Home | শিক্ষা | কুড়িগ্রামের উলিপুর গুনাইগাছ ডিগ্রী কলেজে ব্যাপক অনিয়ম ও দূনীর্তি কোর্টে মামলা দায়ের

কুড়িগ্রামের উলিপুর গুনাইগাছ ডিগ্রী কলেজে ব্যাপক অনিয়ম ও দূনীর্তি কোর্টে মামলা দায়ের

রোকনুজ্জামান মানু, উলিপুর কুড়িগ্রামঃ কুড়িগ্রামের উলিপুর গুনাইগাছ ডিগ্রী কলেজের নিয়োগের নামে কোটি টাকার বাণিজ্য হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ অপকর্ম বিভিন্ন পত্র পত্রিকা প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে ঘটনাটি টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়েছে। এ নিয়োগ বাণিজ্যের সাথে সম্পৃক্ত সকলের ঘুম হারাম হয়েছে। তারা নিজেদের ব্যাপক অনিয়ম দূর্নীতির ঢাকতে বিভিন্নভাবে ভোঁদৌড় দিচ্ছেন। জানা গেছে, উলিপুর গুনাইগাছ ডিগ্রী কলেজের উপাধক্ষ পদে পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলে মোট ৬ জন প্রার্থী আবেদন করেন। অধ্যক্ষ জাহেদুল ইসলাম, দাতা সদস্য আঃ খালেক, ক্বারী হাবিবুর রহমান ও গভর্নিং বডির সভাপতি আমিনুল ইসলামের যোগসাজসে জাহাঙ্গীর আলম নামের এক আবেদন কারীকে তার আবেদন পত্র প্রত্যাহার করে নেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি করে আসছে। এমতাবস্থায় ঐ আবেদনকারী চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।
বিভিন্ন তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, নিয়োগ বাণিজ্য করে কলেজের দাতা সদস্য তার নিজ নামে টাকার পাহার গড়ে তুলেছেন। তার নামে-বেনামে বিভিন্ন স্থানে জমি ক্রয়সহ ইসলামী ব্যাংক কুড়িগ্রাম, শাখায় ১৫ লক্ষ টাকা ১০ বছরের একটি ফিক্সড ডিপোজিড করে রেখেছে। আরো জানা যায়, প্রভাষক পদে চাকুরী দিতে চেয়ে ইতোমধ্যে জিয়াউল হক জিয়ার নিকট ৩ লক্ষ টাকা কৃষ্ণমঙ্গলের শামীমের স্ত্রীর নিকট ৪ লক্ষ টাকা এবং একই কলেজের অফিস সহকারী মানিকের স্ত্রীর নিকট ১ লক্ষ টাকা, প্রভাষক জাহাঙ্গীর আলমের নিকট ১ লক্ষ ৫০ হাজার, প্রভাষক মিজানুর রহমানের নিকট ৫ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, প্রভাষক হারুনের নিকট ৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা অধ্যক্ষ জাহেদুল ইসলাম, দাতা সদস্য আঃ খালেক ক্বারী হাবীবুর রহমান ও গভর্নিং বর্ডির সভাপতি আমিনুল ইসলাম ডোনেশনের নাম করে বিভিন্নভাবে অর্থ গ্রহণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় বেকার যুবক গোলাম রব্বানী, শাহাজাহান সিরাজ, গোলজার হোসেন সহ একাধিক শিক্ষিত বেকার যুবক জানান, আমাদের নিকট থেকে চাকুরী দেওয়ার নাম করে গত ১০ বছর পূর্বে প্রায় কোটি টাকা এবং ঐ কলেজের সভাপতি ডিগ্রী কোর্স চালু করার নাম করে একাধিক ব্যক্তির নিকট মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তারা আরো জানান, উক্ত কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ের জন্য স্থানীয় এক বেকার যুবক এর নিকট থেকে ৩ বছর পূর্বে চাকুরী দিতে চেয়ে ৮ লক্ষ টাকা নিয়েছে। আবার একই পদে ঐ এলাকার এক মহিলার নিকট অনুরুপ টাকা নিয়েছে। বাংলা, ইংরেজি, মনোবিজ্ঞান, রাষ্ট্র বিজ্ঞান, সমাজ বিজ্ঞান, দর্শন, ইসলামের ইতিহাস, সাধারণ ইতিহাস, ইসলামী স্টাডিস ও উপাধ্যক্ষ পদ সহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রভাষক পদের জন্য একাধিক চাকুরীর প্রত্যাশি ব্যক্তির নিকট ডোনেশনের নাম করে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে, আঃ খালেক, ক্বারী হাবীবুর রহমান।
জনৈক ব্যক্তির নাম প্রকাশ না করার শর্তে জনান, কলেজের দাতা সদস্য আঃ খালেক কলেজ এর জায়গা দখল করে নিজের মেয়ের জামাইকে পাঁকা ঘর নির্মান করে দিয়েছেন। যাহার কারণে কলেজের ছাত্র/ছাত্রীদের লেখা পড়া বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। এমনকি উক্ত কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি আমিনুল ইসলাম নিজে একজন প্রদর্শক পদে চাকুরীর আবেদন করেছেন। অপর দিকে উক্ত কলেজের প্রিন্সিপাল নিয়োগের নাম করে  সাবেক যুবদল নেতা মিজানুর রহমানের নিকট থেকে ৫ লক্ষ টাকা উৎকোচ গ্রহণ করে কমিটির সদস্যদের মাঝে ভাগ করে নেন। আরো জানা যায়, বর্তমান কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি স্থানীয় একটি এনজিও কর্মী।
উক্ত কলেজের ব্যাপক অনিয়ম দূর্নীর বিরুদ্ধে অত্র কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মোঃ শহিদুর রহমান সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ সহ কুড়িগ্রাম জজ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নং-১৪৭/১৫।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ড. মুনসুর আলম খানের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, এ ব্যাপারে কোন প্রকার অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উল্লেখ্য ১৯৯৫ ইং সালে বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী শ্রী শ্যামল চন্দ্র বর্মন সহ স্থানীয় ব্যক্তিবর্গের একান্ত প্রচেষ্টায় কলেজটি প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সাবেক ইউপি সদস্য আঃ খালেক ও জুম্মাহাট দারুল উলুম সিনিয়র মাদ্রাসা ক্বারী হাবীরুর রহমান ব্যাপক অনিয়ম দূর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন “এই যদি হয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবস্থা, তা হলে কোথায় বা শিক্ষার মান? কে বা দিবে শিক্ষা দান” এই প্রশ্নটি এখন উলিপুরের সর্বস্থরের জনসাধারণের মুখে মুখে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ইউজিসির মতো প্রতিষ্ঠান চায় কওমি সনদ বাস্তবায়ন কমিটি

স্টাফ রিপোর্টার :  বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) মতো একটি সংস্থার দাবি করেছেন ...

এসএসসির ফল ২ অথবা ৪ মে

স্টাফ রিপোর্টার :  মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল আগামী ২ ...