ব্রেকিং নিউজ
Home | ফটো সংবাদ | মাঠে নেই জামায়াত, প্রেস রিলিজেই কর্মসূচি

মাঠে নেই জামায়াত, প্রেস রিলিজেই কর্মসূচি

jamat-logo-2(33)স্টাফ রিপোর্টার : সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী আগামী জানুয়ারিতে নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে ।শাসক দল আওয়ামী লীগ এবং প্রধান বিরোধী দল বিএনপি নানা কায়দায় নির্বাচনী প্রচার চালালেও ১৮ দলের অন্যতম শরিক জামায়াত এখনো পর্দার অন্তরালেই রয়ে গেছে। তাদেরকে প্রকাশ্যে দেখা যাচ্ছে না। মাঝে মাঝে বিভিন্ন ইস্যুতে কর্মসূচি ঘোষণা করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে। কর্মসূচি ঘোষণা করে মাঠেও থাকেন না নেতারা। মাঠে না থাকলেও মাঝে মাঝে চোরাগুপ্তা হামলা করে অস্তিত্ব জানান দেয় দলটি। যোগাযোগ করার জন্য জামায়াতের কোনো পর্য়ায়ের নেতাকর্মীকেই পাওয়া যায় না।
দীর্ঘদিন ধরে নেতাকর্মী শূন্য হয়ে পড়ে আছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় অফিস। মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে শীর্ষ নেতারা আটক হওয়ার পর থেকেই মূলত এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, একাত্তরে পকিস্তানের পক্ষে অবস্থান নেয়ার জন্য বিতর্কিত এ রাজনৈতিক দলটির কোন নেতাকর্মী এখন আর দলীয় কার্যালয়ে যান না। দলটির মগবাজারস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গিয়ে দায়িত্বে থাকা সিকিউরিটি গার্ড ছাড়া কাউকেই পাওয়া যায়নি সেখানে। অফিসের এক দরোয়ান জানান, নেতাকর্মীরা এখানে আসবেন কি করে, এই অফিসের আশেপাশে তো ডিবি পুলিশ গিজগিজ করে। দারোয়ান মোহাম্মদ আলী বলেন, শীর্ষ নেতারা আটক হওয়ার পর কোন নেতাকর্মীকে এখানে আসতে দেখিনি এবং কে কোথায় থাকে তাও জানি না।
কেন্দ্রীয় নেতাদের সম্পর্কে জানতে চাইলে দারোয়ান বলেন, নেতাকর্মীদের আটকের সময় পুলিশ অফিসের সকল কাগজপত্র, কম্পিউটার, বইসহ সকল কিছু নিয়ে গেছে এবং যাওয়ার সময় অফিসের সামনে থাকা ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা গুলোও ভেঙ্গে দিয়ে গেছে।
মোহাম্মদ আলী আরো বলেন, বর্তমানে কে কোন দায়িত্বে আছেন তা আমার ভালো ভাবে জানা নেই । অফিস ভাড়া ও স্টাফদের বেতন কিভাবে আসে জানাতে চাইলে তিনি বলেন শুনেছি ট্রাস্টের সম্পদ আর আমাদের বেতন সেকান্দর নামের একজন পিয়ন মাসের যেকোন সময় এসে দিয়ে যায়।
মুক্তিযুদ্ধের সময় যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে দলটির শীর্ষ ১০ নেতা কারাগারে বন্দি রয়েছেন। অধ্যাপক গোলাম আযম, মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, মাওলানা আবদুস সোবহান, মুহম্মদ কামারুজ্জামান, আবদুল কাদের মোল্লা, এটিএম আজহারুল ইসলাম, মীর কাসেম আলী ও মাওলানা ইউসুফের বিচার চলছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে।
এরই মধ্যে মাওলানা সাঈদী, কামারুজ্জামান, আবদুল কাদের মোল্লা ও মুজাহিদকে মৃত্যুদণ্ড ও অধ্যাপক গোলাম আযমকে ৯০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এছাড়াও জামায়াত শিবিরের শত শত নেতাকর্মী এখনও কারাগারে বন্দি। ফাঁসির দণ্ডাদেশ পেয়েছেন সাবেক জামায়াত নেতা আবুল কালাম আযাদ ওরফে বাচ্চু রাজাকার।
দলটি বিভিন্ন সময়ে অভিযোগ করছে, জামায়াতে ইসলামীকে নিশ্চিহ্ন করতে ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত চলছে। গ্রেপ্তারের ভয়ে পলাতক অবস্থা থেকে প্রায় প্রতিদিনই ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান বিভিন্ন বিষয়ে বক্তব্য ও বিবৃতি দিয়ে দলের কর্মসূচি ঘোষণা করছেন। ওয়েবসাইট, ই-মেইল এবং এসএমএস তাদের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চালানোর প্রধান মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য ডা. আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
তবে জামায়াতের প্রধান শরিক দল বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিল সদস্য শামসুজ্জামান ‍দুদু  বলেন, জামায়াত এখনো দেশে বৈধ দল । তাদের রাজনীতি করার অধিকার আছে । কিন্তু সরকার তাদের মাঠেই নামতে দিচ্ছে না। তাই তারা হয়তো এরকম কর্মসূচি ঘোষণা করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

টি-১০ ক্রিকেট লিগে অংশ নিতে দুবাইয়ে সাকিব-তামিম-মোস্তাফিজ

স্পোর্টস ডেস্ক :  বিপিএল শেষ। আপাতত জাতীয় দলেরও কোনও ব্যস্ততা নেই। এই ...

সৌদি যুবরাজকে ইসরায়েল সফরের আমন্ত্রণ

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক:  সৌদি যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানকে ইহুদিবাদী ইসরায়েল সফরের আমন্ত্রণ জানানো ...