ব্রেকিং নিউজ
Home | জাতীয় | বঙ্গবন্ধু কন্যার ৬৭তম জন্মদিন আজ

বঙ্গবন্ধু কন্যার ৬৭তম জন্মদিন আজ

sheikh_hasinaস্টাফ রিপোর্টার  :  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৬৭তম জন্মদিন আজ। ১৯৪৭ সালের এই দিনে মধুমতির তীরবর্তী গোপালগঞ্জের পল্লীগ্রাম টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু ও বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের প্রথম সন্তান শেখ হাসিনা জন্মগ্রহণ করেন।

 

৩২ বছরের দীর্ঘ রাজনৈতিক পথ পরিক্রমায় শেখ হাসিনা কেবল সেই মহান নেতার কন্যা এবং তার রাজনীতির উত্তরসূরি হিসাবে গণমানুষের প্রধান নেতার আসনে স্থান পাননি, তিনি জেল-জুলুম, মামলা-হামলা, হত্যা প্রচেষ্টাসহ হাজারো হুমকির মুখে অটল থেকে নেতৃত্বের অগ্নিপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাহসী নেতৃত্ব জনগণের কাছে আদর্শ ও অনুপ্রেরণার প্রতীক হয়ে আছেন তিনি।

 

দেশপ্রেম আর মানুষের প্রতি মমত্ববোধে উজ্জীবিত আওয়ামী লীগের এই সভানেত্রী দেশ ও জাতির কল্যাণে শেখ হাসিনা নিয়োজিত রয়েছেন ৩২ বছরের অধিককাল। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও রাজনৈতিক পথপরিক্রমায় ছাত্রনেত্রী থেকে জননেত্রীতে পরিণত হওয়া শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত হবে অতি সাধারণভাবে।

 

রাষ্ট্রীয়কাজে জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগদানের জন্য বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সফর করছেন প্রধানমন্ত্রী। গত বছরের মতো এবারও যুক্তরাষ্ট্রে তার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়, বোন শেখ রেহানাসহ মেয়ে, ভাগ্নে-ভাগ্নি, নাতি-নাতনীদের সঙ্গে পারিবারিক পরিবেশে তার জন্মদিন পালন করবেন শেখ হাসিনা। দেশে না থাকলেও আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সংগঠন বঙ্গবন্ধুর প্রথম সন্তানের জন্মদিন উপলক্ষে গ্রহণ করেছে বিস্তারিত কর্মসূচি।

 

আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজ শেখ হাসিনার ৬৭তম জন্মদিন পালন করবে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে কেক কাটা, আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল প্রভৃতি। আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের পক্ষ থেকে নিউইয়র্ক অবস্থানরত শেখ হাসিনাকে আজ জন্মদিনের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হবে। ঢাকা থেকেও টেলিফোনে তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাবেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

 

দিনটি উপলক্ষে বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদসহ দেশের বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ মাহফিল ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্রীয় কর্মসহৃচির অংশ হিসেবে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মিলাদ, দোয়া মাহফিল, বস্ত্র বিতরণ ও আলোচনা সভা করবে। দুপুর ১২টায় ঢাকেশ্বরী মন্দির এবং প্যাগোডা, গির্জাসহ বিভিন্ন ধর্মীয় উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও আওয়ামী লীগের পক্ষে বিভিন্ন এতিমখানাসহ দুঃস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হবে। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর দেশে ফিরে আসার দিন বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ব্যাপক নাগরিক গণসংবর্ধনা দেবে আওয়ামী লীগ।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের পাঁচ সন্তানের মধ্যে সবার বড়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের নির্মম হত্যাযজ্ঞে পিতা, মাতা, তিন ভাইকে হারিয়ে একমাত্র ছোট বোন শেখ রেহানাকে নিয়েই তিনি বঙ্গবন্ধু পরিবারের দুঃসহ স্মৃতি বয়ে বেড়াচ্ছেন। বাঙালীর বিয়োগান্ত ট্রাজেডি তথা স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতিকে সপরিবারে হত্যাকান্ডের কালরাতে বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান তাঁরা দু’বোন।

 

কিন্তু বিদেশের মাটিতে তাঁর থাকা হয়নি। দেশবাসীর প্রবল আকর্ষণে ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে প্রত্যাবর্তন করেন শেখ হাসিনা।

 

বিদেশে থাকতেই ৩৪ বছরেরও কম বয়সে তাকে দেশের প্রাচীণ ও ঐতিহ্যবাহী বৃহৎ রাজনৈতিক দল বাংলদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নির্বাচিত করা হয়। দেশে ফিরে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করার পর থেকে অনেক বন্ধুর পথ পাড়ি দিয়ে আজ আওয়ামী লীগকে দেশে সর্ববৃহৎ ও জনপ্রিয় রাজনৈতিক দলে পরিণত করেছেন তিনি। ৩২ বছর ধরে নিজ রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও আপসহীন নেতৃত্বের মাধ্যমে দেশের অসাম্প্রদায়িক- গণতান্ত্রিক রাজনীতির মূল স্রোতধারার প্রধান নেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন শেখ হাসিনা। তাঁর নেতৃত্বেই আওয়ামী লীগ আজ বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশী ভোট পেয়ে এবং তিন-চতুর্থাংশরও বেশি আসনে বিজয়ী হয়ে গত সাড়ে চার বছরে ধরে সরকার পরিচালনা করছেন।

 

রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে ছাত্রজীবন থেকেই প্রত্যক্ষ রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হন শেখ হাসিনা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েট ডিগ্রি লাভকারী শেখ হাসিনা তৎকালীন ছাত্রলীগের অন্যতম নেত্রী ছিলেন। ১৯৬৮ সালে আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে বিবাববন্ধনে আবদ্ধ হন শেখ হাসিনা। তিনি এক সন্তান তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ সজীব ওয়াজেদ জয় এবং কন্যা মনোরোগ বিজ্ঞানী সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের গর্বিত জননী।

 

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এবং অন্য রাজনৈতিক জোট ও দলগুলো ১৯৯০ সালে স্বৈরাচারবিরোধী গণআন্দোলনের মাধ্যমে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে বিজয়ী হয়। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বেই তৎকালীন বিএনপি সরকারের পতন ও তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে বিজয় অর্জন করে আওয়ামী লীগ। গত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় প্রধান বিরোধী দলের নেতা হিসেবে তাঁর নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলগুলোর সমন্বয়ে প্রথমে ১৪ দলীয় জোট এবং পরে মহাঐক্যজোট গড়ে ওঠে। ১৪ দল ও মহাঐক্যজোটের তীব্র আন্দোলনের মুখে অধ্যাপক ড. ইয়াজউদ্দীন আহম্মদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ২২ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচন করার প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়।

২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি জরুরি অবস্থা জারি করে ড. ফখরুদ্দিন আহমদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় এলে ওই বছরের ১৬ জুলাই গ্রেফতার হন শেখ হাসিনা। ওই সময় সংসদ ভবন স্থাপিত  বিশেষ কারাগারে দীর্ঘ প্রায় ১১ মাস বন্দি ছিলেন। গণতান্ত্রিক আন্দোলন করতে গিয়ে এর আগেও কয়েকদফা গৃহবন্দি হয়েছেন বঙ্গবন্ধুর এই কন্যা।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এ পর্যন্ত দুই মেয়াদে ক্ষমতাসীন হয়েছে। ১৯৯৬ সালে তাঁর নেতৃত্বে দীর্ঘ ২১ বছর পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দলটি। ওই বছরের ১২ জুনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী হয়ে ২৩ জুন সরকার গঠন করে তারা। এরপর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের ঐতিহাসিক নির্বাচনে চার-তৃতীয়াংশ আসনে বিশাল বিজয় অর্জনের মাধ্যমে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগসহ মহাজোট সরকার গঠিত হয়। দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন শেখ হাসিনা। এছাড়া ১৯৮৬ সালের চতুর্থ, ১৯৯১ সালের ষষ্ঠ এবং ২০০১ সালের ৮ম সংসদে অর্থাৎ মোট তিনদফা বিরোধী দলের নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

গণতন্ত্র এবং দেশের মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন-সংগ্রামে অসামান্য অবদান রাখার পাশাপাশি রাষ্ট্র পরিচালনায়ও ব্যাপক সাফল্যের পরিচয় দিতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। ১৯৯৬-২০০১ সালে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচূক্তি ও গঙ্গা পানি বন্টন চুক্তি তার সরকারের অন্যতম সাফল্য হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। বর্তমানে তার নেতৃত্বাধীন সরকার ২০২১ সালের মধ্যে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত আধুনিক ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য পূরণের নিয়োজিত রয়েছে। এই অঞ্চলে গণতন্ত্র, শান্তি, ও মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে ভূমিকা রাখার স্বীকৃতি হিসেবে দেশি-বিদেশি বেশ কিছু সম্মানজনক পুরস্কার ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

টানা ৬ ম্যাচে ব্যর্থতার পর এবার জয়ের দেখা পেল টাইগাররা

ক্রীড়া ডেস্ক : টানা ৬ ম্যাচে ব্যর্থতার পর এবার জয়ের দেখা পেল সাদা জার্সির ...

রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভূয়সী প্রশংসা ট্রাম্পের

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক: সফর শুরুর আগে আমেরিকার মাটিতে দাঁড়িয়ে যে সুরে বলেছিলেন প্রেসিডেন্ট ...