ব্রেকিং নিউজ
Home | আন্তর্জাতিক | গোলাম আযমের সাক্ষী সুরকার বুলবুলের ভাইকে হত্যা

গোলাম আযমের সাক্ষী সুরকার বুলবুলের ভাইকে হত্যা

স্টাফ রিপোর্টার, ১০ মার্চ, বিডিটুডে ২৪ডটকম : যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমির গোলাম আযমের সাক্ষী, সুরকার ও গীতিকার আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের ছোট ভাই মিরাজ আহমেদের (৫৫) লাশ উদ্ধার করেছে খিলক্ষেত থানা পুলিশ।

শনিবার রাত ১ টার দিকে রাজধানীর কুড়িল ফ্লাইওভারের পাশে থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। মিরাজ আহমেদ গাড়ি ও মোবাইল ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি অবিবাহিত। পল্লবীর আরিফাবাদে বড় বোন রোখসানা তানজিন মুকুলের বাসায় থাকতেন তিনি।

তিন ভাই ও দুই বোনের মধ্যে মিরাজ আহমেদ ছিলেন সবার ছোট। নিহতের বাবা শহীদ আফাজ উদ্দিন। বড় ভাই আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলও একজন মুক্তিযোদ্ধা।

খিলক্ষেত থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাত ১টার দিকে খিলক্ষেত খেজুর বাগানের উল্টো পাশের কুড়িল ফ্লাইওভারের পূর্ব পাশ থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। ওই স্থানটি রেললাইনের মধ্যে পড়েছে। রাতে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সম্প্রতি আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে গোলাম আযমের বিরুদ্ধে সাক্ষী দিয়েছিলেন।

রোববার সকালে নিহতের লাশ বড় ভাই আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মগবাজার আউটার সার্কুলার রোডের গ্রিন অ্যাস্ট্রোলজাল বাসভবনের নিচে পুলিশ নিয়ে আসে। এ সময় পরিবারের সদস্যরা মিরাজের লাশ দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

এর আগে নিহতের বড় বোন রোখসানা তানজিন মুকুল বলেন, ‘শনিবার সকাল এগারটার দিকে মিরাজ ঘুরতে যাবে বলে পল্লবীর বাসা থেকে বের হয়। যাওয়ার সময় জানায়, বিকেলে ধানমণ্ডির রবীন্দ্র সরোবরে যাবে এবং সেখানে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা শেষে বসুন্ধরা সিনেপ্লেক্সে একটি ইংলিশ মুভি দেখে রাত এগারটার মধ্যে বাসায় ফিরবে।’

মুকুল আরও বলেন, ‘ও (মিরাজ) বাসা থেকে বের হওয়ার পর পুরোদিনে আমি আর ফোন দেইনি। রাত এগারটার পেরিয়ে গেলে ডাইনিংয়ে খাবার নিয়ে বসে থেকে দেখি ঘড়ির কাটা বারোটা পেরিয়ে গেছে। তখন ওর মোবাইলে কল দিই। এসময় একজন অপরিচিত পুরুষ কল ধরলে আমি ভাইয়ের খবর নেই। তখন অপরপ্রান্ত থেকে বলা হয়- তিনি খিলক্ষেত থানার এসআই ফেরদৌস পরিচয় দিয়ে বলেন-আপনার ভাই থানায় তাকে নেয়ার জন্য কোন পুরুষ মানুষকে পাঠান।’

তাদের ভাগ্নে আনোয়ারুল আজিম রাতে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ সনাক্ত করেন।

মিরাজ আহমেদের বড় বোন জানান, ‘পুলিশের এ ধরনের কথা শুনে আমি বুলবুলকে ফোন দিই। এরপর সে ভাইয়ের মৃত্যু সংবাদ দেয়।’ তবে মিরাজ আহমেদের ব্যক্তিগত জীবনে কোন শত্রু ছিল না বলে জানান তিনি।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল বলেন, ‘মিরাজের সঙ্গে কারো কোন দ্বন্দ্ব ছিল না। তবে যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠনের পর আমার সাক্ষ্য দেয়াতে এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে বলে সন্দেহ করছি।’

বুলবুল আরও বলেন, ‘আমাদের পুরো পরিবার অনেকটা রক্ষণশীল। তাই চেনা-জানা না হলে বাইরের লোকজনের সঙ্গে কারো খুব একটা মেলামেশা নেই। ওর (মিরাজ) বিরুদ্ধে কারো কোন অভিযোগ নেই।’

আক্ষেপের সুরে এ গীতিকার বলেন, ‘সাক্ষ্য দেয়ার আগে আমরা ট্রাইব্যুনালের কাছে নিরাপত্তা দাবি করেছিলাম। ট্রাইব্যুনাল কোন ধরনের নিরাপত্তা না দিয়ে বাসায় থাকতে পরামর্শ দিয়েছিল। কিন্তু আমি বাসায় থেকে কি লাভ হল- ভাইকে তো হারিয়ে ফেললাম।’

এ ঘটনায় আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল লাশ ময়নাতদন্তের পর সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা করবেন।

খিলক্ষেত থানার উপ পরিদর্শক গোলাম ফারুক লাশের সুরতহাল প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, আহমেদ মিরাজের মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আঘাতের স্থান থেকে রক্ত বেরিয়ে ডান কান ও ডান চোখ বেয়ে মুখে পড়েছে।

এ পুলিশ কর্মকর্তা জানান, নিহত ব্যাক্তিকে নেশা জাতীয় কোনো কিছু পান করানো হয়েছে কিনা সে বিষয়টি নিশ্চিত হতে পরীক্ষার জন্যে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

x

Check Also

‘গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশন ইন স্পেন’ নির্বাচনে মুজাক্কির – সেলিম প্যানেল বিজয়ী

জিয়াউল হক জুমন, স্পেন প্রতিনিধিঃ সিলেট বিভাগের চারটি জেলা নিয়ে গঠিত গ্রেটার ...

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সাথে পর্তুগাল আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা

আনোয়ার এইচ খান ফাহিম ইউরোপীয় ব্যুরো প্রধান, পর্তুগালঃ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার ...