Home | ব্রেকিং নিউজ | কালিয়াকৈরে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ, ধর্ষিতার আত্নহত্যার চেষ্টা

কালিয়াকৈরে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ, ধর্ষিতার আত্নহত্যার চেষ্টা

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি : গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক নারী পোশাক শ্রমিককে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ধর্ষিতা শ্রমিক বিষ পানে আত্নহত্যার চেষ্টা করলেও ঘটনার চারদিনেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ। উল্টো বাদী পক্ষের লোকজনকে পুলিশি হয়রানী করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় প্রভাবশালীরা বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

ধর্ষিতার শিকার নারী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষিতার শিকার নারী কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা মাহমুদ জিমন্স নামক পোশাক কারখানার নারী শ্রমিক। তিনি হরতকিতলা এলাকার আরিফ আহম্মেদের বাসায় ভাড়া থাকেন। এ সুযোগে পাশের বাড়ির মোস্তফা মিয়ার ছেলে সুজন হোসেন (৩২) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ১ বছর ধরে কৌশলে ধর্ষণ করে আসছে। কিন্তু সম্প্রতি সুজন জানিয়ে তার পক্ষে তাকে বিয়ে করা সম্ভব নয়।

কোনো উপায় না পেয়ে ওই নারী গত রোববার সন্ধ্যায় বিষ পানে আত্নহত্যার চেষ্টা চালায়। বিষয়টি টের পেয়ে স্থানীয় লোকজন অসুস্থ্য অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ ঘটনায় গত বুধবার ওই নারী শ্রমিক বাদী হয়ে কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। খবর পেয়ে ধর্ষক সুজন ও তার পরিবারের লোকজন বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। ওই ঘটনার চারদিন চললেও কালিয়াকৈর থানা পুলিশের কোনো পদক্ষেপ লক্ষ্য করা যায়নি।

বুধবার বিবাদী পক্ষ থানায় যায় বাদী পক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার জন্য। এরপর হঠাৎই সরভ হয়ে উঠে ধর্ষক সুজনের পরিবার। বিবাদী পক্ষের লোকজন উল্টো ধর্ষিতা নারীর ভাড়া বাসার মালিকসহ কয়েকজনকে হুমকি-দমকি দেয়। এমনকি তাদের (বাসার মালিকসহ কয়েকজনকে) চাঁদাবাজির মামলা দেওয়ার হুমকিও দেন। এর জেরে বৃহস্পতিবার চন্দ্রা একটি হোটেলে ওই নারীর ভাড়া বাসার মালিকসহ কয়েকজনকে ডেকে নিয়ে যান কালিয়াকৈর থানার ওসি অপারেশন।

এতে ওই নারী, বাসার মালিকসহ কয়েকজন আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় পুলিশের ভুমিকা নিয়ে স্থানীয় জনমনে নানা গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে ওই নারী হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

ওই নারী জানান, এক বছর আগে সুজনের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। ধীরে ধীরে তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এরপর সুজন বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন সময় দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। কিন্তু হঠাৎই সে বিয়ে করবে না বলে জানিয়ে দেয়। যাকে সব দিয়েছি, সে এটা কি করে করলো? তাই দুঃখে বিষ খেয়ে আত্নহত্যা করতে চেয়েছিলাম।

বাড়ির মালিক আরিফ আহম্মেদ জানান, সকালে ওসি অপারেশন লোকমাধ্যমে চন্দ্রা ডেকে পাঠায়। আমরা গেলে আমার ও হাবিবুর মামারও ছবি তোলে বলেন জামেলা শেষ করেন নয়লে আপনাদের গ্রেপ্তার করা হবে।

হাবিবুর রহমান জানান, আমার পারাপর্শি ভাতিজা এ ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটিয়েছে। ওই নারী আত্নহত্যার চেষ্টা করলে স্থানীয় কমিশনারসহ আমরা বিষয়টি গ্রাম্যভাবে সমাধানের চেষ্টা করেছি। কিন্তু উল্টো আমাদেরই হয়রানী করা হচ্ছে। তবে মিমাংসার জন্য আমরা কোনো আর্থিক লেনদেনের কথাও বলি নাই।

কালিয়াকৈর থানার ওসি অপারেশন মোজাহিদুল ইসলাম জানান, ওই নারীকে ধর্ষণের ঘটনায় কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। বাদীর বাসার মালিকসহ কয়েকজন মিমাংসার কথা বলে ছেলে পক্ষের কাছে টাকা দাবী করেছে। তাই চন্দ্রা ডেকে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

টুঙ্গিপাড়ায় শেখ রাসেল স্মৃতি সংস্থার উদ্যোগে বৃক্ষ রোপন

টুঙ্গিপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় শেখ রাসেল স্মৃতি সংস্থার উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ করা ...

কুমিল্লায় আরো ১৩জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ১

কুমিল্লা প্রতিনিধি : কুমিল্লা জেলায় নতুন করে আরও ১৩ জনের করোনা পজিটিভ ...