ব্রেকিং নিউজ
Home | আন্তর্জাতিক | ভারতে আসন্ন নির্বাচনে ব্যাপক রক্তক্ষয়ের আশংকা

ভারতে আসন্ন নির্বাচনে ব্যাপক রক্তক্ষয়ের আশংকা

modiরন্যাশনাল ডেস্ক:   এক প্রজন্মের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনী প্রচার শুরু হয়ে গেছে ভারতে। আগামী বছরের শুরুতেই পৃথিবীর সবচেয়ে বহৎ এই গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে লোকসভা নির্বাচন হতে যাচ্ছে।

 

তবে এ বারের নির্বাচনী প্রচার কাজ শুরু হলো ভয়াবহ একটি দাঙ্গার অভিজ্ঞতা এবং গুজরাট দাঙ্গার গুরু হিসাবে পরিচিত নরেন্দ্র মোদিকে বিজেপির প্রধামন্ত্রী প্রার্থী ঘোষণার নতুন অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে।

 

‘ভয়াল দাঙ্গার মধ্যদিয়ে ভারতে প্রধানমন্ত্রীর জন্য প্রচার শুরু হলো‘ শীরোনামে নিউইয়র্ক  টাইমসের মঙ্গলবারের প্রতিবেদনে এই আশংকার কথা বলা হয়েছে।

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নরেন্দ্র মোদি হচ্ছেন এমন এক ব্যক্তি যিনি চরম মুসলিম বিরোধী হিসাবে পরিচিত।

 

গুজরাটের ব্যাপক উন্নয়নের বার্তা দিয়ে বিজেপি তাকে প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী ঘোষণা দেয় গত সপ্তাহে।

 

ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে বিভেদ সৃষ্টিকারী নেতা হিসাবে তিনি পরিচিত।

 

চরম হিন্দু জাতিয়তাবাদী ও গুজরাটে গণহত্যার দায় কাঁধে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হওয়ার আগে কারো কাছে তিনি ক্ষমা পর্যন্ত প্রার্থনাও করেন নি।

 

সমালোচকরা বলছেন, হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে অতীত দাঙ্গার সুফল মোদি পেয়েছে। আগামী নির্বাচনেও সেই লাইনে ভোট পাওয়ার আশায় তাকে সামনে নিয়ে আসা হলো।

 

মোদিকে এমন এক সময় প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী ঘোষণা দেয়া হলো যখন ভারতের সবচেয়ে জনবহুল রাজ্য উত্তর প্রদেশে ভয়াবহ একটি দাঙ্গার নির্মম অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করলো ভারতবাসী।

 

মোদির দলের এক নেতা ভুয়া একটি ভিডিও বাজারে ছেড়ে উত্তর প্রদেশের মুজাফফরাবাদনগরে দাঙ্গাকে উস্কে দেয়। ঐ ভিডিওতে দেখানো হয় যে, একদল মুসলমান দুজন হিন্দুকে ধরে মারধর করছে।

 

এর পরই দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ে, জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয় শত শত মুসলমানের বাড়িঘর। ঐ ঘটনায় ৪২ জনের বেশি লোক নিহত এবং বহু আহত হয়। আশ্রয়হীন হয়ে পড়ে ৪২ হাজার মানুষ।

 

দাঙ্গার নির্মম অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে বাওয়ারি এলাকার রিয়াজত আলী নামের এক ব্যক্তি বলেন, ঘরের একটি গোপন জায়গা থেকে হিন্দু দাঙ্গাকারীদের হামলা চালানোর দৃশ্য অবলোকন করছিলাম।

 

তিনি নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিনিধিকে বলেন, হামলাকারীরা তাদের ঘর ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে তার ভাইকে গলা কেটে হত্যা করে এবং তার ১৮ বছর বয়সী ভাতিজিকে গুলি করে হত্যা করে।

 

গত এক সপ্তাহ ধরে কান্দল এলাকায় অস্থায়ী আশ্রয় কেন্দ্রে বসবাস করছেন মি. আলী। তিনি বলেন, সবকিছু আমি দেখেছি। আমি দেখেছি, আমাদের ঘর লক্ষ্য করে ওরা বৃষ্টির মতো গুলি ছুঁড়েছে।

 

রিপোর্টে বলা হয়েছে, ভারত বিশ্বের সবচেয়ে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হতে পারে কিন্তু নির্বাচনকে ঘিরে ব্যাপক হানাহানি ও রক্তপাতের নির্মম সব ঘটনাও ঘটে।

 

ভারতের মোট জনসংখ্যার ৮০ ভাগ হচ্ছে হিন্দু এবং ১৩ ভাগ হচেছ মুসলমান। ভারতে মুসলমানদের এই সংখ্যা যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ জনগোষ্ঠীর প্রায় সমান।

 

নির্বাচনকে সামনে রেখে সংঘাত আরও বৃদ্ধির ইঙ্গিত দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। ভরতের শহরাঞ্চলে তরুণদের মধ্যে নরেন্দ্র মোদির একটা রক স্টার আবেদন রয়েছে। ভারতের অর্ধেক জনগোষ্ঠীর বয়সই ২৫ বছরের নিচে। অবশ্য ভারতের বিপুল সংখ্যক হিন্দু জনগোষ্ঠীর মধ্যে একটা মোদি ক্রেজ রয়েছে।

 

২০০২ সালে গুজরাটের মূখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেয়ার কয়েক মাসের মধ্যেই সেখানে ব্যাপক সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাধে। তাতে সহস্রাধিক লোক নিহত হয়।

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছে, ঐ দাঙ্গার মূল হোত ছিলেন মূখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যদিও তিনি তা অস্বীকার করেছেন। সেই মোদির মধ্যে আজো কোনো পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

 

মোদির রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হিসাবে পরিচিত জয় নারায়ন বলেছেন, ২০০২ সালের দাঙ্গার জন্য মোদিকে দায়ী করা হচ্ছে না।

 

কেননা তার দল মুসলমানদের হিসাবের মধ্যেই নিচ্ছে না। তিনি বলেন, মোদি প্রধানমন্ত্রী হলে ভারতকে উন্নয়ন হয়তো দিতে পারবেন কিন্তু ভারতে রাজনৈতি বিশৃঙ্খলা বৃদ্ধি পাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

‘গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশন ইন স্পেন’ নির্বাচনে মুজাক্কির – সেলিম প্যানেল বিজয়ী

জিয়াউল হক জুমন, স্পেন প্রতিনিধিঃ সিলেট বিভাগের চারটি জেলা নিয়ে গঠিত গ্রেটার ...

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান, পর্তুগালঃ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার ...