ব্রেকিং নিউজ
Home | বিবিধ | পরিবেশ | উত্তরে শরতেও শিউলি ফুলের আকাল

উত্তরে শরতেও শিউলি ফুলের আকাল

আজাদ জয়, দিনাজপুর থেকেঃ ঋতুর পরিক্রমায় ভাদ্র- আশ্বিণ শরৎকাল। শরতের সঙ্গে শিউলি ফুলের একটা নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। শিউলি ফুল ছাড়া শরৎকাল যেন কল্পনা করা যায় না। শরৎকাল যেমন বাঙালির জন্য গুরুত্বপূর্ণ তেমনি ফুল আর ওষুধি গুণে শিউলি গাছও গুরুত্বপূর্ণ। প্রকৃতির বিবর্তনে শরতের আগমন খুব একটা ঘটা করে জানান দেয়না।
এদিকে রংপুরের জেলা গুলো থেকে শিউলি ফুলের গাছও হারিয়ে যাচ্ছে দিন দিন। ছিপছিপে বৃষ্টির পরে আকাশে সাদা মেঘ ভাসবে: তার ফাঁকে জ্যোস্না ভরা চাঁদ উঁকি দিবে তবেই তো শরৎকাল মনে হবে।

শিউলি ফুলের গন্ধে পরিবেশ মাতিয়ে তুলবে। ডোবা- নালায় শাপল ফুটবে গাছে তাল পাকবে, মাঠে ও নদীর ধারে কাঁশফুলে ভরে যাবে: তবেই তো শরৎকাল বোঝা যাবে। আগের মত ডোবা- নালায় শাপলা ফোঁটে না। ডোবা- নালা পরিস্কার করে সেখানে মানুষ মাছ চাষ করছে। তালগাছকে লাভজনক মনে না করায় কেউ তালগাছের চারা রোপন করেন না। বরং তাল গাছ কেটে ফেলেন। এরপরও কিছু তাল গাছ থাকলে আগেভাগেই তালশাঁসের জন্য ফলকর হিসেবে গাছ বিক্রি করে দেয়া হয়।

এদিকে খড় কেটে আবাদি জমি করায় এখন আর খুব বেশি কাঁশফুল দেখা যায়না। অভাবী পরিবারে ছোট্ট ছোট্ট ছেলে-মেয়েরা অতিকষ্টে শিউলি ফুল সংগ্রহ করে মালা তৈরি করে বাজারে বিক্রি করে চলেছেন। তারা জানায়, আগের মত আর শিউলি ফুল মেলে না, তাছাড়া মালা কেনার মানুষও কমে গেছে। প্রবীন লোকেরা জানান, এক সময় প্রায় বাড়িতে শিউলি ফুলের গাছ ছিল।

শিউলি ফুল ফুটলে চারিদিকে সুগন্ধে ভরে যেত। শরৎকালের কথা মনে করিয়ে দিত। তখনকার দিনে এত ডাক্তার ছিল না। সর্দি- কাশি হলে মায়েরা শিউলি ফুলের পাতা বেটে রস খাইয়ে দিত। এতেই সর্দি- কাশি সেরে যেত। এখন অনেক ডাক্তার- কবিরাজ হয়েছে। তাই আর শিউলি গাছ প্রয়োজন পড়ে না। কিন্ত এ গাছের ওষুধি গুণ রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

দৌলতপুরে যমুনা নদীর ভাঙ্গনে ৮ শতাধিক বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন

মোঃ লিটন মিয়া, দৌলতপুর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি ঃ গত কয়েক দিনে থেমে থেমে ...

বাংলাদেশের দিকে এগোচ্ছে ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল

স্টাফ রিপোর্টার : নেপালের পোখারার লামজুং ও কোদানির পর এবার সিকিম, ভুটান, ...