Home | ব্রেকিং নিউজ | পল্লী বিদ্যুৎতের সাথে যোগসাযোসে বাদাঘাট বাজারে চলছে ওর্য়াকসপ

পল্লী বিদ্যুৎতের সাথে যোগসাযোসে বাদাঘাট বাজারে চলছে ওর্য়াকসপ

জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া, সুনামগঞ্জ : সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের বাদাঘাট বাজারে সরকারী নিয়ম নীতিকে বৃদ্ধাংগুলী দেখিয়ে,পল্লী বিদ্যুৎতের সাথে আতাত করে পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি না নিয়ে প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নাকের ডগায় উপর দিয়েই ২০টির বেশী ওর্য়াকসপ চলছে। হচ্ছে পরিবেশ দূষন আর ওর্য়াকসপ গুলোতে কাজ করছে শিশু শ্রমিক। প্রশাসনের নিরাবতা ও সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের অবহেলায় এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নেওয়ায় দিন দিন গড়ে উঠছে একেরপর এক ওর্য়াকসপ তাই প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে সচেতন এলাকাবাসী।

জানাযায়, তাহিরপুর উপজেলা বানিজ্যিক কেন্দ্র হিসাবে পরিচিত বাদাঘাট বাজার। উপজেলার সদর থেকে বাদাঘাট বাজারের প্রবেশ করার মূল সড়ক দক্ষিন দিক দিয়ে যত্রতত্র ভাবে গড়ে উঠা ২০টি অধিক ওয়ার্কসপের একটিরও সরকারী কোন নিয়মনীতি মানছে না নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের কোন ছাড়পত্র। এ কারনে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা আছেন অসস্থিকর পরিবেশের মাঝে। আর একের পর এক এসব ওয়ার্কসপ গড়ে উঠছে ব্যস্থতম এ সড়কেই। আর এই সড়কদিয়ে প্রায় ১৫টি গ্রামের স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রী ও বিভিন্ন বয়সের শিশু,নারী পুরুষ ও যানবাহন চলাচল করছে প্রতিদিন। এতে করে ছাত্রছাত্রীসহ নানান বয়সী লোকজন ও বিভিন্ন রখমের যানবাহন চলাচলে দূর্ভোগ পোহাচ্ছে। আর এসব ওর্য়াকসপের সাথে গোপনে আতাত রয়েছে পল্লী বিদ্যুৎতের কিছু অসাধু চক্রের। যার জন্য পল্লী বিদ্যুৎতের তাহিরপুর ও জেলার সংশ্লিষ্টরাই টাকার বিনিময়ে বিদ্যুৎতের সংযোগ দিয়ে যাচ্ছে ইচ্ছামত মত। আর প্রতি মাসেই মাসোআরা নিচ্ছে। আর এই মাসোআর টাকা তাহিরপুর ও সুনামগঞ্জের পল্লী বিদ্যুৎতের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের পকেটে যাচ্ছে তাই তারা কোন অভিযান পরিচালনা করছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে এলাকাবাসীর।

এই সড়কে চলাচলকারী বিভিন্ন যানবাহনের চালকগন সাইদুল,সাজ্জাদসহ অনেকেই জানান, ভাই আর বইলে না সড়ক তৈরী হয়েছে মানুষ আর যানবাহন চলাচলের জন্য। এখন সড়কে ওর্য়াকসপের কাজের জ্বালায় চরম দূর্ভোগে আছি। এই সব ওর্য়াকসপ গুলোকে সড়ক থেকে সড়ানো প্রয়োজন। না হয়ে আমাদের সবার দূর্ভোগ শেষ হবে না। অনেক সময় হতাহতের গঠনাও গঠেছে এই সড়কে তাদের বললে আরো ক্ষমতা দেখিয়ে খারাপ ব্যবহার করে। এদের ওর্য়াকসপের দোকান গুলো বন্ধ করার দাবী জানাই।

এই সড়কদিয়ে চলাচলকারী স্কুল,কলেজের শিক্ষার্থীরা শারমিন আক্তার,শফিক মিয়াসহ অনেকেই বলেন,চলাচল করার সড়কে ওর্য়াকসপ থাকায় আর আমরা যখন চলাচল করি তখন ভয়ের মধ্যে থাকি কখন কোন দূর্ঘটনার শিকার হই কিনা। কারন আমরা যখন চলাচল করি তখনও তারা তাদের কাজ করে। ওয়ার্কসপ গুলো সরানো প্রয়োজন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বলেন, আমরা ত সর্ম্পকের কারনে কিছু বলতে পারি না। যত্রযত্র ভাবে গড়ে উঠা এই সব ওয়ার্কসপ গুলোর পরিবেশ অধিদপ্তরের কোন প্রকার অনুমতি নেই। তারপরও এসব চলছে প্রশাসনের সামনেই কেউ কিছু বলছে না। আমরা সারাক্ষনেই শব্দের মাঝে বাস করি। এতে করে একদিকে পরিবেশ দূষন আর অন্যদিকে শব্দ দূূষণ হচ্ছে প্রশাসনের হস্থক্ষেপ প্রয়োজন।

এ বিষয়ে বিশ্বম্বরপুর উপজেলার এজিএম সাইফুর ইসলাম বলেন, এই বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা পূনেন্দ্র দেব জানান, সরকারী নিয়মের বাহিরে আর জনদূর্ভোগ সৃষ্টি করায় ওর্য়াকসপ গুলোর বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

উদ্বোধনী ম্যাচে মুম্বইকে পাঁচ উইকেটে হারাল চেন্নাই

ক্রীড়া ডেস্ক : মরুশহরে আইপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে জিতল চেন্নাই সুপার কিংস। শনিবার মহেন্দ্র সিংহ ...

রাজধানীতে ১ টাকায় রাত্রিযাপন

ডেস্ক রিপোর্ট : এক টাকায় আহার- কথাটি শুনলেই মনে পড়ে বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের ...