ব্রেকিং নিউজ
Home | সারা দেশ | সাতকানিয়ায় জামায়াত-শিবিরের সড়ক অবরোধ \ গাড়ি ভাংচুর ও ককটেল বিস্ফোরণ, গ্রেফতার ৫

সাতকানিয়ায় জামায়াত-শিবিরের সড়ক অবরোধ \ গাড়ি ভাংচুর ও ককটেল বিস্ফোরণ, গ্রেফতার ৫

chattagram mapনেওয়াজ হোসাইন নিশাদ, সাতকানিয়া(চট্টগ্রাম)ঃ চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার ছদাহা ইউনিয়নের আফজল নগর এলাকায় গতকাল শনিবার ভোরে সাতকানিয়া থানা পুলিশ বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত আসামীদের ধরতে গেলে পুলিশের সাথে জামায়াত-শিবির কর্মীদের সাথে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় জামায়াত-শিবির কর্মীরা পুলিশের দিকে বেশ কিছু ককটেল নিক্ষেপ করলে পুলিশও তাদের দিকে লক্ষ্য করে ৬ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে। এতে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। পুলিশ জামায়াত-শিবিরের ৫ সমর্থক ও কর্মীকে গ্রেফতার করে। এদিকে ৫ জামায়াত-শিবির সমর্থক ও কর্মীকে গ্রেফতারের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সকাল থেকে চট্টগ্রাম-কক্সাবাজার মহাসড়কের চার স্থানে ও চট্টগ্রাম-বান্দরবান সড়কের দুই স্থানে ব্যারিকেড দিয়ে বাস, হাইচ, সিএনজি অটোরিক্সা ও মাহিন্দ্রসহ ১০টির মত যানবাহন ভাংচুর করে তারা। এভাবে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত দফায় দফায় চলে সড়ক অবরোধ ও গাড়ি ভাংচুর। স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গতকাল শনিবার ভোরে ছদাহা ইউনিয়নের আফজল নগর মুহুরী পাড়া ও ফজুর পাড়া এলাকায় বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত আসামীদের ধরতে পুলিশের একটি দল অভিযান চালায়। এ সময় ছদাহা আফজল নগর এলাকার মৃত ফকির আহমদের ছেলে আহমদ ছফা (৪৫), একই এলাকার মৃত ইউছুফ আলীর ছেলে আবু ছৈয়দ (৭৫), মৃত এয়াকুব আলীর ছেলে আবুল হোসেন (৬৫), আবুল হোসেনের ছেলে আবদু শুক্কুর (২২) ও কেঁওচিয়া ইউনিয়নের আবদুল করিমের ছেলে সাহাব উদ্দিন (২০) কে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশের অভিযান চলাকালীন সময়ে জামায়াত-শিবির কর্মীদের গ্রেফতার, ঘরবাড়ি ভাংচুর ও আসবাবপত্র তছনছের খবর স্থানীয় এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে জামায়াত-শিবির কর্মীরা চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের হাসমত আলীর দোকান, চারা বটতল, মালেক মেম্বার ব্রীকফিল্ড, টাইমক্যাফে ও চট্টগ্রাম-বান্দরবান সড়কের চেয়ারম্যান ঘাটা ও ২ নং ব্রীজ এলাকায় ব্যারিকেট দিয়ে সড়ক অবরোধ করে। এ সময় সড়কের উভয় পার্শে শত শত গাড়ি আটকা পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থনে এসে অবরোধ তোলার চেষ্টা করলে জামায়াত-শিবির কর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।  এ ব্যাপারে সাতকানিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হারুন-অর-রশীদ চৌধুরী বলেন, পুলিশ গত শনিবার ভোরে তালিকাভুক্ত আসামীদের গ্রেফতার করতে গেলে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ককটেল নিক্ষেপ করে। তখন পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

উন্নয়নে নৌকার বিকল্প নেই-এমপি মোতাহার

নুরনবী সরকার, লালমনিরহাট প্রতিনিধি ঃ উন্নয়নে নৌকার বিকল্প কোন মার্কা নেই উল্লেখ ...

পান্ডারগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

দোয়ারাবাজার(সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ রমজান হচ্ছে রহমত বরকত ও কল্যাণের মাস। আল্লাহর ইবাদত ও ...