Home | আন্তর্জাতিক | সপ্তাহ জুড়েই থাকবে ছুটির মেজাজ

সপ্তাহ জুড়েই থাকবে ছুটির মেজাজ

স্টাফ রিপোর্টার, ১৫ মার্চ, বিডিটুডে ২৪ডটকম : আগামী সপ্তাহে তিনদিন হরতাল, একদিন সরকারি ছুটি। এরপরই শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি। ফলে এই শুক্রবার থেকে আগামী সপ্তাহের শনিবার পর্যন্ত টানা নয়দিনের মধ্যে মাত্র একদিন স্বাভাবিক কর্মদিবস পাচ্ছে রাজধানীবাসী।

শনিবার সরকারি অফিস-আদালত বন্ধ। ১৭ মার্চ রোববার বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে সরকারি ছুটি। আটক নেতা-কর্মীদের মুক্তি দাবিতে আগামী ১৮ ও ১৯ মার্চ সোম ও মঙ্গলবার হরতাল পালনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে আটক প্রায় দেড়শ’ নেতা-কর্মীকে আটকের প্রতিবাদে তাদের এই কর্মসূচি। এছাড়া ২১ মার্চ বৃহস্পতিবার আবার রাজধানীতে হরতাল ডেকেছে ঢাকা জেলা বিএনপি।

গত ১১ মার্চ নয়া পল্টনে দলীয় কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের আটকের পরপরই তাদের মুক্তি দাবিতে ১৮ দলীয় জোট ১৮ ও ১৯ মার্চ হরতালের ঘোষণা দেয়। তবে আটক নেতাদের মধ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সাদেক হোসেন খোকা ও আলতাফ হোসেন চৌধুরী পরদিনই মুক্তি পান।

কিন্তু বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ জয়নাল আবদিন ফারুক, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, আমানউল্লাহ আমান ও শাজাহান, ড্যাব মহাসচিব ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ড. এম জাহিদ হোসেন এবং বিএনপির সহ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব এখনও কারাগারে রয়েছেন।

বুধবার নয়া পল্টনে দলীয় কার্যালয় দেখতে গিয়ে সমবেত কর্মীদের উদ্দেশে বক্তব্যে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জানান, ১৮ ও ১৯ মার্চ দেশব্যাপী হরতাল থাকছে।

হরতাল ঘোষণার সময় বৃহস্পতিবারের মধ্যে আটক নেতা-কর্মীদের মুক্তি দাবি করা হয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার তাদের মুক্তি না দেওয়ায় ১৮ ও ১৯ মার্চ সারাদেশে সর্বাত্মক হরতাল বহাল থাকলো।

এছাড়া ঢাকার সাবেক সংসদ সদস্য আমানউল্লাহ আমানসহ নেতা-কর্মীদের মুক্তি দাবিতে ২১ মার্চের হরতাল কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হয়। গত বুধবার নয়া পল্টনে বিএনপির প্রধান কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল মান্নান এই ঘোষণা দেন। এছাড়া বৃহস্পতিবার ঢাকার সব থানায় বিক্ষোভ সমাবেশ এবং শনিবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনের কর্মসূচি রয়েছে।

গত সোমবার পুলিশ দূরে থাকলেও বিএনপি অফিসের সামনে বিরোধীদলীয় জোটের বিক্ষোভ সমাবেশে ককটেল বিস্ফারণের ঘটনা ঘটে। নেতাকর্মীদের মারমুখী আচরণ এবং পুলিশের দিকে ঢিল ছুঁড়তে থাকার ফলে সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়।

এর পরপরই এক দল নেতাকর্মী নয়া পল্টনে দলীয় অফিসে ঢুকে পড়েন। সেখানে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বোমা ও ককটেল উদ্ধারের পর নেতাকর্মীদের আটক করে ।

আটক নেতাদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে দুটি মামলা হয়েছে থানায়। দুই মামলায় আটক ১৮ দলীয় জোটের ১৫৪ নেতাকর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডের আবেদন করেছে পুলিশ। বিবাদী পক্ষ আবেদন করেছে জামিনের। রিমান্ড ও জামিনের শুনানি হবে ২০ মার্চ।

বিভিন্ন ইস্যুতে মার্চের শুরু থেকে জামায়াত ও বিএনপির ডাকে বেশ কয়েকদিন হরতাল পালিত হয় সারা দেশে। হরতাল-সহিংসতায় হতাহতের ঘটনা ঘটে।

আগামী সপ্তাহে শনিবারসহ দুই দিন ছুটির মাঝে তিন দিন হরতাল। এতে ঢাকাবাসী স্বাভাবিক কর্মদিবস পাচ্ছে মাত্র একদিন, শুধু বুধবার। এছাড়া সামনের শুক্র ও শনিবার ছুটি তো আছেই। ফলে টানা নয় দিনের মধ্যে হরতাল ও ছুটি বাড়াবে জনদুর্ভোগ।

হরতাল এবং রাজনৈতিক সহিংসতা এড়াতে ইতোমধ্যে দেশের দুই শীর্ষ রাজনৈতিক দলের প্রধানদের মধ্যে রাজনৈতিক সংলাপের জন্য জোর তাগিদ উঠেছে। ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, কূটনৈতিকসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ সংলাপের উপর জোর দিয়েছেন।

দু্ই নেত্রীর সংলাপ চেয়ে সর্বশেষ বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুস আলী আকন্দ আদালতে রিট আবেদন করেছেন। রিটে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দল, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দল, নির্বাচন কমিশন, সরকার এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বিবাদী করা হয়েছে।

x

Check Also

দিল্লি দখলের হুমকি পাকিস্তানি অভিনেতার!

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : পাকিস্তানি অভিনেতা ওয়াকার জাকা বলেছেন, ভারত সরকার কাশ্মীর না ছাড়লে ...

পাকবাহিনীর গুলিতে ৬ ভারতীয় সেনা নিহত

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : সীমান্তের টাট্টাপানি এলাকার নিয়ন্ত্রণ রেখায় পাকবাহিনীর গুলিতে একজন সেনা কর্মকর্তাসহ ...