ব্রেকিং নিউজ
Home | অর্থনীতি | ব্যবসা ও বাণিজ্য | বেনাপোলে সন্ত্রাসীদের বোমা-গূলী ও কোপের আঘাতে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৫ জন গুলীবিদ্ধ : আসামী হিসাবে সন্দেহের তীর মেয়রের দিকে বেনাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

বেনাপোলে সন্ত্রাসীদের বোমা-গূলী ও কোপের আঘাতে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৫ জন গুলীবিদ্ধ : আসামী হিসাবে সন্দেহের তীর মেয়রের দিকে বেনাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

Pic 25.02.2014ইয়ানুর রহমান : বেনাপোলে সন্ত্রাসীদের বোমা, গূলী ও কোপের আঘাতে সোমবার রাতে লক্ষণপুর ইউপি চেয়ারম্যান, ২ আওয়ামীলীগ নেতা এবং ২ পথচারী গুলীবিদ্ধ হওয়ায় প্রতিবাদে রাত থেকেই “সন্ত্রাসীদের কালো হাত ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও” “মেয়রের কালো হাত ভেঙ্গে দাও ড়িয়ে দাও” এ ¯েøাগান নিয়ে দফায় দফায় মিছিল চলছে বন্দর নগরী বেনাপোল সহ সমগ্র উপজেলা ব্যাপী। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে হঠাৎ বিদ্যুত বন্ধ হয়ে যায়। পরক্ষণেই পরপর তিনটি বোমের আওয়াজে বেনাপোল প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। এর পরেই গুলীর আওয়াজ। আসন্ন শার্শা উপজেলা নির্বাচনকে সামনে রেখে এমপি সমর্থিত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মঞ্জু’র সমর্থক লক্ষণপুুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান কামাল ভুইয়াসহ বাহাদুরপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আশানূর রহমান আশাকে হত্যা করার জন্য অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল মান্নান মিন্নু সমর্থক বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটন তার পৌষ্য আকুল বাহিনীর সদস্যদের দিয়ে এ নারকীয় হত্যাযোগ্যের মিশন করায়। এ সময় তাদের সাথে থাকা যুবলীগ নেতা নজরুলও কোপের হাত থেকে বাদ যায়নি। “কথায় বলে দূর্বলের পা খানায় পড়ে” নিয়তির নির্মম পরিহাস, এ সময় বন্দরের কার্যক্রম সেরে বাড়ি যাচ্ছিল অসহায় বন্দর শ্রমিক শাহাদত। হঠাৎ আততায়ীদের গুলী তার শরীর ভেদ করে।অপরদিকে পাশ দিয়ে যাওয়া ভ্যান চালক শহিদুল ইসলামও গুলীবিদ্ধ হয়।  সাথে সাথে স্থানীয় জনতা ও পুলিশ সদস্যরা এসে তাদেরকে চিকিৎসার জন্য যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।মুহুর্তের মধ্যে বন্দর নগরী বেনাপোল মিছিলে মিছিলে ভরে যায়। আওয়াজ তোলে “সন্ত্রাসীদের কালো হাত ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও” “মেয়রের কালো হাত ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও” আক’লের কালো হাত ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও”।স্থানীয়রা আরো জানান, বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটনের লালিত পোর্ট থানার ২নং ঘিবা গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে আকুল ও মুকুল স্ব-শরীরে নেতৃত্ব দেন এ হত্যাযোগ্যের মিশনের। গুলী বোমা ও কোপানোর কাজ করে ভবার বেড় গ্রামের করিম মন্ডলের ছেলে মন্ডল(২৯), জমির হোসেনের ছেলে টুটুল(২৪), হাতকাটা তোতার ছেলে উজ্জল(২৩), আব্দুল জলিলের ছেলে টিটু(২৬), কাগজ পকুর গ্রামের ফটকা মোসলেমের ছেলে সাইফল­াহ(৩৪), পাটবাড়ি এলাকার নজরুলের ছেলে শফিকুল(৩০), বেনাপোল গ্রামের আলহাজ্ব ছাফের আলী মোড়লের ছেলে ইবাদুল ইসলাম(৩৮)। এদিকে, সোমবার রাতে এ সকল দূর্বৃত্তদের গুলীতে বেনাপোল স্থলবন্দরের শ্রমিক শাহাদত গুলিবিদ্ধ হওয়ায় মঙ্গলবার সকালে বেনাপোল বন্দরের সকল কায্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে বিক্ষুব্ধ শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা। বিচারের দাবিতে সকাল ১০ টায় বেনাপোল বন্দর এলাকায় মিছিল সহকারে তারা চেকপোস্টে গিয়ে আমদানি বানিজ্যের প্রধান গেট বন্ধ করে দেয়। একই সাথে শ্রমিকরা কাজ না করায় বন্দর অভ্যন্তরের লোড-আনলোড বন্ধ হয়ে যায়। ফলে, আমদানি পণ্য পরিবহনের জন্য রাস্তার উপরে দাড়িয়ে থাকে শতশত পণ্যবাহী ট্রাক।এলাকাবাসিরা জানায়, সোমবার রাতে দুর্বৃত্বরা লক্ষণপুর ইউপি চেয়ারম্যান কামাল ভুইয়া, বাহাদুরপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আশাণূর রহমান আশা ও যুবলীগ নেতা নজরুলকে এলাপাতাড়ী কুপিয়ে ও গুলী করে জখম করে। এ সময় এ পথ দিয়ে হেটে যাওয়া বন্দর শ্রমিক শাহাদত এবং পথচারি শহিদুল ইসলাম গুলীবিদ্ধ হয়। এ বিষয়ে বেনাপোল বন্দর হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের (৮৯১) সভাপতি মোঃ কলিম উদ্দিন মোল­া কলি বলেন, দুর্বৃত্তরা আমাদের শ্রমিককে গুলিবিদ্ধ করেছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। আমরা ন্যায্য বিচারের দাবীতে বেনাপোল বন্দর বন্ধ রেখেছি। যতোক্ষণ পর্যন্ত ন্যায্য বিচার না পাব ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অভ্যাহত থাকবে।  বেনাপোল কাষ্টমস কার্গো সুপার খায়রুল আলম বলেন, মঙ্গলবার সকালে শ্রমিকরা মেইন গেট বন্ধ করে দেওয়ায় আমদানি রফতানি বানিজ্য বন্ধ হয়ে গেছে। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এছাড়া ২ পথচারিসহ ৩ নেতাকে কুপিয়ে ও গুলী করে হত্যার চেষ্টাকে ধিক্কার জানিয়ে  মঙ্গলবার বিকালে বেনাপোল পৌর শহরে মিছিল করে এলাকাবাসি। শার্শা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ওহিদুজ্জামান ওহিদের নেতৃত্বে এসময় তারা আওয়াজ তোলে “সন্ত্রাসীদের কালো হাত ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও” “মেয়রের কালো হাত ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও” আকুলের কালো হাত ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও” সন্ত্রাসী লিটনের বেনাপোলে ঠাই নাই ঠাই নাই। এ সময় তারা এ নারকীয় ঘঁটনায় উপরোলি­ক্ষিত এসকল সন্ত্রাসীদের নাম বলেন।এ বিষয়ে বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মোসাররফ হোসেন বলেন-এ বিষয়ে এখনো কোন মামলা পাওয়া যায়নি। খুলনা ডিআইজি ও যশোর এসপির সার্কেল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। চেয়ারম্যান কামাল সুস্থ্য হলে তিনি যদি কাউকে চিনতে পারেন তাহলে সন্ত্রাসীদের উপযুক্ত স্বাস্তি দেওয়া হবে।অপরদিকে, এ হত্য মিশন ঘটানোর প্রতিবাদে শার্শার গ্রামে গঞ্জে দিনভর বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে শার্শার বাগআঁচড়া বাজারে চেয়ারম্যান বকুলের নেতৃত্বে এক বিক্ষোভ মিছিল বাগআঁচড়া বাজার প্রদিক্ষণ করে। মিছিল শেষে স্কুল গেটে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবাদ সমাবেশে হত্যর মিশনের নীল নকশাকারী মেয়র লিটন সহ সকল সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার পূর্বক শাস্তি মূলক ব্যসন্থা প্রহণের দাবি জানান বক্তারা। বিকালে শার্শা সদরে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি কাওসার আলীর নেতৃত্বে অনুরূপ বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এসময় নাভারণে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মুরাদ হোসেনের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সন্ধায় শার্শার উলাশী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ আয়নাল হকের নেতৃত্বে উলাশী বাজারে এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। দুপুরে শার্শার লক্ষণপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক জালাল হোসেনের নেতৃত্বে হাজার হাজার নারী ও পুরুষের সমন্ময়ে এক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে বক্তারা ৩দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে। ৩দিনের মধ্যে চেয়ারম্যান কামাল হোসেন সহ ৫ নেতাকর্মীকে হত্যার পরিকল্পনাকারী ও দুর্বৃত্বদের আটক না করলে বড় ধরনের কর্মসূচী দেওয়া হবে বলে জানান।#

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

টানা ৮ দিনের ছুটিতে ভোমরা স্থলবন্দর

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাপ্তাহিক সরকারি ছুটি ও পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে টানা ...

১ বছর পর হিলি দিয়ে মরিচ আমদানি শুরু

হিলি প্রতিনিধি : দেশে উৎপাদিত কাঁচা মরিচের সরবরাহ কমে যাওয়ায় এবং খোলা ...