ব্রেকিং নিউজ
Home | আন্তর্জাতিক | নারী দিবসে প্রতিষ্ঠিত নারীদের ভাবনা

নারী দিবসে প্রতিষ্ঠিত নারীদের ভাবনা

স্টাফ রিপোর্টার, ৮ মার্চ, বিডিটুডে ২৪ডটকম : নারীর অধিকার বাস্তবায়নের জন্য অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশেও পালন করা হয় আন্তর্জাতিক নারী দিবস।

দিবসটির পেছনে রয়েছে নারী শ্রমিকের অধিকার আদায়ের সুদীর্ঘ সংগ্রামের ইতিহাস।

১৮৫৭ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে সুতা কারখানার নারী শ্রমিকরা মজুরিবৈষম্য, কর্মঘণ্টা ও কাজের পরিবেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে রাস্তায় নেমেছিলেন। সেই থেকে প্রতিবছর এ দিন নারী দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

দিনটি পালনের মূল লক্ষ্য হচ্ছে- নারীর প্রতি শ্রদ্ধা ও সম্মান জানানো এবং নারীদের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন।

দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশে নারী সাংবাদিকতার অগ্রদূত ও বেগম পত্রিকার সম্পাদক নূরজাহান বেগম বলেন, ‘প্রতি বছর এই দিনটিতে পৃথিবীর উন্নত দেশগুলোর মেয়েরা তাদের সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে আলাপ-আলোচনা করার জন্য মিলিত হয়। বাংলাদেশের মেয়েরাও তাদের সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধা ও উন্নয়ন বিষয়ে আলোচনার জন্য মিলিত হন। আমি বাংলাদেশের মেয়েদের অনেক অগ্রগতি দেখে যেতে পারছি, এটা আমার জন্য অনেক আনন্দের।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন আমাদের সামনে যে সমস্যাগুলো আছে, তা সমাধান করা কঠিন বলে আমি মনে করি না। সমাজ ও রাষ্ট্রের উন্নয়ন করতে হলে সবার আগে নারীর ক্ষমতায়ন একান্ত প্রয়োজন। আমাদের যুগে নারীদের সকল প্রকার উন্নয়ন কাজ নিষিদ্ধ ছিল। এখন আর সে সমস্যা নেই। নারীদের একটি সমস্যাই আমার কাছে প্রকট মনে হয়, তা হচ্ছে গ্রামের বোনদের জীবন-যাপন খুব কষ্টকর। এ থেকে মুক্তি পেতে হলে সবার আগে প্রয়োজন শিক্ষা। আমার মনে হয় শিক্ষার মাধ্যমে বাংলার নারী সমাজ জেগে উঠবে। নারী দিবসে বাংলার নারীদের দুর্দশা থেকে মুক্তি কামনা করি।’

বিএনপির সংরক্ষিত আসনের নারী এমপি নিলোফার চৌধুরী মনি বলেন, ‘বাংলাদেশের যে নারীরা দুঃখ দুর্দশায় আছে তাদের প্রতি আমার সমবেদনা এবং বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে হামলা- মামলার শিকার নারীদের প্রতিও আমার সমবেদনা। যারা ভালো আছেন তাদের অভিনন্দন।’

তিনি আরও বলেন, ‘উন্নয়নশীল দেশে নারীদের রাজনৈতিকভাবে সচেতন হওয়া উচিত। তাহলে দেশ উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর হবে এবং সেই সঙ্গে নারী জাগরণে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছতে পারবে।’

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘রাজনীতিতে নারীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে। এ পথে ভয়-আতঙ্ক দুটোই আছে। সেই সঙ্গে পারিবারিক বাধাও আছে। মাঠ পর্যায়ে নারীদের অংশগ্রহণ না বাড়লে নিজেদের অধিকার পুরোপুরি আদায় হবে না।’

বাংলাদেশের প্রথম নারী হিসেবে এভারেস্টজয়ী নিশাত মজুমদার বলেন, ‘৮ মার্চ নারীর জন্য বড় অর্জন। বিশ্বের সব বড় অর্জনে নারীরা পুরুষের পাশাপাশি সমানভাবে কাজ করেছে। আমাদের দেশের নারীরাও সামাজিক, রাষ্ট্রীয় সব ধরণের আন্দোলনে সমানভাবে অংশগ্রহণ করছে। বর্তমানে নারীরা পরিবারে ও সমাজে সিদ্ধান্ত দিতে পারছে। স্বাধীনভাবে মতো প্রকাশ করতে পারছে। তবে নারীদের যেনো কটাক্ষ বা ছোট করে না দেখে সেদিকে নারীকে খেয়াল রাখতে হবে। তাহলে আমরা অনেক দূর এগিয়ে যাব।’

প্রমীলা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সালমা খাতুন বলেন, ‘অন্যান সেক্টরের মতো নারীরা খেলার দিকে মনোযোগী হচ্ছে। ক্রিকেটে সব ধরনের পরিবারের মেয়েরা অংশ নিচ্ছে। খেলায় নারীদের অংশগ্রহণ আরও বাড়ুক এটাই প্রত্যাশা করি।’

১৯১০ সাল থেকে নারীদের অধিকার আদায়ে দিনটি পালন করা হচ্ছে জানিয়ে হিল উইম্যান ফেডারেশনের সভাপতি চঞ্চনা চাকমা বলেন, ‘এই দিবসকে সামনে রেখে আমি চাই আদিবাসী নারীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে যেনো নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়। সাম্প্রতিক সময়ে পার্বত্য চট্রগ্রামসহ সমগ্র বাংলাদেশে নারীর প্রতি যে সহিংসতা হয়েছে তার যেনো সঠিক বিচার হয়।’

x

Check Also

‘গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশন ইন স্পেন’ নির্বাচনে মুজাক্কির – সেলিম প্যানেল বিজয়ী

জিয়াউল হক জুমন, স্পেন প্রতিনিধিঃ সিলেট বিভাগের চারটি জেলা নিয়ে গঠিত গ্রেটার ...

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান, পর্তুগালঃ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার ...