ব্রেকিং নিউজ
Home | বিবিধ | স্বাস্থ্য | পাটগ্রামে দুই দশক ধরে বন্ধ দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা হাসপাতলের অন্তঃ ও জরুরী বিভাগ

পাটগ্রামে দুই দশক ধরে বন্ধ দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা হাসপাতলের অন্তঃ ও জরুরী বিভাগ

নুরনবী সরকার, লালমনিরহাট: দেশের বহুল আলোচিত এলাকা লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা। এলাকাটিতে প্রায় ২০ হাজার মানুষের বসবাস। রয়েছে সরকারি স্কুল, অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতিসহ আধুনিক সুবিধা সম্বলিত হাসপাতাল থেকে শুরু করে সব সুযোগ-সুবিধা। দহগ্রাম-আঙ্গরপোতায় প্রবেশ করতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ’র নজরদারির পাশাপাশি কাঁটাতারের গেট পাড় হতে হয়। আবার প্রবেশের পর মনে হয় যেন মূল ভূখণ্ড থেকে ছিটকে পড়া আরও এক টুকরো বাংলাদেশের কথা। কিন্তু ওই এলাকার লোকজনের স্বাস্থ্য সেবার জন্য সরকারি হাসপাতালটির অন্তঃ বিভাগ ও জরুরী বিভাগ দীর্ঘ দুই দশকেও চালু করা সম্ভব হয়নি।

গত ২০১১ সালের ১৯ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা সফরে এসে হাসপাতালের অন্তঃ বিভাগ ও জরুরী বিভাগ উদ্বোধন করেন। ফলে ওই সময় চিকিৎসা সেবা নিয়ে এলাকার লোকজনের মনে আশা জেগেছিল। তবে মাত্র ৩ মাস চালু থাকার পর সেই অন্তঃ বিভাগ ও জরুরী বিভাগ সেবা বন্ধ হয়ে যায়। ফলে হাসপাতালে ভর্তি হতে আসা রোগীদের প্রায় ১৮ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতে হচ্ছে।

জানা যায়, ভারতীয় তিন বিঘা করিডোর হয়েই মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে যাতায়াত করতে হয় দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা এলাকার বাসিন্দাদের। ১৯৯৬ সালে দহগ্রামের বঙ্গেরবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে ১০ শয্যার একটি সরকারি হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়। ওই সময় ৪ চিকিৎসক, ৪ সেবিকাসহ মোট ২৫ জন লোকবল নিয়োগ দেয়া হয়। কিন্তু সময় যতই গড়িয়েছে, ঠিক ততই যেন হাসপাতালে চিকিৎসক সংকট প্রকট হয়ে উঠেছে। বর্তমানে এ হাসপাতালে দু’জন চিকিৎসক, একজন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার, একজন ফার্মাসিস্ট, দু’জন ওয়ার্ড বয়, দু’জন বাবুর্চি ও একজন সুইপারসহ ১০ জন কর্মী রয়েছে। শূন্যই রয়ে গেছে বাকি ১৫টি পদ।

সূত্র মতে, দহগ্রাম হাসপাতালটিতে অত্যাধুনিক চিকিৎসা সেবার জন্য অস্ত্রোপচার থিয়েটার (ওটি), আধুনিক এক্সরে মেশিন, উন্নত যন্ত্রপাতি, মহিলা-পুরুষ ওয়ার্ডের পাশাপাশি অস্ত্রোপচার করা রোগীদের রাখার বিশেষ ব্যবস্থাও রয়েছে। রয়েছে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন জেনারেটর মেশিন, অ্যাম্বুলেন্সসহ নানারকম সুবিধা।

সংশ্লিষ্টদের ভাষ্য মতে, অন্তঃ বিভাগের রোগীদের জন্য যে ১০টি বেড রাখা হয়েছে, তা শুধু দেশের অত্যাধুনিক হাসপাতালেই ব্যবহার হয়ে থাকে। কিন্তু বছরের পর বছর ধরে এসব ব্যবহার হচ্ছে না। অ্যাম্বুলেন্স থাকলেও তার আবার চালক নেই। দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার না হওয়ার কারণে হাসপাতালের কোটি টাকা মূল্যের এক্স-রে মেশিন, জেনারেটর, অস্ত্রোপচার থিয়েটারের (ওটি) সরঞ্জাম ও আসবাবপত্র এখন নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

এদিকে দহগ্রাম ইউনিয়নের প্রায় ২০ হাজার বাসিন্দার চিকিৎসার জন্য কাগজে-কলমে ৪ জন চিকিৎসক থাকার কথা। কিন্তু ওই চারজনের মধ্যে দু’জন চিকিৎসক দীর্ঘদিন ধরে বিনা অনুমতিতে কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন বলে পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে।

দহগ্রামের স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানিয়েছেন, হাসপাতালটির শুরু থেকে অন্তঃ বিভাগ ও জরুরী বিভাগ বন্ধ রয়েছে। ২০১১ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দহগ্রামে সফরে এসে অন্তঃ বিভাগ উদ্বোধন করেন। তখন থেকে বেশ ভালোই চলছিল হাসপাতালটি। কিন্তু মাত্র তিন মাস পরে সেই অন্তঃ বিভাগ ও জরুরী বিভাগের সেবা বন্ধ হয়ে গেলে ফের দুর্ভোগে পরে এলাকার লোকজন।

ওই হাসপাতালে চিকিৎসক ডাঃ নুর আরিফ প্রধান জানান, বর্তমানে শুধু হাসপাতালের বহির্বিভাগে প্রতিদিন গড়ে ৬০-৭০ জন রোগী চিকিৎসা নিতে আসে। তবে অন্তঃ বিভাগ ও জরুরী বিভাগ বন্ধ থাকায় তাদের কেউ ভর্তি হতে পারছেন না।

পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হাসনাত ইউসুফ জানান, দহগ্রাম হাসপাতালের অন্তঃ বিভাগ ও জরুরী বিভাগ চালুর বিষয়টি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নজরে রয়েছে। তবে ওই হাসপাতালের যে দু’জন ডাক্তার বিনা অনুমতিতে দীর্ঘদিন অনুপস্থিত রয়েছে, তাদের ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ জেলা সিভিল সার্জনকে জানানো হয়েছে ।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মাদারীপুরে জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাাস ক্যাম্পেইনের প্রেস ব্রিফিং

মাদারীপুর প্রতিনিধি :-ভিটামিন ‘এ’ খাওয়ান, শিশুর মৃত্যুর ঝুঁকি কমান এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে ...

ফুলবাড়ী পৌরসভায় জাতীয় ভিটামিন এ’প্লাস ক্যাম্পেইন

মো. আফজাল হোসেন ফুলবাড়ী দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পৌরসভা সভাকক্ষে জাতীয় ...