Home | বিবিধ | আইন অপরাধ | জয়পুরহাটে কালাইয়ে জাপা নেতার বাড়ীতে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান আটক ঃ ১০জন

জয়পুরহাটে কালাইয়ে জাপা নেতার বাড়ীতে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান আটক ঃ ১০জন

14-10-13মোঃ চঞ্চল বাবু, কালাই(জয়পুরহাট)প্রতিনিধিঃ জয়পুরহাট কালাই উপজেলার আহম্মেদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার ও জাতীয় পার্টির নেতা হারুঞ্জা গ্রামের সেকেন্দার আলীর বাড়ির গোপন ব্যাংকার থেকে ৬ তরুণীকে ডিবি পুলিশ উদ্ধার করেছে।এসময় সেকেন্দারের ৪ স্ত্রীকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ । সেকেন্দার মেম্বার পালাতক রয়েছে। ওই ৬ তরুণীর মধ্যো ৫ জনকে সেকেন্দার টাকার বিনিময়ে কিনে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তাদের দ্বারা পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করা হচ্ছিল। উদ্বারকৃত তরুণীরা  জামালপুর জেলার দারিয়াবাগ মহল­ার শামি শেখের মেয়ে ছানোয়ারা (১৬), জয়পুরহাট জেলার নতুন হাট এলাকার গোপাল চন্দ্রের মেয়ে শিখা রাণী (১৮), রাজশাহীর বাগমারার মোহনগঞ্জের  মজিবর রহমানের মেয়ে সাথী (১৯) জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল উপজেলার শাখারুঞ্জ গ্রামের আঃ ছাত্তারের মেয়ে শাপলা(১৮), জয়পুরহাট শহরের নতুনহাট এলাকার নজরুল ইসলামের মেয় নাজমা(১৭) ও ঢাকা কমলাপুরের কাশেম আলীর মেয়ে নদী। জানা যায় দীর্ঘ দিন যাবৎ সেকেন্দার আলী মেম্বার বিভিন্ন জায়গা থেকে তরুণীদের সংগ্রহ করে তাদের দ্বারা দেহ ব্যবসা করে আসছিল। উদ্বারকৃত ছানোয়ারা জানায়, সে রাগ করে বাড়ি থেকে বের হয়ে গাজিপুরে এলে জয়পুরহাটের বাবু নামের এক যুবকের সাথে পরিচয় হয় । বাবু তার বাড়িতে কাজ দিবে বলে তাকে জয়পুরহাটে এনে সেকেন্দারের নিকট  বিক্রি করে দেয়। রাজশাহীর সাথী জানায়, সে জয়পুরহাটে তার নানার বাড়িতে ছয় মাস আগে বেড়াতে এসে নতুনহাটের মালেকার সাথে পরিচয় হয়। মালেকা তাকে তার ভাইয়ের বাড়িতে বেড়ানোর কথা বলে সেকেন্দারের বাড়িতে নিয়ে যায়। তারপর তাকে ও সেকেন্দারের নিকট বিক্রি করে দেয়। নাজমা জানায়, নতুন হাটের কল্পনা তাকে তার ভাইয়ের বাড়িতে বেড়ানোর কথা বলে সেকেন্দারের বাড়িতে নিয়ে তাকেও মেম্বারের নিকট বিক্রি করে দেয়। সেকেন্দারের বাড়িটি খুবই সুরক্ষিত। তার বাড়িতেই এতদিন বন্দি করে রাখা হয় তাদেরকে। বাইরের কেউ তার বাড়িতে গেলে তাদের তরিঘরি করে ওই বাংকারে লুকিয়ে রাখা হতো। দিন রাত চব্বিশ ঘন্টা তাদের দিয়ে জোরপূর্বক দেহ ব্যবসা করানো হতো। নতুন নতুন খদ্দের আসতো তাদের কাছে। এমনকি প্রতিদিন বিভিন্ন জায়গা থেকে মেয়েদের আনা হতো। চলতো পতিতাবৃত্তি। এই তরুণীদের কোন রকম টাকা পয়সা দেওয়া হত না বলে জানা গেছে। কাজের বিনিময়ে দু বেলা জুটতো শুধু খাবার এক খদ্দের সহযোগিতায় নদী গত শুক্রবার তার বাড়ীতে গোপনে মোবাইল করে সব ঘটনা জানাই তখন নদীর পরিবার থেকে জয়পুরহাট পুলিশ সুপারের সাথে যোগাযোগ করলে পুলিশ সুপারের নির্দেশে গত ১৩ অক্টোবর রাতে ডিবি ওসির নেতৃত্বে এস আই কাইয়ুম সঙ্গীয় র্ফোস সহ পুলিশ সেকেন্দার এর বাড়ীটি ঘেরে ফেলে এবং ওই বাংকার তেকে ৬ জন তরুনী কে উদ্ধার করে এবং তার ৪ স্ত্রী কে গ্রেফতার করে এ সময় সেকেন্দার টের পেয়ে পালিয়ে যায়। ডিবি পুলিশ  কালাই থানায় তাদের কে সোর্পদ করে  একটি মামলা দায়ের শেষে গতকাল সোমবার দুপুরে জয়পুরহাট কোর্টে তাদের প্রেরন করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

শ্রীমঙ্গলে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণঃ ধর্ষক ও দুই সহযোগী গ্রেফতার, পলাতক এক

পংকজ কুমার নাগ, শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধিঃ শ্রীমঙ্গলে সপ্তম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষন ...

ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে ১০ মামলা

স্টাফ রিপোর্টার :  বকেয়া পরিশোধ না করায় ক্ষুদ্রঋণের প্রবক্তা ও বাংলাদেশের একমাত্র ...