ব্রেকিং নিউজ
Home | খেলাধূলা | রেকর্ড বইয়ে জায়গা করে নিলেন মুম্বাইয়ের ব্যাটসম্যান বিজয় হাজারে

রেকর্ড বইয়ে জায়গা করে নিলেন মুম্বাইয়ের ব্যাটসম্যান বিজয় হাজারে

ক্রীড়া ডেস্ক : ক্রিকেট জীবনের শুরুতে তিন বছর মাঠকর্মীদের সঙ্গে ছোট্ট একটা তাঁবুতেই রাত কাটাতে হত তাঁকে। কখনও কখনও মুম্বাইয়ের আজাদ ময়দানে জীবনধারনের জন্য পানিপুরি (ফুচকা) বিক্রি করতে হত। আবার কখনও খিদে সহ্য করেই শুয়ে পড়তে হত ওই তাঁবুতে। ১১ বছরের ছেলেটা তবু লড়াই ছাড়েনি। যার ফল, ছয় বছর পরে ব্যাট হাতে এখন বিশ্বরেকর্ড করছেন  বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান  যশস্বী জয়সওয়াল।

বুধবার বিজয় হাজারে ট্রফিতে ঝাড়খণ্ডের বিরুদ্ধে ১৭ বছর ১৯২ দিন বয়সে ডাবল সেঞ্চুরি করে রেকর্ড বইয়ে জায়গা করে নিলেন মুম্বাইয়ের এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। তিনি হলেন লিস্ট ‘এ’ (ঘরোয়া সীমিত ওভারের ম্যাচ) ক্রিকেটে বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ পুরুষ ক্রিকেটার, যাঁর ব্যাট থেকে এল দ্বিশত রান। এর আগে এই রেকর্ড ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যালান বারোর। যিনি এই রেকর্ড করেছিলেন ২০ বছর, ২৭৩ দিনে। সেই ১৯৭৫ সালে। যশস্বীর ১৫৪ বলে ২০৩ রানের সৌজন্যে ৫০ ওভারে মুম্বাই তোলে তিন উইকেটে ৩৫৮। জবাবে ঝাড়খণ্ডের ইনিংস শেষ হয় ৩১৯ রানে।

এই নজির গড়ার পরে কী অনুভূতি? সংবাদসংস্থাকে যশস্বী বলেছেন, ‘ভাল লাগছে। কিন্তু আমাকে আরও পরিশ্রম করতে হবে। এটা সবে শুরু। আশা করব এই রকম ছন্দ পরের ম্যাচগুলোয় ধরে রাখতে পারব।’
উত্তরপ্রদেশের ভারোহির এক দোকানদারের ছোট ছেলে যশস্বী। সেখান থেকে ক্রিকেটকে বাঁচার অবলম্বন করে মুম্বাই চলে আসেন তিনি। বাবা আপত্তি করেননি, কারণ তাঁর পক্ষেও সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়ছিল দিনকে দিন। মুম্বাইয়ে আসার পরে যশস্বীর লড়াই মাঠের বাইশ গজ থেকে ছড়িয়ে পড়ে জীবনের বাইশ গজেও। মুম্বাইয়ে এসে কাকার বাড়িতে ছিলেন কিছু দিন। কিন্তু সেখানেও সমস্যা দেখা দেয়। এর পরে তিন বছরের জন্য যশস্বীর ঠিকানা হয়েছিল আজাদ ময়দানের একটি ক্লাব তাঁবু। সেখান থেকেই স্বপ্নের উত্থান।

চলতি মৌসুমে বিজয় হাজারে ট্রফিতে দুরন্ত ফর্মে আছেন যশস্বী।

বছর খানেক আগে ভারতীয় অনূর্ধ্ব ১৯ দলে সুযোগ পাওয়ার পরে যশস্বী বলেছিলেন, ‘‘রাম লীলা চলার সময় পানিপুরি বিক্রি করে বেশ লাভ হত। কিন্তু প্রার্থনা করতাম, আমার মাঠের সঙ্গীরা যেন ওখানে চলে না আসে। মাঝে মাঝে কেউ না কেউ ঠিক চলে আসত। তখন ওদের পানিপুরি বিক্রি করতে খারাপ লাগত।’

খারাপ লাগত রাতে একা, একা তাঁবুতে শুতেও। যশস্বীর কথায়, ‘আমার বাড়ির কথা, পরিবারের কথা খুব মনে পড়ত। তখন কান্না সামলাতে পারতাম না।’

যশস্বীর প্রশংসা আগেই শোনা গিয়েছিল মুম্বইয়ের অনূর্ধ্ব ১৯ দলের কোচ সতীশ সামন্তের কথায়। তিনি বলেছিলেন, ‘যশস্বী খুব ভাল করে বুঝে যেতে পারে বোলাররা কী ভাবছে। ওর আরও একটা গুণ পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলা।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সম্মেলন শুরু

স্টাফ রির্পোটার :  আজারবাইজানের বাকুতে অনুষ্ঠিত জোট নিরপেক্ষ সম্মেলন নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে ...

ফ্রান্সের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলীয় এক মসজিদে বন্দুক হামলা

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : ফ্রান্সের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলীয় এক মসজিদে বন্দুক হামলা হয়েছে। স্থানীয় ...