ব্রেকিং নিউজ
Home | জাতীয় | কাদের মোল্লার রায় ন্যায়বিচারের মানদন্ডের লঙ্ঘন: এইচআরডব্লিউ

কাদের মোল্লার রায় ন্যায়বিচারের মানদন্ডের লঙ্ঘন: এইচআরডব্লিউ

humanস্টাফ রিপোর্টার: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে দেশের সর্বোচ্চ আদালত যে ফাঁসির রায় দিয়েছেন, তাতে আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচারের মানদণ্ড লঙ্ঘিত হয়েছে বলে দাবি করেছে মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)।

 

মঙ্গলবার জামায়াত নেতা কাদের মোল্লার ফাঁসির রায়ের পর এক প্রতিক্রিয়ায় বুধবার প্রকাশিত বিবৃতিতে সংগঠনটি এ দাবি করে।

 

বিবৃতিতে বলা হয়, এইচআরডব্লিউ অনেকদিন ধরেই বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে নৃশংসতার শিকারদের ন্যায়বিচার পাওয়ার বিষয়টি সমর্থন করে আসছে। কিন্তু এই বিচার অবশ্যই হতে হবে স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা বজায় রেখে।

 

এইচআরডব্লিউ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে অভিযুক্ত কারো পক্ষাবলম্বন করেনি বলেও জানিয়ে দেয়া হয়।

 

এ বিষয়ে সংগঠনটির এশিয়া অঞ্চলের পরিচালক ব্র্যাড এডামস বলেন, ‘এইচআরডব্লিউ সবসময় ১৯৭১ সালের বর্বরতার বিচার চেয়েছে। কিন্তু এই বিচার অবশ্যই স্বচ্ছ ও আইননুযায়ী হওয়া উচিত। আইন পরিবর্তন এবং এটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে প্রয়োগ করা ন্যায়বিচারের জন্য আন্তর্জাতিক আইনের পরিপন্থী।’

 

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে গত ৫ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কাদের মোল্লাকে প্রথমে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। সে সময় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও সচেতন নাগরিকরা এই রায়ের তীব্র বিরোধিতা করেন।

 

হাজার হাজার ক্ষুব্ধ মানুষ তার ফাঁসির দাবিতে শাহবাগে বিক্ষোভ শুরু করেন। এর ফলশ্রুতিতেই সরকার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয়। আইন পরিবর্তনের ফলে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা সুযোগ পায় রাষ্ট্রপক্ষ। অন্যদিকে কাদের মোল্লার পক্ষেও রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হয়। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ কাদের মোল্লার আপিল খারিজ করে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল গ্রহণ করেন। গত ১৭ সেপ্টেম্বর কাদের মোল্লাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। আর এতেই মূলত আপত্তি তুলেছে এইচআরডব্লিউ।

 

সংগঠনটি বলছে, এই আইন পরিবর্তনের বিষয়টি নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকারের আন্তর্জাতিক যে আইন রয়েছে তার সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। বাংলাদেশের সংবিধানের এই অ্যামেনডমেন্টে আইনের মধ্যে থেকে যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্তর কিছু মৌলিক অধিকার রহিত করা হয়েছে। এছাড়াও বাংলাদেশের সংবিধান এই আইনের পরিবর্তনের বিপক্ষেও একটি সুরক্ষাকবচ দিয়েছে।

 

এ বিষয়ে অ্যাডমস বলেন, ‘এই আইনের বিরুদ্ধাচারণের যে নিষেধাজ্ঞা তা যে কারোর পক্ষেই বৈশ্বিকভাবে স্বীকৃত অধিকার সুরক্ষার পরিপন্থী। এমন আইনি সুরক্ষা ছাড়া সরকারের কোনো রায় পছন্দ না হলেই এই অ্যামেনডমেন্ট প্রয়োগ করা হবে।’

 

এছাড়া সংগঠনটি মৃত্যুদণ্ডকে নিষ্ঠুর এবং অমানবিক আখ্যা দিয়ে যে কোনো পরিস্থিতিতেই তারা এর বিরোধী বলে জানিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

আসিফ নজরুলের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় জিডি

স্টাফ রিপোর্টার: জঙ্গিবাদে উস্কানি এবং তরুণ সমাজকে জঙ্গিবাদের মতো ঘৃণ্য কাজে উদ্বুদ্ধ ...

করোনায় আরও মৃত্যু ১৭২

স্টাফ রিপোর্টার: করোনাভাইরাসে দেশে আরও ১৭২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের ...