Home | সারা দেশ | পরিবহন ধর্মঘট আব্যহত ছয়দফা দাবিতে অনড় নেতারা ভোগান্তিতে সাধারণ যাত্রীরা

পরিবহন ধর্মঘট আব্যহত ছয়দফা দাবিতে অনড় নেতারা ভোগান্তিতে সাধারণ যাত্রীরা

মো:নুরে ইসলাম মিলন রাজশাহী: রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৬ জেলায় অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট আব্যহত। তৃতীয় দিনের মতো মঙ্গলবার চলছে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৬ জেলায় পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট। ছয় দফা দাবিতে এবার অনড় অবস্থান নিয়েছেন রাজশাহীর পরিবহন শ্রমিক নেতারা। আর কোনো আশ্বাস বা প্রতিশ্রুতি নয়, পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন দেখতে চান তারা।২৬ মে সোমবার বিকেলে বিভাগীয় প্রশাসনের সাথে টানা তিন ঘণ্টা বৈঠকের পরও সমঝোতা হয়নি। বৈঠক শেষ হয়েছে অমীমাংশিত ভাবেই। পরিবহন নেতারা জানিয়েছেন, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের এ ধর্মঘট চলবে। এতে সড়ক পথে বিভাগীয় শহর রাজশাহীর সঙ্গে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। বিভাগের আট জেলার স্বাভাবিক জীবনযাত্রা অচল হয়ে পড়েছে। সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।ধর্মঘটের সমর্থনে মঙ্গলবারও বিক্ষোভ করেছে পরিবহন শ্রমিক নেতা-কর্মীরা। সকালে পরিবহন শ্রমিকদের একটি বিক্ষোভ মিছিল মহানগরীর শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান বাস টার্মিনালের সামনে থেকে বের হয়। মিছিলটি শিরোইল ঢাকা বাস টার্মিনাল ও গৌরহাঙ্গা রেলগেট হয়ে পুনরায় সেখানে গিয়ে শেষ হয়। এসময় পথ সভায় শ্রমিক নেতারা আবারও ধর্মঘট অব্যাহত রাখার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।এদিকে, ধর্মঘট আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকলে রাজশাহীতে জ্বালানি সঙ্কট দেখা দিবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। একটানা ধর্মঘটের ফলে এরই মধ্যে পেট্রোল, অকটেন, ডিজেলের মজুদ ফুরিয়ে আসতে শুরু করেছে মহানগরীর ফিলিং স্টেশনগুলোতে। মজুদ শেষ হলে আর জ্বালানি সরবরাহ করতে পারবে না ফিলিং স্টেশগুলো। এতে বন্ধ হয়ে পড়তে পারে মোটরসাইকেলসহ ক্ষুদ্র যানবহনগুলো।
অপরদিকে, ধর্মঘটের আগের দিন থেকেই রাজশাহী থেকে রাজধানীমুখী বাস-ট্রাক চলাচল বন্ধ থাকায় শষ্য ভাণ্ডার বলে খ্যাত রাজশাহী থেকে কোথাও কাঁচামাল সরবরাহ করা যাচ্ছে না। এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে উৎপাদিত কৃষিজাত পণ্য পঁচে নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন কাঁচামাল ব্যবসায়ীরা। রাজশাহী সড়ক পরিবহন গ্রুপের সভাপতি এনামুল হক বলেন, গতকাল বিকেলে বিভাগীয় প্রশাসনের বৈঠকে কেবল আলোচনা এবং এ ক’দিনে মহাসড়কে ভটভটি নসিমনসহ অবৈধ যানবাহন চালাচল বন্ধে কি কি পদক্ষেপ তারা নিয়েছেন তা জানিয়েছেন। কিন্তু তারা এখন আর এসব জানতে চান না। এছাড়া ছয় দফার অন্যান্য দাবির ব্যাপারেও পরিষ্কার করে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কিছু জানানো হয়নি। তাই এ ধর্মঘট প্রত্যাহার করার অপাতত কোনো কারণ নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি।  রাজশাহী সড়ক পরিবহন গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মুনজুর রহমান পিটার জানান, তারা এমন অনেক বৈঠক করেছেন। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। কেবল মিলেছে প্রতিশ্রুতি বা আশ্বাস। তবে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ ও ভোগান্তির কথা বিবেচনা করে এতদিন সব কিছু মেনে নিয়েছেন তারা। এখন তাদের পিঠ দেওয়ালে ঠেকে গেছে।
রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি কামাল হোসেন রবি বলেন, পরিবহন একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। মানুষকে দুর্ভোগে ফেলা তাদের কাজ নয়। কারণ তাদের অর্থেই পরিবহন শ্রমিকরা জীবন-জীবিকা চালায়। কিন্তু সরকার পরিবহন শ্রমিকদের আন্দোলনে নামতে বাধ্য করেছে। সড়ক মহাসড়কে অবৈধ যানবাহন, পথে পথে পুলিশের চাঁদাবাজী আর হয়রানিতে পরিবহন মালিকরা ব্যবসা গুটিয়ে নিচ্ছেন। এ অবস্থা থেকে পরিত্রান পেতেই আন্দোলন চলছে বলে জানান এ শ্রমিক নেতা।  পরিবহন সেক্টরকে সচল এবং এর সাথে জড়িত শ্রমিকদের বাঁচিয়ে রাখতে হলে ছয় দফার কোনো বিকল্প নেই। তাই প্রতিবারের মতো কোনো আশ্বাসে ধর্মঘট প্রত্যাহার বা স্থগিত করা হবে না। ছয় দফা আদায়ে প্রয়োজনে গোটাদেশে ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

নলছিটি থানার তিন এসআই’র বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ

  খাইরুল ইসলাম, ঝালকাঠি প্রতিনিধি: পঞ্চাশ হাজার টাকা ঘুষের দাবিতে এক যুবক ...

মারুফা হত্যার ৮ দিন পার হলেও মামলা নেয়নি প্রশাসন” বিচার দাবীতে মানববন্ধন।

  খাইরুল ইসলাম, ঝালকাঠি প্রতিনিধি: ঝালকাঠিতে গৃহবধূ ও কলেজ ছাত্রী মারুফা আক্তারের ...