ব্রেকিং নিউজ
Home | টিপস | বিয়ে ভাঙার সাতটি কারন

বিয়ে ভাঙার সাতটি কারন

খুব শিগগিরই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চান? জেনে নিন কিছু ভুল। এগুলো না করলে আপনার উপর কোনো প্রভাবই পড়বে না। কিন্তু করলে মারাত্নক ক্ষতি হবে। এমনকি ছোটখাটো একটা ভুলেই ভেঙ্গে যাবে বিয়েও। জীবনে সুখী হতে চাইলে তাই ভুলগুলো এড়িয়ে চলার কোনো বিকল্প নেই।
জেনে নিন বিয়ে ভাঙ্গার ৭ ভুল:

এক. অপমানজনক কথা বলা থেকে বিরত থাকুন:
বিয়ের আগে কোনো বিষয়ে একমত হতে না পারলেও প্রিয় মানুষটিকে কখনই রাগাবেন না। এমনকি কোনো অপমানজনক কথাও বলবেন না। এতে সম্পর্ক সহজেই ভেঙ্গে যায়। বিয়ের পরও এ ধারা অব্যাহত রাখুন। যদি কখনও প্রিয় মানুষটি অপমানজনক কথা বলেও, তাকে ক্ষমা করে দিন। কারণ পরে অবশ্যই তিনি তার ভুল বুঝতে পারবেন।

দুই. আবর্জনা বাইরে ফেলুন:
খুব ছোটখাটো সমস্যার কারণেও বিয়ে ভেঙ্গে যেতে পারে। প্রতিদিন সকালে ময়লার বস্তাটি আপনার সঙ্গী ফেলবে এমনটি নয়। চাইলে তাকে একটু সাহায্য করতে পারেন। প্রতিদিন যদি ময়লার বস্তাটি দরজার বাইরে রাখেন তাহলে তার কাজটি করতে অসুবিধা হবে না। ছোট এই সাহায্যটুকুই কিন্তু পরিবারিক জীবনকে অনেক সুন্দর ও সহজ করে।

তিন. প্রেমের ভান থেকে বিরত থাকুন:
বিয়ে মানে এই নয়, সঙ্গীর সাথে আপনি প্রেমের ভান করবেন। যদি এমনটা হয়, তাহলে সে সম্পর্ক অতি সহজেই ভেঙ্গে যাবে। অনেকেই বিশ্বাস করেন, বিয়ের পর আর কোনো মজা থাকে না। এটা ভুল। বরং কাজের শেষে তার সাথে একটু ভালোবাসার কথা বলুন, তাহলে সম্পর্কটি আগের মতোই থাকবে। চাইলে মনটাকে ফ্রেস করার জন্য সঙ্গীকে নিয়ে দূরে কোথাও ঘুরে আসতে পারেন। আবার বিয়ের ভিডিও দেখে কিংবা পারিবারিক গল্প করেও কিন্তু সম্পর্কটাকে ভালো রাখা সম্ভব।

চার. টুকিটাকি কাজ শেয়ার করুন:
বিয়ের পর সংসারের যাবতীয় বিষয়ের সব সিদ্ধান্তই দুজনের। এমনকি অর্থনৈতিক বিষয়েও নারীরা সিদ্ধান্ত নিবে। সব কাজ দুজনে ভাগাভাগি করে শেয়ার করলে কাজ অনেকটাই হালকা হয়ে যায়। এতে সম্পর্কও ভালো থাকে।

পাঁচ. ভালোবাসার মানুষটির পরিবারকে অপছন্দ করা:
শুধু নিজের পরিবারকে ভালোবাসলেই চলবে না। আপনি যে পরিবারে যাচ্ছেন সে পরিবারের প্রতিটি সদস্যকেও আপন করে নিতে হবে। তাদের ভালোবাসতে হবে। সংসারে একসাথে চলতে গেলে সমস্যা আসতেই পারে, সেটাকে মানিয়ে নিয়ে চলাটাই বুদ্ধিমানের কাজ। মনে রাখবেন, আপনার সঙ্গীর মা, বাবা কিংবা তার বন্ধুরা আপনার শত্রু নয়। তারা তার জীবনের একটা অংশ। কাজেই কোনো দ্বন্দ্বে না জড়িয়ে তাদের প্রতি আরও বেশি আন্তরিক হোন।

ছয়. সঙ্গীকে নিয়েই বন্ধুদের সাথে সময় কাটান:
নতুন জীবনে স্বামীর সাথে বেশি সময় কাটাবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু তাই বলে তাকে নিয়ে বন্ধুদের সাথে সময় কাটাতে ভুলবেন না যেন। এটা দুজনের জন্যই অনেক বেশি জরুরী। বিবাহিত জীবনে কিছু গোপনীয়তা থাকতেই পারে, তাই বলে কখনই আপনার সঙ্গীর স্বাধীনতায় বাধা দেওয়া ঠিক নয়। সবসময় তার পাশে থাকবেন এবং দাম্পত্য জীবনের সবকিছুই তার সাথে শেয়ার করবেন।

সাত. নিজের বন্ধুদের ভুলে যাওয়া:
বিয়ে করলেই নিজের প্রিয় বন্ধুদের ভুলে যেতে হবে এটা ঠিক নয়। কারণ জীবনে সবার সবাইকে প্রয়োজন আছে। আবার বিপদে বন্ধুরাই পাশে থাকে। তবে সবসময় সতর্ক থাকবেন বন্ধুদের নিয়ে আপনার সঙ্গী যাতে কখনই ভুল না বোঝে। কোনো কারণে সমস্যা সৃষ্টি হলে দুজনে সরাসরি আলোচনা করে সমাধান করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মিথ্যেবাদী চিনে নেওয়ার সহজ উপায়

স্টাফ রিপোর্টার : আপনার পাশের ব্যক্তিটি অনবরত মিথ্যার জালে ফাঁসিয়ে ফায়দা লুটে ...

বিমানবালাদের সাথে যা যা করা যাবেনা

বিনোদন ডেস্ক : যারা নিয়মিত বিমানে চড়েন না, তারা হয় তো না ...