ব্রেকিং নিউজ
Home | খেলাধূলা | দুরন্ত নাদালের দুর্দান্ত জয়

দুরন্ত নাদালের দুর্দান্ত জয়

স্পোর্টস ডেস্ক: (ঢাকা, ১০ সেপ্টেম্বর)- ইউএস ওপেন ২০১৩ এর পুরুষ এককে শিরোপা জিতেছেন রাফায়েল নাদাল। প্রায় পৌনে ঘন্টার দীর্ঘ ম্যাচে তিনি হারিয়ে দিয়েছেন টেনিসের নাম্বার ওয়ান নোভাক জোকোভিচকে। এর আগে নারী এককের ফাইনালে বেলারুশের ‘টেনিস গ্ল্যামার’ ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কাকে হারিয়ে শিরোপা জিতেন ব্ল্যাক বিউটি সেরেনা উইলিয়ামস।

 

ফ্লাশিং মিডোজের দর্শকে ঠাসা গ্যালারি হয়তো শুরুতে বুঝতেই পারেনি, কতোটা দীর্ঘ সময় তাদের বসে থাকতে হবে। তবে ম্যাচের প্রথম সেটটি শেষ হতেই যখন ৪২ মিনিট লাগলো, ততক্ষণে হয়তো দর্শকদের বোঝা হয়ে গেছে! টেনিস সৌন্দর্য আর অনিশ্চয়তার সব প্রদর্শনীতে ভরপুর ম্যাচটি বিশ্ব টেনিসের দ্বিতীয় সেরা তারকা রাফায়েল নাদাল জিতে নেন ৬-২ ৩-৬ ৬-৪ ৬-১ সেটে।

 

এ জয়ের মাধ্যমে দ্বিতীয়বার ইউএস ওপেনের শিরোপা জিতলেন এই স্প্যানিয়ার্ড তারকা। এর আগে ২০১০ সালেও ইউএস ওপেনের ট্রফি উচিয়ে উল্লাস করার সৌভাগ্য হয়েছিলো তার। সব মিলিয়ে ১৩টি গ্রান্ডস্লাম শিরোপা জিতে রজার ফেদেরারের ১৭টি শিরোপা জয়ের রেকর্ডের আরো কাছাকাছি চলে গেলেন ঝাকড়া চুলের এই ‘আধুনিক’ টেনিস খেলোয়াড়। শুধুমাত্র ২০১৩ সালেই দশটি শিরোপা জেতা নাদাল হয়তো খুব তাড়াতাড়িই সবাইকে ছাড়িয়ে চলে যাবেন অস্পৃশ্য উচ্চতায়।

 

প্রায় পাঁচ ঘন্টার ম্যাচটি জয় করা রাফায়েল নাদালের জন্য বিশাল চ্যালেঞ্জ এবং অবশ্যই পরিশ্রমের। তিনি ম্যাচের আগেই বলেছিলেন, “জোকোভিচ স্পেশাল, তার সাথে জমজমাট এক লড়াই হবে।” বাস্তবেই তা হয়েছে। তবে নাদালের ধারণার চেয়েও বেশি কঠিন প্রতিপক্ষ ছিলেন জোকোভিচ। এটি মনে হচ্ছে ম্যাচ শেষে নাদালের উক্তি শুনে।

 

ম্যাচ জয়ের পর নাদাল বলেন, “ভয়াবহ কঠিন ম্যাচ ছিলো এটি। তবে প্রথম কথা হলো, জিততে পেরে আমি খুবই আবেগাপ্লুত। আমার সাথে যারা থাকেন, তারা জানেন এই জয় আমার কতোটা প্রয়োজন ছিলো। আর নোভাকের সাথে খেলা বিশেষ কিছু। ও যতোটা আটকে রাখে আমাকে, তা আর কেউ পারে না। নোভাককে অভিনন্দন! আশা করি ক্যারিয়ার শেষে সে হবে পৃথিবীর সেরা টেনিস খেলোয়াড়দের একজন।”

 

নাদাল আরো বলেন, “নোভাকের বছরটি দারুণ যাবে।” ২০১০ সালের চ্যাম্পিয়ন নাদাল ২০১৩ সালে হার্ড কোর্টে খেলা একটি ম্যাচও হারেননি। ২১ ম্যাচের প্রতিটিতেই প্রতিপক্ষকে পরাস্ত করেছেন তিনি। ফাইনালের দারুণ জয়ে নাদাল তার হার্ড কোর্টে অপরাজিত থাকার রেকর্ডকে ২২এ উন্নীত করলেন।

 

ইউএস ওপেনের এই আসরে হেরে যাওয়া কোনো খেলোয়াড়কেই খুব একটা আফসোস করতে দেখা যাচ্ছেনা! ব্যাতিক্রম কিছু ঘটেনি নোভাকের ক্ষেত্রেও। নাদালের সাথে খেলার অভিজ্ঞতা কেমন, হারের পর এমন বেরসিক প্রশ্নেও বিশেষ কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাননি নোভাক। হাসতে হাসতে বলেছেন সেই পুরোনো কথাই, “নাদাল গ্রেট খেলোয়াড়। ফাইনালে সে-ই ফেবারিট ছিলো। তবে এই ম্যাচে হেরে যাওয়াটা কষ্টের। আমি নাদালকে অভিনন্দন জানাই। সামনের বছর আরো দৃঢ়তা ফিরে আসবো আমি।”

 

বিশ্ব টেনিসের বর্তমান নাম্বার ওয়ান সার্বিয়ান এই তারকার ফিরে আসার ক্ষমতা অবশ্যই আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

প্যারিসে এখনো বাসা পাননি মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক: বেশ কয়েক দিন হলো পরিবার নিয়ে প্যারিসে পাড়ি জমিয়েছেন লিওনেল ...

সেমির প্রতিপক্ষ কলম্বিয়ার বিপক্ষে কেমন খেলেন মেসি?

স্পোর্টস ডেস্ক: চলতি কোপা আমেরিকায় নিজ দল আর্জেন্টিনাকে নিয়ে রীতিমতো উড়ছেন অধিনায়ক ...