Home | শিল্প সাহিত্য | ফিচার | যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘুর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করতে হবে

যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘুর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করতে হবে

Advocate Shahanur Islamঅ্যাডভোকেট শাহানূর ইসলাম সৈকত :

যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু সম্প্রদায় অর্থাৎ লেজবিয়ান,গে,বাইসেক্সুয়াল এবং ট্রানজেণ্ডার ব্যক্তি (সমকামী) সমাজের আর দশজন ব্যক্তির চেয়ে আলাদা কেউ নয়।যদিও বিশ্বের অধিকাংশ সমাজে তাদের সবসময় আলাদা করে নিচু দৃষ্টিতে দেখা হয়ে থাকে। ফলে তাদের সমাজে গ্রহণযোগ্যতা,সমমর্যাদা ও আইনের দৃষ্টিতে সমতা প্রতিষ্টার জন্য প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করতে হচ্ছে।কিন্তু প্রকৃতপক্ষে আমরা তাদের সম্পর্কে কতটা জানি?

 

যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তি সমাজের অন্যান্য মানুষের মানুষের মত স্বাভাবিকভাবে জীবন যাপন করে থাকে।তাদের জীবনেও রয়েছে স্বপ্ন, আর বেঁচে থাকার লক্ষ্য; রয়েছে জীবনে সুখি হওয়ার বাসনা। আমরা যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তিদের সংগে যত বেশী অন্তরঙ্গ মুহূর্ত অতিবাহিত করব এবং তাদেরকে জানার চেষ্টা করব ততই অনুভব করতে পারব যে তারা আমাদের মতই সাধারণ মানুষ।

 

যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তির আমাদের মত নানা প্রকৃতির পেশাকে অবলম্বন করে জীবন যাপন করে থাকে। সকল গে ব্যক্তি যে রান্না করতে জানে বা টাইট পোশাক পরিধান করে অথবা বাজার করতে বা গান গাইতে পছন্দ করে তা কিন্তু নয়।তেমনি সমল লেসবিয়ান ব্যক্তি ছোট চুল রাখতে অথবা পুরুষের পোষাক পড়ে একজন পুরুষের মত আচরণ করে তাও কিন্তু নয়।

 

অন্যকে ভালবাসা বা যত্ন নেওয়ার বিষয়টি যে শুধুমাত্র যৌনপ্রবৃত্তির সাথে সংশ্লিষ্ট তা কিন্তু নয়। অতীব দূঃখের বিষয় ভালবাসার ক্ষেত্রে লিঙ্গ পরিচয় যে কোন বিবেচ্য বিষয় নয়, তা আমাদের সমাজে এখনো প্রতিষ্ঠা পায়নি। সমাজের অন্যান্য মানুষের মত পারস্পারিক আকর্ষন বোধ, ভালবাসা, সম্মান ও বিশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তির মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

 

কোন ব্যক্তি কাকে ভালবাসছে সে ব্যপারে মাথা ঘামানো আমাদের যে কাজ নয় তা আমাদের বুঝতে হবে।ভালবাসা প্রত্যেক ব্যক্তির সম্পূর্ন নিজস্ব ব্যক্তিগত ব্যপার এবং তা অন্যের দৈনন্দিন জীবনকে কোন ভাবেই ব্যহত করে না।তাছাড়া পৃথকভাবে বসবাসরত অন্যের জীবণ যাপন প্রনালী খুব কমই আপনার জীবন যাপন প্রনালীকে প্রভাবিত করতে পারে। আমরা যদি না চাই তবে যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তি কখনো আমাদের সাথে জোরপূর্বক সম্পর্কে জড়ানোর চেষ্টা করে না।

 

আমাদের মনে রাখতে হবে যে যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তি ইচ্ছাকৃতভাবে সমকামী হয় না। স্ট্রেইট ব্যক্তিরা যেমন বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকর্ষন বোধ করে, যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তি চাইলেই সেভাবে নিজেদের স্ট্রেইট হিসেবে গড়ে তুলতে পারে না।

 

সমাজে অন্য দশজন ব্যক্তির সাথে একত্রে বসবাসের জন্য আমাদের অবশ্য সংস্কারমুক্ত খোলা মনে অধিকারী হওয়া উচিত। সকল ব্যক্তি আমাকে সেক্সুয়ালী আকর্ষন করবে বা করে তা ভেবে নেওয়া ঠিক নয়। আমি যদি একজন মেয়ে মানুষ হই তবে কি আমি ভেবে নিব যে সকল পুরুষ মানুষই আমাকে সেক্সুয়ালী পেতে চায়, যেহেতু তারা মেয়ে মানুষ পছন্দ করে?

 

যদি আমরা তা মনে করি তবে সেটা অত্যন্ত হাস্যকর হবে এবং এটা সকল ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। কোন ব্যক্তি লিঙ্গগত কারণে আকর্ষন বোধ করলে যে সে তার প্রতি সেক্সুয়ালী আগ্রহী তা কিন্তু নয়। একজন ভিন্ন যৌন প্রবৃত্তিসম্পন্ন ব্যক্তি অর্থাৎ সমকামী ব্যক্তির সাথে বন্ধুত্ব করা এবং বিপরীত লিঙ্গের সাথে বন্ধুত্ব করার মাঝে কোন পার্থক্য নেই।

 

যদি আমাদের এ বিষয়ে মতভেদ থেকে থাকে তবুও আমাদের যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তিদের অপমান করা উচিত নয়। বরং শান্তভাবে বিষয়টি বিবেচনা করে সম লিঙ্গের বিবাহসহ সমকামিতা সম্পর্কিত বিষয়গুলোর বিপরিতে মতামত প্রদান্সহ সকল প্রকার সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার আমাদের আছে। কিন্ত যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু (সমকামী) ব্যক্তির প্রতি কোনভাবেই বৈষম্য বা তাদের নির্যাতন করার অধিকার আমাদের নেই।তাই এখনি  যৌন প্রবৃত্তিগত সংখ্যালঘু ব্যক্তির প্রতি  আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি ধ্বনাত্বকভাবে পরিবর্তন করতে হবে।

 

লেখক:মানবাধিকারকর্মী ও আইনজীবী; জাস্টিসমেকার্স ফেলো, সুইজারল্যান্ড; একটি শিশুকেন্দ্রিক আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থায় কর্মরত; মোবাইল: ০১৭২০৩০৮০৮০; ই-মেইল: saikotbihr@gmail.com; ব্লগ:www.shahanur.blogspot.com

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

পর্যটন কেন্দ্র হতে যাছে পীরগঞ্জের নীল দরিয়া

এম এ রহিম, পীরগঞ্জ (রংপুর) : রংপুরের পীরগঞ্জের চতরা ইউনিয়নের নীল দরিয়া। ...

কেন আইনজীবী সুরক্ষা আইন প্রয়োজন

কাজী হেলাল উদ্দিন: আমরা গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করেছি যে, আইনজীবীর উপর আক্রমণ, ...