Home | আন্তর্জাতিক | রাজশাহীতে পুলিশ-শিবির সংঘর্ষে আহত ২৫, আটক ৭০

রাজশাহীতে পুলিশ-শিবির সংঘর্ষে আহত ২৫, আটক ৭০

স্টাফ রিপোর্টার, ১৯ মার্চ, বিডিটুডে ২৪ডটকম : রাজশাহীতে ১৮ দলীয় জোটের চলমান ৩৬ ঘণ্টার হরতাল বিক্ষিপ্ত পিকেটিং এর মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে।

নগরীর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি স্থানে হরতালের সমর্থনে বিএনপি ও শিবিরকর্মীরা পিকেটিং করেছে। এসময় পুলিশের সঙ্গে হরতাল সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশ কর্মকর্তাসহ ২৫ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সকাল থেকে পুলিশ নগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৭০ জনকে আটক করছে।

দুপুরের পর থেকে নগরীর জনজীবন স্বাভাবিক হতে শুরু করে। মহানগরীর সড়কে হালকা যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে। তবে কোনো ভারি যান চলাচল করেনি।

এদিকে দুপুরে নগরীর ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা কাজলা মোড়ে সড়কের ওপরে টায়ার জ্বালিয়ে পিকেটিং করেন। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদের লক্ষ্য করে টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এসময় ছাত্রদলের কর্মীরা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই এলকায় সাধারণ মানুষ চরম আতঙ্কিত হয়ে পড়ে ও আশেপাশের এলাকায় ফাঁকা হয়ে যায়। এ ঘটনার পরে আর কোথাও পিকেটিং করতে দেখা যায়নি।

এর আগে, সকাল ৭টায় শিবিরকর্মীরা বিনোদপুরসংলগ্ন মণ্ডলের মোড় থেকে হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের করার চেষ্টা করে। এতে পুলিশ বাধা দিলে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।

এসময় শিবিরকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। পুলিশও শিবিরকর্মীদের লক্ষ্য করে রাবার বুলেট ও শতাধিক রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। উভয় পক্ষের মধ্যে চলা আধাঘণ্টা স্থায়ী দফায় দফায় সংঘর্ষে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) মতিহার জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার আবুল হাসনাতসহ আহত হয় ১৫ জন।

এ ঘটনার পরপরই ঘটনাস্থলে পুলিশি অভিযানে আটক করে ৭০ জনকে। পরে তাদের থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

আরএমপির পূর্ব জোনের উপকমিশনার (ডিসি) তানভীর হায়দার চৌধুরী শিবির সন্দেহে ৭০ জনকে আটকের কথা স্বীকার করেন। আটককৃতদের মতিহার থানায় নিয়ে বর্তমানে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এদিকে সংঘর্ষের পরপরই রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার এসএম মনির-উজ-জামান জানান, বিনোদপুরে শিবিরকর্মীরা নাশকতার উদ্দেশ্যে পুলিশকে লক্ষ্য করে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এসময় ককটেলের আঘাতে ওসি হাসনাতসহ তিন পুলিশ সদস্য আহত হন।

সকাল সাড়ে ৭টায় বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্মমহাসচিব ও রাজশাহী মহানগর সভাপতি মিজানুর রহমান মিনু এবং সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলনের নেতৃত্বে মহানগরীর কাদিরগঞ্জ এলাকা থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়।

মিছিলটি মালোপাড়া দলীয় কার্যালয়ের সামনে পৌঁছালে পুলিশ বাধা দেয়। এসময় বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে মিছিলের চেষ্টা করে এবং পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। জবাবে পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে সবাইকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

পরে বিএপির নেতাকর্মীরা মালোপাড়ায় মহানগর বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে অবস্থান নেয়। বর্তমানে মিজানুর রহমান মিনুসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা সেখানেই দুপুর ২টা পর্যন্ত অবস্থান করেন।

এদিকে, মিজানুর রহমান মিনু ও অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন দাবি করে বলেন, পুলিশের রাবার বুলেটের আঘাতে দলের কেন্দ্রীয় সদস্য কাজী হেনাসহ তাদের অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা না হলেও প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

x

Check Also

অবশেষে পর্তুগালের লিসবনে মোহাম্মদ হান্নানের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান, পর্তুগালঃ বাংলাদেশের কেরানীগঞ্জের মোহাম্মদ হান্নানের ...

পর্তুগাল মাল্টি কালচারাল একাডেমি’র হলরুমে বর্নিল আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম, ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান,পর্তুগালঃ পর্তুগালের লিসবনে বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকা রুয়া ...