ব্রেকিং নিউজ
Home | জাতীয় | ভারতের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন রাষ্ট্রপতি

ভারতের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন রাষ্ট্রপতি

স্টাফ রিপোর্টার : ইন্টারন্যাশনাল সোলার এলায়েন্সের (আইএসএ) সম্মেলনে যোগ দিতে চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ভারতের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে আসামের রাজধানী গুয়াহাটির উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়েন রাষ্ট্রপতি।

বিমানবন্দরে রাষ্ট্রপতিকে বিদায় জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী। ডিপ্লোম্যাটিক কোরের ডিন ও তিন বাহিনীর প্রধানসহ সরকারের পদস্থ কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সফরে তিনি ভারতের রাজধানী নয়া দিল্লিতে ১১ মার্চ অনুষ্ঠেয় সৌর বিদ্যুৎ সম্পর্কিত জোট ইন্টারন্যাশনাল সোলার অ্যালায়েন্সের (আইএসএ) সম্মেলনে যোগ দেবেন।

এই সম্মেলনে বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, শ্রীলঙ্কা ও ফ্রান্সসহ ২৩টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান বা সরকার প্রধান এবং ৯টি দেশের মন্ত্রী পর্যায়ের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করবেন।

বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনওয়াল ও রাজ্যপাল জগদীশ মুখী সাক্ষাৎ করবেন। পরে আসামের রাজ্যপালের দেওয়া নৈশভোজে অংশ নেবেন রাষ্ট্রপতি।

১০ মার্চ আবদুল হামিদ নয়া দিল্লি গিয়ে ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের নৈশভোজে অংশ নেবেন।

১১ মার্চ আইএসএর সম্মেলনের প্লেনারি সেশনে বক্তব্য দেবেন আবদুল হামিদ। একই দিন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দেওয়া মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেবেন রাষ্ট্রপতি।

সফরে ভারত ছাড়াও ফ্রান্স ও শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে রাষ্ট্রপতির।

ভারতের নয়া দিল্লিতে অনুষ্ঠেয় আইএসএ সম্মেলনে বিশ্বের ১২১টি দেশ অংশ নেবে। নয়া দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবন কালচারাল সেন্টারে (আরবিসিসি) ওই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর চাপ কমাতে সৌর শক্তির ব্যবহার বাড়াতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং ফ্রান্সের সাবেক প্রেসিডেন্ট ফ্রঁসোয়া অলন্দের উদ্যোগে ২০১৫ সালে আইএসএ’র কার্যক্রম শুরু হয়।

আইএসএ সম্মেলনে যোগ দেওয়ার আগে আসাম ও মেঘালয়ে যাবেন আবদুল  হামিদ। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় অবস্থানকালীন বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করবেন তিনি। মুক্তিযুদ্ধে স্মৃতি বিজড়িত স্থান পরিদর্শন করে ওই দিন শিলংয়ে রাজ্যপালের বাসভবন ‘রাজভবনে’ থাকবেন এবং রাজ্যপাল গঙ্গা প্রাসাদের নৈশভোজে অংশ নেবেন তিনি।

আবদুল হামিদ ১৯৭১ সালে মেঘালয়ের বালাটে মুক্তিযোদ্ধাদের ট্রেনিং ক্যাম্পে সাব সেক্টর কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

মেঘালয় থেকে আসামের গুয়াহাটি হয়ে দিল্লি যাবেন রাষ্ট্রপতি।

আইএসএ সম্মেলন শেষে ১২ মার্চ তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বাগাতিপাড়ায় প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি : নাটোরের বাগাতিপাড়ায় এক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ...

লালমনিরহাটে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : লালমনিরহাট পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের জুম্মাপাড়া এলাকায় ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পক্ষ ...