ব্রেকিং নিউজ
Home | আন্তর্জাতিক | রাহুল গান্ধীর পদত্যাগে বাধা

রাহুল গান্ধীর পদত্যাগে বাধা

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : বিজেপি জোটের কাছে ধরাশায়ী হওয়ার পর কংগ্রেস জোটে দেখা দিয়েছে চরম হতাশা। দল ও জোটের শোচনীয় পরাজয়ে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী দলীয় প্রধানের পদ থেকে পদত্যাগের ইচ্ছা পোষণ করেন।

কিন্তু তার সেই ইচ্ছাকে সরাসরি নাকচ করে দেন দলের সামনের সারির নেতারা।

শনিবার (২৫ মে) কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এই বৈঠকেই রাহুলের পদত্যাগের বিষয়টি নাকচ করে দেন নেতার।

এই বৈঠকে সোনিয়া গান্ধী, রাহুল, প্রিয়াংকা, মনমোহন সিংহসহ দলের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

রাজ্যে রাজ্যে কংগ্রেসের নেতাকর্মীদের মধ্যেও হতাশা পেয়ে বসেছে। দলের প্রতি অনাস্থা জানিয়ে অনেক প্রভাবশালী নেতা পদত্যাগও করেছেন।

এবারের লোকসভা নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলাফলে বিজেপি ৩০৩টি আসন পেয়েছে। যা এককভাবে সরকার গঠন করার মতো আসন (২৭২) থেকে অনেক বেশি। বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট পেয়েছে ৩৫১টি আসন।

অপরদিকে কংগ্রেস এককভাবে পেয়েছে মাত্র ৫২টি আসন। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট পেয়েছে মাত্র ৯২টি আসন।

কংগ্রেসের ‘প্রিয়াংকা চমক’, ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ কোনো অস্ত্রই বিজেপিকে ঘায়েল করতে পারেনি। উল্টো গোটা ভারতেই কংগ্রেস ধরাশায়ী হয়েছে। এমনকি দলের সভাপতি রাহুল গান্ধী পর্যন্ত আমেথিতে হেরেছেন।

হেরেছেন দলের শীর্ষনেতারাও। পরাজিতদের মধ্যে রয়েছেন কংগ্রেসের সাবেক আট মুখ্যমন্ত্রীও। কার দোষে কংগ্রেসের এমন পরাজয় সেসবের চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে। এবারের লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দল বিজেপিকে হারাতে একাট্টা হয়েছিল বিভিন্ন আঞ্চলিক দল, কংগ্রেস তো ছিলই।

বিশেষ করে ভোটের প্রচারে রাহুল গান্ধী, পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেসের নেত্রী মমতা ব্যানার্জি সঙ্গে মোদির কথার লড়াই বেশ জমে উঠেছিল। কিন্তু সব বাক্যবাণকে পেছনে ফেলে শেষতক মোদি ম্যাজিকেই বাজিমাত করেছে বিজেপি।

কংগ্রেস গতবারের তুলনায় আটটি আসন বেশি পেলেও নির্বাচনে ভরাডুবি আটকাতে পারেনি। ভারতের শতাব্দী প্রাচীন দলটি এবার ৫২ আসনে জিতেছে, গতবার তারা ৪৪ আসন পেয়েছিল। যা ছিল ভারতীয় উপমহাদেশের পুরনো এ দলের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে পরাজয়।

এবারের লোকসভা যুদ্ধে কংগ্রেসের সবচেয়ে বড় রণক্ষেত্র ছিল উত্তরপ্রদেশ। আর পদত্যাগের শুরুটাও হয়েছে সেখান থেকেই। হারের লজ্জা ঢাকতে পদত্যাগের এ তালিকা ক্রমেই বাড়ছে।

৮০ আসনের এ রাজ্যে কংগ্রেস দখলে রাখতে পেরেছে মাত্র একটি আসন। এক সময় উত্তরপ্রদেশে রাজত্ব করা কংগ্রেস টিমটিম করে জ্বলছে শুধু গান্ধী পরিবারের আরেক খাসতালুক সোনিয়া গান্ধীর আসন রায়বেরিলি। শুধু উত্তরপ্রদেশ নয়, কর্নাটক ও ওড়িশা থেকেও কার্যত মুছে গেছে কংগ্রেস।

ওড়িশার বিধানসভা বা লোকসভা, কোনো নির্বাচনেই দাগ কাটতে পারেনি তারা। সেই দায় মাথায় নিয়ে ইতিমধ্যেই পদত্যাগ করেছেন ওড়িশার কংগ্রেস সভাপতি নিরঞ্জন পট্টনায়ক। পদত্যাগ করেছেন কর্নাটকে দলের প্রচারের দায়িত্ব থাকা এইচকে পাটিলও।

