ব্রেকিং নিউজ
Home | বিবিধ | কৃষি | দিনাজপুরে লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

দিনাজপুরে লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

Dinajpur-Lichu Mukul 01_0006মাহিদুল ইসলাম রিপন দিনাজপুর প্রতিনিধি ঃ লিচুর জেলা হিসেবে পরিচিত ও দেশব্যাপী লিচুর জন্য বিখ্যাত দিনাজপুরে দিন দিন লিচু চাষ বাড়ছে। এখন সারা দেশে কম বেশী লিচু চাষ হলেও দিনাজপুরের লিচুর কদর আলাদা । রসালো ফল লিচু অনেকের কাছে রসগোলা হিসেবে পরিচত।এবার লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। জেলার প্রতিটি লিচু গাছের শাখায় শাখায় শোভা পাচ্ছে থোকায় থোকায় মুকুল। গাছে মুকুল আসার সাথে সাথে চাষীরা গাছ পরিচর্যা নিয়ে ব্যস্থ হয়ে পড়েছে।লিচু চাষীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিবছর দিনাজপুরের লিচু দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় সরবরাহ করা হয়ে থাকে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ও প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ না হলে এবারও দিনাজপুরে রেকর্ড পরিমাণ লিচুর ফলন হবে বলে তাদের আশা।দিনাজপুর কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের সূত্রমতে, গত ২০০৯ সালে দিনাজপুরে লিচু চাষের জমির পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৫০০ হেক্টর। ২০১০ সালে তা এসে দাঁড়ায় ১ হাজার ৭৮০ হেক্টরে, ২০১১ সালে ১ হাজার ৯৫৬ হেক্টর এবং ২০১২ সালে ২ হাজার ৫০০ হেক্টর। এর পর থেকে লিচু চাষ বাড়লেও দিনাজপুর কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের তালিকায় ২০১৪ সাল পর্যন্তু লিচু চাষের জন্য কোন জমির পরিমাণ বাড়েনি।
জেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আনোয়ারুল আলম জানান, চলতি বছরে দিনাজপুর জেলায় ২ হাজার ৫শ’ হেক্টর জমিতে লিচু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। দিনাজপুরের লিচু সুস্বাদু ও মিষ্টি হওয়ায় দেশব্যাপী এর চাহিদা রয়েছে।
দিনাজপুরের লিচুর মধ্যে চায়না থ্রি, বেদেনা, বোম্বাই ও মাদ্রাজি উলেখয্যেগ্য। আবহাওয়া অনুকূলে থাকার কারণে এবার  সকল প্রজাতির লিচুর বাম্পার ফলনের আশা করছে চাষীরা।দিনাজপুরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি বাড়ির বসতভিটায় বা আঙ্গিনার লিচু গাছে মুকুল আসতে শুরু করেছে। মুকুলের সঙ্গে ফুলে ফুলে মৌমাছির গুঞ্জন আর ঝিঁ ঝিঁ পোকার ঝিঁ ঝিঁ শব্দে এলাকা মুখরিত হয়ে উঠেছে।লিচু বাগানগুলোতে ফুল আসা থেকে লিচু আরোহণ পর্যন্তু ৩-৪ মাস লিচু বাগানের সঙ্গে সম্পৃক্তদের কর্মব্যস্তুতা বেড়ে যায়। ফুল আসার ১৫ দিন আগে এবং ফুল আসার ১৫ দিন পরে সেচ দিতে হয়। সেই অনুযায়ী গাছে মুকুল আসার সঙ্গে সঙ্গেই মুকুলকে টিকিয়ে রাখতে লিচু চাষী ও ব্যবসায়ীরা স্প্রে করতে শুরু করেছে। এছাড়া মুকুল গাছ থেকে ঝড়ে না পড়ে সেজন্য গাছের গোড়ায় নিয়মিত পানি ও সার সরবরাহ করছে।দিনাজপুরের যেসব স্থানে লিচু চাষ হয় তার মধ্যে বিরলের মাধববাটী ও সদরের মাসিমপুর উলেখযোগ্য। বিরল উপজেলার মাধববাটী দিনাজপুর সদর থেকে প্রায় ৯ কিঃমিঃ পশ্চিমে এবং মাসিমপুর  সদর উপজেলা থেকে প্রায় ২ কি:মি: পূর্ব দিকে অবস্থিত।লিচু চাষী মামুন জানান, লিচুর মুকুল আসার ১৫ দিন আগে থেকেই  শুরু করে দিতে হয় পরিচর্যা। নিয়মিত স্প্রে ও সেচ দেওয়া শুরু হয়েছে। লিচু গাছ গুলোতে মুকুল আসতেই রাজশাহী, রংপুর, চট্রগ্রাম, ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকার লিচু ব্যবসায়ীরা আসতে শুরু করেছেন। তারা আগাম লিচু বাগান ক্রয় করছেন অধিক লাভের আশায়।  দিনাজপুর কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা সাফয়েত হোসেন জানান, কৃষি কর্মকর্তারা চাষীদের নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে আসছে। কোন সময়ে কোন কীটনাশক, বালাইনাশক ব্যবহার করা উচিত সে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। তিনি আারো জানান, এবছর যে পরিমানে লিচুর মুকুল এসেছে আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে বাম্পার ফলন হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

দিনাজপুরে প্রতিমন ধান বিক্রি করে মিলছে একজন শ্রমিক !

দিনাজপুর প্রতিনিধি :  উত্তরের শষ্যভান্ডার দিনাজপুরে ধানের ভালো ফলন পেয়েও ভালো নেই ...

দিনাজপুরে ইটভাটার বিষাক্ত ধোঁয়ায় ৫’শ একর জমির ফসল বিনষ্ট

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরে খানসামা ও বীরগঞ্জে চারটি ইটভাটার বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় ...