Home | জাতীয় | নির্বাচনী সহিংসতার কারণে যোগ্য প্রার্থী কমে যাচ্ছে

নির্বাচনী সহিংসতার কারণে যোগ্য প্রার্থী কমে যাচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার :  নির্বাচনী সংঘাতের কারণে প্রার্থীরা আগ্রহ হারাচ্ছেন। কমে যাচ্ছে নারী প্রার্থীর সংখ্যাও। তবে যেসব নির্বাচনে সবদলের প্রার্থীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা গেছে সেখানে প্রার্থীর সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি ভোটার উপস্থিতি বেশি ছিল।

মঙ্গলবার রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ও ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (বিআইজিডি) এর যৌথ উদ্যোগে করা ‘বাংলাদেশের শাসন পরিস্থিতি-২০১৬’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনের এসব সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধারনের সুপারিশ করা হয়।

বিআইজিডির নির্বাহী পরিচালক সুলতান হাফিজ রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়াহিদ আবদুল্লাহ। এ নিয়ে বিআইডিজি চতুর্থবারের মতো এই প্রতিবেদন প্রকাশ করলো। এবারের প্রতিবেদনে গণতান্ত্রিক ও নির্বাচন খাত, সরকারি খাত, অর্থনৈতিক খাত ও স্বাস্থ্য খাতের অবস্থা তুলে ধরা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নির্বাচনকালীন আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবণতির জন্য নিজেরাই দায়ী। এজন্য নির্বাচনকালীন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে স্বাধীন ও নিরপেক্ষভাবে কাজ করার সুযোগ দেয়ার পাশাপাশি এর অন্তর্নিহিত কারণ বের করে সমাধানের পদক্ষেপ নিতে হবে। জাতীয়, সিটি কর্পোরেশন, উপজেলা এবং ইউপি নির্বাচন যার সচিত্র উদাহরণ।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতিতে আধিপত্য বিস্তার ও নির্বাচনে অংশ নিলে জিততেই হবে এমন মানসিকতা দেখা যায়। নির্বাচন বর্জন ও সহিংসতা হচ্ছে। এসব গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রায় অন্যতম বাঁধা। রাজনৈতিক অঙ্গীকার ছাড়া সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হবে না। কিন্তু বাংলাদেশের রাজনীতিকদের বক্তব্যে অঙ্গীকারের ঘাটতি না থাকলেও প্রয়োগে একেবারেই উদাসীন। এজন্য রাজনীতিকরা সুশাসনকেন্দ্রিক যেসব ঘোষণা দেন, সেগুলো কাগুজে দলিল হয়ে থাকে। এই প্রেক্ষাপটে প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধির বিকল্প নেই। এজন্য রাজনীতিকদের পাশাপাশি নাগরিক সমাজকেও ভূমিকা রাখতে হবে।

নির্বাচনে সেনা মোতায়েন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি মানুষের আস্থার সংকট রয়েছে। শুধু নির্বাচন নয়, সব ক্ষেত্রেই এই সংকট বিদ্যমান। যে কারণে নির্বাচনে তারা সঠিকভাবে কাজ করবে এই আস্থা জনসাধারণ রাখতে পারে না বলেই সেনা মোতায়েনের প্রসঙ্গ আসে।

অনুষ্ঠানে ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, স্বল্পোন্নত দেশে সুশাসন না উন্নয়ন জরুরি এই নিয়ে বিতর্ক চলছে। তবে কিছু ক্ষেত্র রয়েছে যেখানে সুশাসন নিশ্চিত করতেই হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

শুক্রবার ঢাকা আসছেন ভারতের সেনাপ্রধান

স্টাফ রিপোর্টার :  সেনাপ্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হকের আমন্ত্রণে ঢাকা আসছেন ...

কুমিল্লা ও সুনামগঞ্জে বৃহস্পতিবার ব্যাংক বন্ধ

স্টাফ রিপোর্টার :  জাতীয় সংসদের সুনামগঞ্জ-২ আসন ও কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন উপলক্ষে ...