Home | ফটো সংবাদ | ‘নাগরিক আইন দেশের সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক’

‘নাগরিক আইন দেশের সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক’

স্টাফ রিপোর্টার :  বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, সব কিছুর মূলে হচ্ছে গণতন্ত্র। সকল দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজন করতে হবে। সেই নির্বাচনী জয়ী সরকারই প্রকৃত নাগরিক আইন প্রণয়ন করতে পারে। বিনা ভোটে নির্বাচিত সরকার কর্তৃক নাগরিকের মত জনগুরুত্বপূর্ণ আইন প্রণয়ন কখনোই বৈধ ও কল্যাণকর হবে না। শনিবার দুপুরে সিলেট নগরীর মেন্দিবাগস্থ একটি হোটেলের কনফারেন্স হলে সিলেট মহানগর বিএনপি আয়োজিত সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইনের সভাপতিত্বে সেমিনারে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান আরো বলেন, দেশের সব আইন জনগণের ভালোর জন্য তৈরি করা হয়। এই আইন দেশের সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক আইন। সমস্যা সমাধানের জন্যই আইনের সৃষ্টি হলেও এই নাগরিকত্ব আইন নতুন করে নানা সমস্যার সৃষ্টি করবে।

জনগণ সরকারের প্রহসনের ভোটারবিহীন নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করায় জনগণের উপর প্রতিশোধ নিতেই এমন নাগরিক কালো আইন করা হচ্ছে। জনমত যাচাই না করে এমন আইন প্রণয়ন জনগণ কখনোই মেনে নিবে না। এই আইনের বিরুদ্ধে জনগণকে সাথে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমেই এই আইন বাতিল করতে সরকারকে বাধ্য করতে হবে।

বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সাবেক সভাপতি এডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, নাগরিকত্ব আইন-২০১৬ একটি কালো আইন। এই আইন সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক। প্রবাসী বাংলাদেশীরা এই সরকারের প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রবাসে কর্মসূচী পালন করায় প্রবাসীদের উপর প্রতিশোধ নিতেই প্রবাসীদের অধিকার হরনের এই আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। অনির্বাচিত সরকার এ ধরনের আইন প্রণয়নের কোন অধিকার রাখে না। এ কালো আইনের বিরুদ্ধে জনমত সৃষ্টি করে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

প্রাইভেটাজাইশন কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ইনাম আহমদ চৌধুরী বলেন, এ আইনের কারণে নাগরিকরা সমান অধিকার থেকে বঞ্চিত হবেন। বিশেষ করে রেমিটেন্স আসা বন্ধ হয়ে যাবে। যার কারণে দেশ অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, বর্তমান সরকার ‘বাংলাদেশ নাগরিক আইন’ নামে একটি কালো আইন তৈরি করছে। যার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে বিএনপিকে দমিয়ে দেয়া। কিন্তু এ আইনে দেশের মানুষেরই ক্ষতি হবে। প্রবাসীরা হারাবে নাগরিকত্ব। আর জনগণ বিরোধী এ আইন সরকারের পতন ঘটাবে। এ আইনে প্রবাসীদের তৃতীয় শ্রেণির নাগরিকে পরিণত করা হচ্ছে। যার কারণে দেশের অগ্রগতির অন্যতম দাবিদার প্রবাসীরা সর্বোচ্চ ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রো-ভিসি এ এফ এম ইউসুফ হায়দার, বিএফইউজে’র সাবেক সভাপতি রুহুল আমীন গাজী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক নকিব মো. নসরুল্লাহ, সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. সাজেদুল করীম, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হাসান জীবন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

শুক্রবার ঢাকা আসছেন ভারতের সেনাপ্রধান

স্টাফ রিপোর্টার :  সেনাপ্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হকের আমন্ত্রণে ঢাকা আসছেন ...

কুমিল্লা ও সুনামগঞ্জে বৃহস্পতিবার ব্যাংক বন্ধ

স্টাফ রিপোর্টার :  জাতীয় সংসদের সুনামগঞ্জ-২ আসন ও কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন উপলক্ষে ...