Home | সারা দেশ | ছাতকে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, গুলিবিদ্ধ ১০

ছাতকে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, গুলিবিদ্ধ ১০

ছাতক villছাতক প্রতিনিধিঃ    ছাতকে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষে পুলিশ, পথচারী, ব্যবসায়ীসহ শতাধিক লোকজন আহত হয়েছে। সোমবার রাত সাড়ে ৮টায় পৌর শহরের ট্রাফিক পয়েন্টে কালারুকা ইউনিয়নের মুক্তিরগাঁও ও ইসলামপুর ইউনিয়নের গনেশপুর গ্রামবাসীর মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পায়ে মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগাকে কেন্দ্র করে গনেশপুর গ্রামের আব্দুল কদ্দুছের পুত্র দুলু মিয়া ও মুক্তিরগাঁও গ্রামের ফজর আলীর পুত্র জাহাঙ্গীর মিয়ার মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে দু’গ্রামবাসী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। দফায়-দফায় সংঘর্ষ চলাকালে পৌর শহর রনক্ষেত্রে পরিনত হয়। এ সময় শহরের সকল ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে পড়ে। শহরে আসা লোকজন ভয়ে দিক-বিদিক ছুটাছুটি করতে থাকে। উভয় গ্রামবাসী প্রতিপক্ষকে লক্ষ্য করে বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পাশাপাশি দু’পক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময়ও হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রনে আনার আপ্রান চেষ্টা চালিয়ে বার-বার ব্যর্থ হয়েছে। উভয় গ্রামবাসী শক্তি সঞ্চয় করে দফায়-দফায় সংঘর্ষ চালিয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে শহরের অর্ধশতাধিক দোকানপাটে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। রাত ১২টা পর্যন্ত সংঘর্ষ দু’গ্রামবাসীর মধ্যে দফায়-দফায় সংঘর্ষ চলতে থাকে। সুনামগঞ্জ থেকে এএসপি আমিনুল ইসলাম সরকারের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। সংঘর্ষে গুরুতর আহত আব্দুল হেকিম, সেলিম, ইজাজুল, জাহাঙ্গীর, নুরুল, মিনহাজ, বুলাই, আব্দুর রশিদ, নুর হোসেন, জাবেদ আহমদ, সাদেকসহ ২০জনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশের এসআই সাইফুল, এসআই গোলাম মোস্তফা, এসআই আব্দুর রশিদ সরকার, এসআই আহমেদ মঞ্জু মুর্শেদ, কনেষ্টেবল কামরুল হাসান, কনেষ্টেবল অমিতাবসহ উভয়পক্ষের মনিরুজ্জামান, সুহেল আহমদ, রিয়াজ উদ্দিন, আক্তার হোসেন, ছালেক, জাবেদ হোসেন, ছাদিক, জয়নাল, শাওন, সাবুল, মালেক, বিলাল, শাহিন, সাইফুল, জাকির, ইকবাল, ফজলু মিয়া, মঞ্জু, রাসেল, কালাশাহ, বাবুল, রাজু, সানি, মিজানুর রহমান, ইব্রাহিম, আজির, ছুরাব, পিয়ারা মিয়া, বিরাজ উদ্দিন, আব্দুল মুকিম, ফয়ছলসহ শতাধিক লোক আহত হয়। আহতদের সিলেট, ছাতক, কালারুকা হাসপাতাল ও বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে কয়েকজন গুলিবিদ্ধও রয়েছেন। শহরবাসীর অভিযোগ টানা প্রায় ৪ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষের ঘটনা এর আগে কখনো ঘটেনি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উপস্থিত থেকেও ম্যাজিষ্ট্রেসি ভূমিকা পালন না করার কারনেই এ সংঘর্ষ দীর্ঘস্থায়ী ও ধ্বংস লীলা ঘটেছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

পুলিশকে মারধর করে ছাত্রলীগ পরিচয় দিল ৩ কলেজছাত্র

স্টাফ রিপোর্টার :  বরিশালে ট্রাফিক পুলিশ কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগে ছাত্রলীগ নামধারী ৩ ...

গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতি মারাত্নক অবনতি

সুমন কুমার বর্মন, গাইবান্ধা প্রতিনিধি :  বন্যার পানি অব্যাহতভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় গাইবান্ধায় ...