Home | সারা দেশ | সংখ্যালঘু সাংবাদিক পরিবারের উপর সদরপুরে সন্ত্রাসী হামলা।

সংখ্যালঘু সাংবাদিক পরিবারের উপর সদরপুরে সন্ত্রাসী হামলা।

faridpurইকবাল মাহমুদ (হিরু)ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ ফরিদপুর জেলার সদরপুর উপজেলার পশ্চিম শ্যামপুর গ্রামের আনন্দ রায়ের বাড়ীতে শুক্রবার রাতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে। সন্ত্রাসীরা দু দফা হামলা চালিয়ে বাড়ীর সদস্যদের মারধোরের পাশাপাশি লক্ষিপুজা পন্ড করে দিয়েছে। এ ঘটনা নিয়ে কোন বাড়াবাড়ি যাতে না হয় সেজন্য পরিবারটিকে অব্যাহত হুমকি দিচ্ছে সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় সদরপুর থানায় অভিযোগ দাখিল করা হলেও প্রভাবশালী একটি মহলের চাপে মামলা নিচ্ছেনা পুলিশ। প্রভাবশালী মহলটি মিমাংসার জন্য চাপ সৃষ্টি করেছে সংখ্যালঘু পরিবারটির উপর এমন অভিযোগও পাওয়া গেছে। স্থানীয় গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, পশ্চিম শ্যামপুর গ্রামের আনন্দ রায়ের স্ত্রী গীতা রানী সম্প্রতি একই গ্রামের হারেজ মজুমদারের কাছ থেকে চড়া সুদে ১০ হাজার টাকা ধার নেয়। প্রতি মাসে গীতা রানী সুদের টাকা পরিশোধ করে আসছিল নিয়মিত। গত কয়েকদিন আগে পুরো টাকা একবারে শোধ দেবার জন্য চাপ সৃষ্টি করে হারেজ। পুরো টাকা পরিশোধ না করায় গত শুক্রবার সন্ধ্যায় হারেজ তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে আনন্দ রায়ের বাড়ীতে হামলা চালায়। এসময় বাড়ীর লোকজন লক্ষিপুজা নিয়ে ব্যস্ত ছিল। সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে বাড়ীর বেশকিছু আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এসময় তারা আনন্দ রায়ের কন্যা র্স্বনলতাকে নাজেহাল করে স্বর্নালংকার ছিনিয়ে নেয়। পরে সন্ত্রাসীরা পুজারত অবস্থায় বাড়ীর লোকজনকে মারপিট করে। মুহুর্তের মধ্যে পন্ড হয়ে যায় পূজা অর্চনা। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা চলে যেতে বাধ্য হয়। রাত ৮টার দিকে ফের সন্ত্রাসীদের নিয়ে হামলা চালায় হারেজ। এ সময় সন্ত্রাসীরা বাড়ীতে ঢুকে ধারালো অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে মারাত্বক ভাবে আহত করে স্থানীয় সাংবাদিক প্রভাত কুমার সাহা, উত্তম কুমার সাহাসহ কমপক্ষে ১০ জনকে। তাদের মধ্যে প্রভাত ও উত্তমকে সদরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। সন্ত্রাসীরা হিন্দু এ পরিবারটির সদস্যদের উপর নির্যাতন চালিয়ে ১ ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। স্থানীয়রা এগিয়ে এলেও সন্ত্রাসীদের ভয়ে তারা কিছু বলতে পারেনি। পরে সদরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিবারটিকে অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্ত করে। আহতদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠায়। এ ঘটনার পর স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে আতংক বিরাজ করছে। আজ শনিবার এ বিষয়ে মামলা করতে থানায় গেলে পুলিশ মামলা নিতে গড়িমশি করে। অভিযোগ রয়েছে, প্রভাবশালী একটি মহলের কারনে মামলা নিচ্ছে না পুলিশ। গতকাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা সাংবাদিক ও তার ভাইকে দেখতে যান সদরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ লোকমান হোসেন। তিনি দায়িদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশের প্রতি আহবান জানান। এ ব্যাপারে সদরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আলী জানান, এ ঘটনার পর সন্ত্রাসীদের ধরতে একাধিক বার অভিযান চালানো হয়েছে। স্থানীয় ভাবে মিমাংসার চেষ্টা হচ্ছে। না হলে মামলা নেয়া হবে। সন্ত্রাসীদের ছাড় দেয়া হবেনা বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

খেতে চাওয়ায় শতবর্ষী মাকে জখম করল পাষণ্ড ছেলে

স্টাফ রিপোর্টার :  ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার ডাঙ্গীপাড়া ইউনিয়নে খেতে চাওয়ায় শত বছর ...

পুলিশকে মারধর করে ছাত্রলীগ পরিচয় দিল ৩ কলেজছাত্র

স্টাফ রিপোর্টার :  বরিশালে ট্রাফিক পুলিশ কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগে ছাত্রলীগ নামধারী ৩ ...