ব্রেকিং নিউজ
Home | আন্তর্জাতিক | বরিশালে কেজিদরে সরকারি পাঠ্যপুস্তক বিক্রি : ইউএনও আটকে দিলেন ৭৩ বান্ডিল বই।

বরিশালে কেজিদরে সরকারি পাঠ্যপুস্তক বিক্রি : ইউএনও আটকে দিলেন ৭৩ বান্ডিল বই।

অপূর্ব লাল সরকার, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি, ৩ মার্চ, বিডিটুডে ২৪ডটকম : বরিশালের উজিরপুর উপজেলায় মাধ্যমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ের ৭৩ বান্ডিল সরকারি বই (প্রায় ৪০মণ) ধামুরা বন্দর থেকে আটক করেছে পুলিশ। ধামুরা পুলিশ ক্যাম্পের আইসি  আ. রাজ্জাক জানিয়েছেন, উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহরাব হোসেনের নির্দেশক্রমে ধামুরা বন্দরের ভাঙারী ব্যবসায়ী খোরশেদ আলমের গোডাউন থেকে প্রথমে ২৩ বান্ডিল ও রাতে পরিত্যক্ত অবস্থায় আরও ৫০ বান্ডিল  ২০১১-২০১২ সালের পাঠ্য পুরোনো বই উদ্ধার করা হ্য়। এসময় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার খন্দকার মুজিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। তবে বই উদ্ধারের ঘটনায় শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি। অন্যদিকে ভাঙারী ব্যবসায়ী খোরশেদ আলম বলেছেন, তিনি ফেরিওয়ালাদের মাধ্যমে বাবরখানা মাধ্যমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়, ধামুরা মাধ্যমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়, রামেরকাঠী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কাজিশা প্রাথমিক বিদ্যালয়, কচুয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন মাধ্যমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের হাজার হাজার মণ সরকারি পুরানো বই ধামুরা বাজারের ভাঙারী ব্যবসায়ী ওমর শেখ, সামিউল শেখ, রঞ্জন শেখসহ আরও কিছু ভাঙারী ব্যবসায়ী কেজি দরে কিনেছেন। ওই ব্যবসায়ীদের গোডাউনে গতকাল বিকাল পর্যন্ত প্রায় পাঁচশ’ মণ বই বান্ডিল অবস্থায় দেখা গেলেও পুলিশ তা আটক করেনি।
ভাঙারী ব্যবসায়ী খোরশেদ আলমের কাছে বই বিক্রেতা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে বাবরখানা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সত্যেন্দ্রনাথ সরকার জানান, তার স্কুলের বইগুলো তার নির্দেশে দপ্তরিরা বিক্রি করেছে। তিনি আরও জানান ধামুরা স্কুলসহ অন্যান্য স্কুলগুলো বই বিক্রি করেছে দেখে আমিও বই বিক্রি করেছি। তবে বই বিক্রির টাকার একটি অংশ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকেও দিতে হয়। তবে বই বিক্রির ব্যাপারে তিনি স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সাথে আলোচনা করেননি বলেও স্বীকার করেন এবং বাবরখানা প্রাথমিক বিদ্যলয়ের প্রধান শিক্ষক মো. বদরুদ্দোজা ২০১১-২০১২ সালের একশ’ কেজি বই বিক্রি করেছেন বলে স্বীকার করেন। তবে তিনিও কোন উর্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেননি।
এব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাজী সাইফুল্লাহ ওয়ালিদ মুঠোফোনে বলেন, বই বিক্রির সরকারি কি নীতিমালা আছে তা এই মূহুর্তে আমার জানা নেই। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সোহরাব হোসেন বলেন, যেহেতু সরকারি বই কেজিদরে খোলাবাজারে বিক্রির নির্দেশ নেই। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমি বইগুলো প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে আটক করে ধামুরা পুলিশ ক্যাম্পে রেখেছি। তদন্তের মাধ্যমে সরকারি বই বিক্রির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

x

Check Also

‘গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশন ইন স্পেন’ নির্বাচনে মুজাক্কির – সেলিম প্যানেল বিজয়ী

জিয়াউল হক জুমন, স্পেন প্রতিনিধিঃ সিলেট বিভাগের চারটি জেলা নিয়ে গঠিত গ্রেটার ...

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান, পর্তুগালঃ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার ...