Home | আন্তর্জাতিক | নির্বাচনে সেনা মোতায়েন চায় বিএনপি

নির্বাচনে সেনা মোতায়েন চায় বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার, ২০ মার্চ, বিডিটুডে ২৪ডটকম : আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে নির্বাহী ক্ষমতা দিয়ে মোতায়েনের জন্য নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) অনুরোধ করে চিঠি দিয়েছে প্রধান বিরোধীদল বিএনপি।

বুধবার সকাল ১১টায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে একদল নেতারা রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে অবস্থিতি নির্বাচন কমিশনে গিয়ে এ চিঠি দেন। তবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমেদ উপস্থিত না থাকায় চিঠিটি গ্রহণ করেন নির্বাচন কমিশনার আব্দুল মোবারক।
চিঠিতে বলা হয়, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা বাহিনী না নামানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে যে গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ (আরপিও) সংশোধন করা হয়েছে তা বাতিল করতে বলা হয়। সেই সাথে নির্বাচনে সেনা বাহিনীকে নির্বাহী ক্ষমতা দিয়ে মোতায়েনের জন্য অনুরোধ করা হয়।
বিএনপির চিঠির জবাবে নির্বাচন কমিশনার মো.আব্দুল মোবারক বলেন, বিএনপির পক্ষ থেকে যে প্রস্তাব গুলো দেওয়া হয়েছে তা কমিশন বৈঠকের মাধ্যমে বিবেচনা করা হবে।
মোবারকের সাথে সাক্ষাৎ শেষে সালাহ উদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, ইসি আরপিও খসড়া চূড়ান্ত করেছে। আমরা জেনেছি সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংজ্ঞায় স্বশস্ত্র বাহিনীর বিষয়টি রাখা হয়নি। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সেনা মোতায়েন করতে হবে। সেই সঙ্গে সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দিতে হবে।
সীমানা পূণর্বিন্যাস সম্পর্কে তিনি বলেন, সীমানা পূণর্বিন্যাস আইন ১৯৭৬ অনুযায়ী বিগত আটটি সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ৬ ফেব্রুয়ারি কমিশন যে সীমানার খসড়া প্রকাশ করেছে তা আমরা পরীক্ষা করে দেখেছি, যে ৮৭ টি আসনে সীমানার পূণর্বিন্যাস হয়েছে সেখানে সরকার এবং দলীয় প্রভাবশালীদের নির্দেশে বর্তমান কমিশন এই আসনগুলোতে বিন্যাস এনেছে। আমরা কমিশনকে চারটি বিষয়কে আমলে নিয়ে বিন্যাসের প্রস্তাব দিয়েছি। সেক্ষেত্রে ভৌগলিক অখণ্ডতা, প্রশাসনিক সুবিধা, ভোটার এবং জনসংখ্যার বিভাজন গুরুত্ব দিতে হবে।
হাল নাগাদ ভোটার তালিকার বিষয়ে অভিযোগ করে তিনি বলেন, সম্প্রতি যে হাল নাগাদ ভোটার তালিকা করা হয়েছে তা দলীয় বিবেচনায় করা হয়েছে। এই ভোটার তালিকাতে পাঁচ লাখ ভোটারের হিসাব নেই। হালনাগাদ তালিকা করা হয়েছে সরকারের এবং দলীয় কর্মীদের দিয়ে। প্রকৃত ভোটার তালিকা হয়নি।
হালনাগাদ সবসময়েই করা যায় উল্লেখ করে সালাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, নির্ভূল ও স্বচ্ছ ভোটার তালিকা করার জন্য আমরা ইসিকে আহ্বান জানাচ্ছি।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির এই যুগ্ন-মহাসচিব বলেন,এই কমিশনের ব্যাপারে আমাদের আপত্তি আগেও ছিল। এখনও আছে। এই কমিশন সরকারের আজ্ঞাবহ। এই কমিশনের অধীনে সুষ্ঠুনির্বাচন সম্ভব নয়।
এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনার আব্দুল মোবারক বলেন, ‘মির্জা ফখরুল ইসলাম সাক্ষরিত তিন পৃষ্ঠার একটি চিঠি আমরা পেয়েছি। তারা নির্ধারিত কোন আসনের ব্যাপারে আমাদের বলা হয়নি। এটি রাজনৈতিকভাবে এসেছে। আমরা রাজনৈতিক ভাবেই দেখা হবে।’
পাঁচ লাখ ভোটার কমের বিষয়ে কমিশনার বলেন,ভোটার তালিকা থেকে কারা বাদ পড়েছে সুনির্দিষ্টভাবে জানাতে হবে।
x

Check Also

অবশেষে বৈঠকে বসছে ভারত ও পাকিস্তান

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : দুই বছর পর সিন্ধুর জল বণ্টন নিয়ে মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) ভারতের সঙ্গে ...

এক শটে বাংলার বাইরে ফেলব ওদের : মমতা

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : ভাঙা পা নিয়েই শেষ মুহুর্তের নির্বাচনি প্রচারে মাঠ গরম করছেন ...