ব্রেকিং নিউজ
Home | ফটো সংবাদ | নিখোঁজের ১৭ মাস পূর্ণ, মিলেনি ইলিয়াস আলীর সন্ধান, থামেনি পরিবারের কান্না

নিখোঁজের ১৭ মাস পূর্ণ, মিলেনি ইলিয়াস আলীর সন্ধান, থামেনি পরিবারের কান্না

ilias aliমোহাম্মদ আলী শিপন, বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : বিএনপি’র নির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক, সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য এম.ইলিয়াস আলী এবং তাঁর গাড়ি চালক আনসার আলী নিখোঁজের ১৭ মাস পূর্ণ হলো আজ মঙ্গলবার।  নিখোঁজ হওয়ার দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও আজও তাদের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। গত বছরের ২৩ এপ্রিল ঢাকা বনানী থেকে নিখোঁজ হন বিএনপির প্রভাবশালী নেতা ইলিয়াস আলী ও তাঁর ব্যাক্তিগত গাড়ি চালক আনসার আলী। ইলিয়াস আলীর মত একজন প্রভাবশালী উদীয়মান তরুণ রাজনীতিবিদ নিখোঁজ হওয়ার কারণ আজও জানা যায়নি। তিনি জীবিত না মৃত্যু এখনও কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারিনি। তবে দলীয় নেতাকর্মীর দাবি তিনি এখন জীবিত রয়েছেন,আবার ফিরে আসবেন তাদের মাঝে।
প্রভাবশালী উদীয়মান তরুণ রাজনীতিবিদ ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে রাজপথে নেমে আসেন দলের নেতাকর্মীসহ সর্বস্থরের মানুষ। মিছিল, মিটিং, সভা, সমাবেশ, সড়ক অবরোধ, হরতাল, মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়। ইলিয়াসের সন্ধানের দাবিতে উত্তাল হয়ে উঠে সারা দেশ। এসব কর্মসূচীতে একে একে ৮টি তাজা প্রাণ হারিয়ে গেল। এখনও ইলিয়াসের সন্ধান দাবিতে হরতাল,মানববন্ধন, সভা-সমাবেশ ও দোয়ামাহফিল অব্যাহত রয়েছে।
ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার পেছনের কারণ আজও জানাতে পারেনি কেউ। সাধারণ মানুষের একটাই প্রশ্ন ইলিয়াস আলী ও তাঁর গাড়ি চালক আনসার আলীর সন্ধান কি আর পাওয়া যাবে ? নাকি কি বিএনপি নেতা চৌধুরী আলম, চট্টগ্রামের জামাল উদ্দিন ও যুবলীগ নেতা লিয়াকত হোসেনের মতো হারিয়েই যাবেন? এক ইস্যুতে অন্য ইস্যু চাপা পড়ার মতো ধীরে ধীরে অন্ধকারে হারিয়ে যাবে ইলিয়াস ইস্যুও। ইলিয়াসকে খুঁজে বের করতে কোন তৎপরতাও এখন আর মত লক্ষ করা যায় না। ইলিয়াসের বর্তমান অবস্থা জানতে চান তাঁর জন্মস্থান বিশ্বনাথবাসি।
নিখোঁজের ঘটনার পর সারা দেশে পাঁচদিন হরতাল পালন করা হয়। হরতালে সারা দেশের ন্যায় ইলিয়াস আলীর নিজ এলাকা বিশ্বনাথ ছিল উত্তাল। গত বছরের ২৩ এপ্রিল বিশ্বনাথে স্বরণকালের ভয়াবহ সংঘর্ষে গুলিতে নিহত হয় মনোয়ার, সেলিম ও জাকির নামের তিন যুবক। আহত হন  আরোও অনেকই। সর্বশেষ গত ৩ সেপ্টেবর তাঁর জন্মস্থান বিশ্বনাথে অর্ধদিবস হরতার পালন করে বিএনপি।
গত বছরের ২২ ও ২৩ এপ্রিলের সংঘর্ষের ঘটনায় বিশ্বনাথে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের আসামী করে দায়ের করা হয় ৬টি মামলা। এসব মামলায় উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মী ও অনেক সাধারণ মানুষসহ প্রায় ১১হাজার মানুষকে আসামী করা হয়। চার ইউপি চেয়ারম্যানসহ শতাধিক নেকাকর্মী কারাবরণ করেন। সহিংতার ঘটনায় দায়েরকৃত একটি মামলায় বর্তমানে বিএনপির ৯০ নেতাকর্মী কারাগারে রয়েছেন। ইতিমধ্যে ছয়টি মামলার তদন্ত শেষে অভিযোগপত্র থানা পুলিশ আদালতে দাখিল করে। এতে বিএনপি-জামায়াতের কয়েক শত নেতাকর্মীকে অভিযুক্ত করা হয়।