২০১৯-এর ফাইনাল যুদ্ধে মোদি সরকারকে হারানোর শপথ নিয়েছিল কংগ্রেস। ২০১৮ সালের পাঁচ রাজ্যে সেমিফাইনাল যুদ্ধে সেই আভাসও তুলে ধরতে সমর্থ হয়েছিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী।

কিন্তু বিজেপিকে প্যাভিলিয়নে পাঠাতে গিয়ে ১৭ রাজ্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল কংগ্রেস। আন্দামান নিকোবরে একটি মাত্র লোকসভা কেন্দ্র। এই কেন্দ্র এবার বিজেপির দিকে ঢলে পড়েছে। অন্ধ্রপ্রদেশের ২৫টি লোকসভা আসন।

তার মধ্যে জগমোহন রেড্ডির ওয়াইএসআর কংগ্রেস পেয়েছে ২২টি আসন। তেলেগু দেশম পার্টির দখলে তিনটি আসন। কংগ্রেস শূন্য। অরুণাচল প্রদেশে মোট আসন দুটি। এ দুটি আসনই এবার দখল পেয়েছে বিজেপি।

কংগ্রেস এখানে খাতা খুলতে পারেনি। চণ্ডীগড়ে একটি আসনও গেছে বিজেপির দখলে। ফলে কংগ্রেস এবারও খাতা খুলতে পারেনি। দাদরা নগর হাভেলিতে একটি মাত্র আসন। এই আসনটিও বিজেপি দখল করল।

এখানেও শূন্য হাত কংগ্রেসের। দমন-দিউয়ের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলও এবার কংগ্রেসকে নিরাশ করল। একটি মাত্র কেন্দ্রে জয়ী হল কংগ্রেস। রাজধানী দিল্লি কংগ্রেসকে আরও একবার হতাশ করেছে। সাতটি আসনই জিতে ক্লিন সুইপ করেছে বিজেপি। কংগ্রেস বিগ জিরো।

মোদি-রাজ্য গুজরাটে এবারও কংগ্রেস শূন্য। হরিয়ানায় আবার ক্লিন সুইপ। ১০টি আসনেই কংগ্রেস ধূলিসাৎ। বিজেপি ১০ আসনেই জয়ী। হিমাচল প্রদেশের চারটি আসনে জয়ী হয়েছে বিজেপি।

জম্মু ও কাশ্মীরে কংগ্রেস এবার খাতা খুলতে পারেনি। ছয়টি আসনের মধ্যে বিজেপি তিনটি ও ন্যাশনাল কনফারেন্স তিনটি আসনে জয়ী হয়েছে। মণিপুরেও কংগ্রেস শূন্য। দুটির মধ্যে বিজেপি একটি, নাগা পিপলস পার্টি একটি। নাগাল্যান্ডে একটি মাত্র লোকসভা আসন।

সেখানেও এবার খাতা খুলতে ব্যর্থ কংগ্রেস। এনডিপিপি এই কেন্দ্রটি দখল করেছে। রাজস্থানে মোট ২৫টি আসন। রাজস্থানে কংগ্রেস ক্ষমতায় থাকা সত্ত্বেও একটি আসনও দখল করতে পারেনি দলটি। বিজেপি ২৪টি, রাষ্ট্রীয় লোকতান্ত্রিক পার্টি একটি আসন দখল করে। সিকিমে একটি মাত্র আসন।

এখানেও কংগ্রেস জয়ী হতে পারেনি। সিকিম ক্রান্তিকারী মোর্চা এই আসনটি দখল করেছে। ত্রিপুরায় দুটি আসনই এবার গেছে বিজেপির দখলে। উত্তরাখণ্ডে মোট পাঁচটি আসন। পাঁচটি আসনেই জয়ী হয়েছে বিজেপি।

এবার পশ্চিমবঙ্গের অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেস ২২টি আসনে জয়লাভ করেছে। এনডিএ জোটের দল শিবসেনা ১৮টি আসনে জিতেছে। গতবারও দলটির আসন সংখ্যা একই ছিল।

এছাড়া এবার এম করুণানিধি মুথুবেলের দল দ্রাবিড় মুন্নেত্রা কাজাগাম ২৩টি, যুবজন শ্রমিক রিথু কংগ্রেস পার্টি ২২টি, জনতা দল (ইউনাইটেড) ১৬টি, বিজু জনতা দল ১২টি, বহুজন সমাজ পার্টি ১০টি, তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতি ৯টি এবং লোক জন শক্তি পার্টি ছয়টি আসনে জয়লাভ করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

গণভবনে ঢুকতে পারেননি শেখ মারুফ

স্টাফ রির্পোটার : জাতীয় কংগ্রেসকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী ...

রুশ ভাষায় প্রকাশিত ‘বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ গ্রন্থের কপি প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর

স্টাফ রির্পোটার : রুশ ভাষায় অনূদিত ও প্রকাশিত ‘শেখ মুজিবুর রহমান অ্যান্ড ...