ব্রেকিং নিউজ
Home | ফটো সংবাদ | জনসভা অভিমুখে আ.লীগ নেতাকর্মীদের ঢল

জনসভা অভিমুখে আ.লীগ নেতাকর্মীদের ঢল

স্টাফ রিপোর্টার :  ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণের বর্ষপূর্তির দিনে সেখানে আয়োজিত জনসভায় অংশ নিতে দলে দলে আসছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা।

বুধবার বেলা দুইটার দিকে জনসভা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও ইতোমধ্যে জনসভা অভিমুখে আসতে শুরু করেছেন আ.লীগের নেতাকর্মীরা। রাজধানী ঢাকা ছাড়াও আশপাশের পাঁচ জেলা গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ ও নরসিংদী থেকেও নেতা-কর্মীদেরা জনসভায় আসছেন। তারা বাসের পাশাপাশি ট্রেন ট্রাকযোগে আসছেন। জয় বাংলা শ্লোগান দিতে দিতে এবং বাদ্যযন্ত্র নিয়ে নেচে-গেয়ে আসছেন অনেকে। তাদের হাতে বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুন, অনেকের গায়ে একই রঙের টি-শার্ট, মাথায় একই রঙের ক্যাপ শোভা পাচ্ছে।

এছাড়া মহানগরীর বিভিন্ন থানা থেকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে জনসভাস্থলে যাচ্ছেন। উৎসবমুখর পরিবেশে এসব মানুষের মুখে ছিল একাত্তরের সেই বিখ্যাত ‘জয় বাংলা’স্লোগান।

সরেজমিনে দেখা যায়, আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা সুসজ্জিত পোশাকে বাস, ট্রাকযোগে ছোট ছোট মিছিল নিয়ে জনসভাস্থলে হাজির হচ্ছেন। প্রতিটি প্রবেশপথে নেতাকর্মীদের ভিড় আস্তে আস্তে বাড়ছে। কিছু সময়ের মধ্যে নেতাকর্মীদের ভিড়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ভরে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জনসভাস্থলের দিকে আসা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের হাতে লাল-সবুজের পতাকা ও বিভিন্ন সংগঠনের প্রতীকও তুলে ধরতে দেখা যায়।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ছাড়াও শাহবাগ, টিএসসি চত্বর, দোয়েল চত্বরেও মানুষের ভিড় বাড়ছে। মূল মঞ্চে মাইকে চলছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ।

জনসভার জন্য ইতোমধ্যে মঞ্চ তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। বসানো হয়েছে চেয়ার। সাজানো হয়েছে প্যান্ডেল। নিরাপত্তায় সিসি ক্যামেরাও বসানো হয়েছে ‍উদ্যানের চারপাশে। এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে ব্যানার-ফেস্টুন সাঁটানো হয়েছে। এতে ৭ মার্চভাষণের ঐতিহাসিক গুরুত্ব এবং সরকারের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে আওয়ামী লীগের জনসভাকে ঘিরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানে দেখা গেছে। জনসভাস্থলে প্রবেশ করা ছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় সন্দেহভাজনদের দফায় তল্লাশি করা হচ্ছে।

সাড়ে চার দশক আগে বাংলাদেশের স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষা যখন চূড়ান্ত পর্যায়ে, সেই ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই (তখন নাম ছিল রেসকোর্স ময়দান) ৭ কোটি বাঙালিকে যুদ্ধের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি ঘোষণা দেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম- এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’

তার ওই ভাষণের ১৮ দিন পর পাকিস্তানি বাহিনী বাঙালি নিধনে নামলে বঙ্গবন্ধুর ডাকে শুরু হয় প্রতিরোধ যুদ্ধ। নয় মাসের সেই সশস্ত্র সংগ্রামের পর আসে বাংলাদেশের স্বাধীনতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বিএনপি দলীয় প্রার্থী দুলু‌কে গুলশানের বাসা থে‌কে গ্রেপ্তার

স্টাফ রির্পোটার : বিএন‌পির সাংগঠ‌নিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু‌কে রাজধানীর গুলশানের ...

এবার রাজনীতিতে নামলেন নারী উদ্যোক্তা সেলিমা আহমাদ মেরী

স্টাফ রির্পোটার : নারী উদ্যোক্তা হিসেবে দেশের সবচেয়ে সফলদের একজন। এবার রাজনীতিতে ...