Home | বিবিধ | আইন অপরাধ | বাগেরহাটে মেয়ে হত্যা মামালায় সৎবাবার মৃত্যুদন্ড

বাগেরহাটে মেয়ে হত্যা মামালায় সৎবাবার মৃত্যুদন্ড

সুমন কর্মকার : বাগেরহাটে মৌমিতা আক্তার মায়া নামের তৃতীয় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে হত্যার দায়ে আল-আমিন (৩৭) নামের এক সৎবাবার মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার আসামির উপস্থিতিতে বাগেরহাটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত-১ ও শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান এ দন্ডাদেশ দেন।

দন্ডপ্রাপ্ত আল-আমিন জেলার শরণখোলা উপজেলার মঠেরপাড় গ্রামের ফজলুল হক হাওলাদারের ছেলে।

মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী খান সিদ্দিকুর রহমান জানান, ২০১৬ সালে শরণখোলা উপজেলার কদমতলা গ্রামের কামরুল ইসলাম দুলালের মেয়ে এবং হত্যার শিকার মায়ার মা জোসনা আকতার পুতুলকে বিয়ে করেন আল-আমিন। বিয়ের তিন মাস পর ২০ ডিসেম্বর সকালে আল-আমিন তার স্ত্রীকে ফোন করে মুরগি নিতে মেয়েকে বাজারে পাঠাতে বলেন। পুতুল স্বামীর কথামতো ভ্যানে করে মেয়েকে বাজারে পাঠান। এরপর থেকে শিশুটি নিখোঁজ ছিল। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও শিশুরটির সন্ধান না পেয়ে ওইদিন রাতে পরিবারের লোকজন পুলিশকে জানায়। শরণখোলা থানা পুলিশ সন্দেহভাজন হিসেবে শিশু মায়ার সৎবাবা আল-আমিনকে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, পরদিন মঠেরপাড়া গ্রামের লিটু মিয়ার ধানখেত থেকে মায়ার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরের দিন ২১ ডিসেম্বর নিহতের নানা কামরুল হাসান দুলাল বাদী হয়ে শরণখোলা থানায় একটি ধর্ষণ ও হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শরণখোলা থানার তৎকালীন উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আমির হোসেন সৎবাবা আল-আমিনকে অভিযুক্ত করে ২০১৭ সালের ২০ এপ্রিল চার্জশিট দাখিল করেন। ১৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বুধবার বিচারক এই রায় ঘোষণা করেন বলেও জানান আইনজীবী খান সিদ্দিকুর রহমান। আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেক ওজিয়ার রহমান পিকলু।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চিতলমারীতে প্রাথমিক শিক্ষকদের পাঠদানের মান নিয়ে নানা প্রশ্ন

চিতলমারী (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার অধিকাংশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ...

দিনাজপুরে বাণিজ্যিকভাবে কমলা চাষ

শাহ্ আলম শাহী, দিনাজপুর : ধানের জেলা দিনাজপুরে বাণিজ্যিকভাবে কমলা চাষ শুরু ...