Home | জাতীয় | কফিনবন্দী হয়ে শুয়ে এসেছেন আগুনে পুড়ে কঙ্কালসার ২৩ বাংলাদেশি

কফিনবন্দী হয়ে শুয়ে এসেছেন আগুনে পুড়ে কঙ্কালসার ২৩ বাংলাদেশি

স্টাফ রিপোর্টার :  ঘড়ির কাঁটা ঠিক চারটা। ঢাকার শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কারপার্কিং এলাকায় অনেক মানুষের ভিড়। সবার দৃষ্টি আকাশপানে। নেপাল থেকে কখন আসবে সেই বিমান, যেটিতে করে আসবে ২৩ বাংলাদেশির প্রাণহীন দেহ। ঘড়ির কাঁটা যখন চারটা ঠিক তখনেই বিমানবন্দরে অবতরণ করে বাংলাদেশ বিমানের একটি এয়ারক্রাফট (কার্গো), যেটিতে কফিনবন্দী হয়ে শুয়ে এসেছেন আগুনে পুড়ে কঙ্কালসার ২৩ বাংলাদেশি। বিমানটি দেখামাত্র নিহতের অনেক স্বজন কান্নায় ভেঙে পড়েন। তাদের কান্না দেখে কান্না সংবরণ করতে পারেননি সেখানে উপস্থিত অনেক সাধারণ মানুষও। সবার কান্নায় ভারী হয়ে আসে বিমানবন্দর এলাকার আকাশ-বাতাস।

এর আগে বেলা আড়াইটার দিকে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দর থেকে ২৩ মরদেহ নিয়ে বাংলাদেশের পথে রওনা হয় বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর একটি এয়ারক্রাফট (কার্গো)। প্রায় দেড় ঘণ্টা পর বিকাল চারটার দিকে বিমানটি শাহজালাল বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এর কিছু আগে অবতরণ করে নিহতদের স্বজনদের নিয়ে আসা ইউএস-বাংলার একটি বিশেষ ফ্লাইট।

এর আগে সকালে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাছে নিহত ২৩ বাংলাদেশির মরদেহ হস্তান্তর করে নেপাল কর্তৃপক্ষ। পৌনে নয়টার দিকে নেপালে বাংলাদেশ দূতাবাসে জানাজা শেষে মরদেহ ত্রিভুবন বিমানবন্দরে নেয়া হয়।

সোমবার সকালে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নেপাল থেকে ২৩ বাংলাদেশি নাগরিকের মরদেহবাহী বিমানটি বিকালে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে এসে পৌঁছাবে। বিমানবন্দর থেকে মরদেহের কফিনগুলো সরাসরি আর্মি স্টেডিয়ামে নেয়া হবে। সেখানে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

ইউএস বাংলার বিমান দুর্ঘটনায় ২৬ বাংলাদেশির মধ্যে এখন পর্যন্ত ২৩ জনের মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে।

তারা হলেন- আঁখি মনি, বেগম নুরুন্নাহার, শারমিন আক্তার, নাজিয়া আফরিন, এফএইচ প্রিয়ক, উম্মে সালমা, বিলকিস আরা, আখতারা বেগম, মো. রকিবুল হাসান, মো. হাসান ইমাম, মিনহাজ বিন নাসির, তামারা প্রিয়ন্ময়ী, মো. মতিউর রহমান, এস এম মাহমুদুর রহমান, তাহারা তানভীন শশী রেজা, অনিরুদ্ধ জামান, রফিক উজ জামান, পাইলট আবিদ সুলতান, কো-পাইলট পৃথুলা রশিদ, খাজা সাইফুল্লাহ, ফয়সাল, সানজিদা ও নুরুজ্জামান।

সোমবার সকালে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নেপাল থেকে ২৩ বাংলাদেশি নাগরিকের মরদেহবাহী বিমানটি বিকালে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে এসে পৌঁছাবে। বিমানবন্দর থেকে মরদেহের কফিনগুলো সরাসরি আর্মি স্টেডিয়ামে নেয়া হবে। সেখানে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

ইউএস বাংলার বিমান দুর্ঘটনায় ২৬ বাংলাদেশির মধ্যে এখন পর্যন্ত ২৩ জনের মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে।

তারা হলেন- আঁখি মনি, বেগম নুরুন্নাহার, শারমিন আক্তার, নাজিয়া আফরিন, এফএইচ প্রিয়ক, উম্মে সালমা, বিলকিস আরা, আখতারা বেগম, মো. রকিবুল হাসান, মো. হাসান ইমাম, মিনহাজ বিন নাসির, তামারা প্রিয়ন্ময়ী, মো. মতিউর রহমান, এস এম মাহমুদুর রহমান, তাহারা তানভীন শশী রেজা, অনিরুদ্ধ জামান, রফিক উজ জামান, পাইলট আবিদ সুলতান, কো-পাইলট পৃথুলা রশিদ, খাজা সাইফুল্লাহ, ফয়সাল, সানজিদা ও নুরুজ্জামান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

সুনামগঞ্জে সড়ক দূর্ঘটনা আহত দুজন

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জয়কলস মোড়ে যাত্রীবাহী শ্যামলী বাস ...

নওগাঁয় কষ্টি পাথরের মূর্তিসহ আওয়ামীলীগ নেতা আটক

নওগাঁ প্রতিনিধ : প্রায় ২৮ কেজি ওজনের কষ্টি পাথরের গণেশ মূর্তিসহ নওগাঁর ...