আলোচনায় বসবো। সেখান থেকেই সমাধানের পথ বের করব।

তিনি বলেন, ঢাকা সিটি চারগুন বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই যে যা প্লান করেছেন তা বাদ দিয়ে নতুন করে প্লান করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, ঢাকা একটি নিম্নাঞ্চল এলাকা। ঢাকা শহরের বর্তমান সমস্যা সমাধানে আশেপাশের নদীগুলোর গভীরতা বাড়াতে হবে। সমস্ত ঢাকা শহরের বাসা বাড়ির মলমূত্র সুয়ারেজ সিস্টেম নিয়ে যাওয়া উচিত।

তিনি বলেন, খাল পরিষ্কার করে কোন লাভ হবে না। খালের গভীরতা বাড়াতে হবে। একই সঙ্গে ঢাকা ওয়াসার সুয়ারেজ সিস্টেম নিয়ে নতুন করে পরিকল্পনা করা প্রয়োজন, তা না হলে গন্ধে থাকা যাবে না।

এসময় দখল হওয়ে যাওয়া খাল উদ্ধারে অতি জলদি সেনাবাহিনীর সহায়তা নেয়ারা পরামর্শ দেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, নদী, খালের দখলদারদের উচ্ছেদ করতে হবে জোড়ালভাবে। এ জন্য ৪-৫টা বাড়ি ভাঙ্গতে হলে ভাঙ্গেন। সমস্যা হলে আমি দেখবো। বাড়ি না ভাঙ্গলে সবাই মজা পাবে। যে যেখানে পাবে সেখানে দখল করবে।

বৃষ্টির পানি শুধু ড্রেন দিয়ে সড়ালে হবে না এমন কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী রাজউককে নির্দেশ দিয়ে বলেন, ‘বাড়ির ছাদে বৃষ্টির পানি মজুদের ব্যবস্থা না করলে। আর কাউকে বাড়ি নির্মাণের অনুমোদন দিবেন না।’

একি সঙ্গে রাজউককে মন্ত্রী আরো একটা নির্দেশনা দিয়ে বলেন, রাস্তা থেকে কমপক্ষে ৫ ফিট ব্যবধানে বাড়ি নির্মান না করলে ভেঙে দিবেন। না ভাঙ্গলে কেউ আইন মানবে না। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, রাজধানীর জলাবদ্ধতা একটি বড় সমস্যা। জলাবদ্ধতা দূর করতে হলে প্রথমে এখানকার খালগুলোকে দখলমুক্ত করতে। আর যাদি তা না করা হয়, তাহলে জলাবদ্ধতা থেকে রেহাই পাওয়া যাবে না।

তিনি বলেন, প্রয়োজনে আইন প্রনয়ন করে খালগুলো দখল মুক্ত করা উচিত। সেই সঙ্গে সম্মিলিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা দরকার আর সকল প্রতিষ্ঠানগুলো এক সাথে কাজ করা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক। এছাড়া আরো বক্তব্য রাখেন রাজউক চেয়ারম্যান আবদুর রহমান, ঢাকা ওয়াসার এমডি তাসকিন এ খান প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

শেরপুরের শ্রীবরদীতে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী খুন

জাহিদুল হক মনির, শেরপুর || শেরপুরের শ্রীবরদীতে যৌতুকের দাবিতে পাষন্ড স্বামীর হাতে ...

রোহিঙ্গা এলাকায় ভোটার হতে মা-বাবার এনআইডি দেখাতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার :  ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গাদের অন্তর্ভুক্তি ঠেকাতে ৩০টি উপজেলায় বিশেষ ব্যবস্থা ...