নিখোঁজ হওয়ার দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও তাদের কোন সন্ধান না পাওয়ায় ইলিয়াস আলীর নিজ জন্মভূমি বিশ্বনাথ উপজেলাবাসীর মধ্যে বিরাজ করছে হতাশা। কিন্ত শেষ হচ্ছে না অপেক্ষার প্রহর। কবে শেষ হবে এই অপেক্ষার পালাক, কবে ফুঁটবে ইলিয়াস আলী ও আনসার আলীর পরিবারের মুখে হাসি এই ঘুরপাক খাচ্ছে সর্বত্র। তবুও নিখোঁজ ইলিয়াস আলীর অপেক্ষায় অধির আগ্রহে অপেক্ষা করছেন তার পরিবার, নিজ দলের নেতাকর্মীরা ও বিশ্বনাথের সর্বস্থরের মানুষ।
এদিকে,স্বামীর খোঁজে দিশেহারা ইলিয়াসের স্ত্রী তাহসিনা রুশদি লুনা। পিতাকে ফিরে পাবার আশায় বুকে পাথর বেঁধে দিন যাপন করছে ইলিয়াসের পুত্র আবরার ইলিয়াস, লাবিব সারার ও মেয়ে সাইয়ারা নাওয়াল। পরিবারের একটাই দাবি তারা যে কোন মূল্যে ইলিয়াস আলী ও তাঁর গাড়ী চালক আনছার আলীকে অক্ষত এবং সুস্থ অবস্থায় তাদের মাঝে ফিরে পেতে চান।
বুক ভরা আশা নিয়ে এখনও ছেলের অপেক্ষায় আছেন নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর মাতা সূর্য্যবান বিবি (৮৫)। আগের মত কান্নায় ভেঙ্গে পড়লেও চোঁখ দিয়ে পানি আসছে না। ছেলের জন্য কাঁদতে কাঁদতে চোঁখের পানি শুকিয়ে গেছে। তারপর ছেলের জন্য অপেক্ষার প্রহর গুণছেন। কবে ঘরে আসবে আদরের ছেলে ইলিয়াস আলী। সূর্য্যবান বিবির চার ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে ইলিয়াস আলী চর্তুথ। ছেলেদের মধ্যে ইলিয়াস আলী দ্বিতীয়। তিনি ছিলেন সূর্য্যবান বিবির আদরের ধন। ইলিয়াস আলীও মাকে খুব ভাল বাসতেন। রাজনীতির কারনে ব্যস্ত থাকলেও সময়ে খোঁজ নিতেন মাতা সূর্যবান বিবির। সুযোগ পেলে ছুটে যেতেন গ্রামের বাড়ির বিশ্বনাথে রামধানায়। সর্ব শেষ গত বছরের ১৬ এপ্রিল বাড়িতে গিয়েছিলেন ইলিয়াস আলী। প্রতিবার বাড়িতে গেলে বিদায় বেলায় সূর্যবান বিবি তাকে আদার করেন,মাথায় হাত বুলিয়ে দেন। কিন্তু শেষবার ইলিয়াস আলীকে সেভাবে বিদায় দিতে পারেননি তিনি। এ দিনটি ঘটে সেই দুঃস্বপ্নের ঘটনাটা। তাই ১৭ তারিখটা যেন বিভাষিকাময় হয়ে গেছে সূর্যবান বিবির কাছে। কারণ, গত বছরের ১৭ এপ্রিল ঢাকা থেকে নিখোঁজ হন তার আদরের ছেলে বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী। কবে শেষ হবে ইলিয়াস আলীর মায়ের প্রতিক্ষার প্রহর? ঘরে বসে পথ পানে নির্বাক চেয়ে থাকা? ইলিয়াস আলীর স্নেহময়ী মায়ের মুখে কখন ফুটবে হাসি? নিখোঁজের ১৭ মাস “নিখোঁজ রহস্যে”র কুলকিনার না হওয়ায় একেবারেই ভেঙ্গে পড়েছেন ইলিয়াস আলীর মা সূর্যবান বিবি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মদনে সিএনজি অটো রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের কমিটি গঠন

সুদর্শন আচার্য্য, মদন (নেত্রকোণা) ঃ নেত্রকোণা মদন উপজেলায় মিশুক, সিএনজি, অটো রিক্সা ...

মদনে হানাদারমুক্ত দিবস পালিত

সুদর্শন আচার্য্য, মদন (নেত্রকোণা)ঃ নেত্রকোণা মদনে উপজেলা প্রশাসন ও মুক্তিযুদ্ধ সংসদ কমান্ডের ...