Home | বিবিধ | আইন অপরাধ | আশুলিয়ায় পৃথক অপহরনের ঘটনায় অপহৃতাদ্বয় উদ্ধারঃ বাদীসহ গ্রেফতার ৩

আশুলিয়ায় পৃথক অপহরনের ঘটনায় অপহৃতাদ্বয় উদ্ধারঃ বাদীসহ গ্রেফতার ৩

savar mapআমিনুল ইসলাম, সাভার, ঢাকা : শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ায় পৃথক দুটি অপহনের ঘটনার দীর্ঘদিন পর অপহৃতাদের উদ্ধার ও ঘটনার সাথে জড়িত ৩ জনকে গেফতার করেছে পুলিশ।  বুধবার সকালে গ্রেফতারকৃতদের আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, পলাশবাড়ী এলাকার বার্ডস ইন্টা: স্কুল এন্ড কলেজের সপ্তম শ্রেনীর অপহৃত ছাত্রী (১৩) অপহরনের ঘটনায় মাগুড়া জেলার কাউয়ামাইজাই গ্রামের ওয়াদুদ মোল্লার ছেলে অপহরনকারী জাকির হোসেনসহ অপহৃতাকে মঙ্গলবার বিকালে উদ্ধার করেন পুলিশ। একই দিন বিকালে অপর এক অপহরনের ঘটনায় রাজধানী ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট থানাধীন মানিকদি ২৪/৭ হোসেনের বাড়ী থেকে বাড়ি থেকে অপহৃত শিশু সুজানা (৩) কে উদ্ধার করেন। এঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে শিশুর মা অপহরন মামলার বাদী সাহারা আক্তার (২৪) ও নানী তাসলিমা খাতুন (৪০) কে আটক করেন পুলিশ।

অপহৃত স্কুল ছাত্রীর পিতা কান্না জড়িতকন্ঠে বলেন, গত জানুয়ারী মাসের ২৫ তারিখ সকালে বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে চেতনানাশক ঔষধ দিয়ে তার মেয়েকে অজ্ঞান করে অপহরন করে নিয়ে যায় জাকির হোসেন। মেয়েকে অপহনের পর অপহরনকারী তার নিকট মুঠোফোনে মোটা অংকের টাকা মুক্তিপনও দাবী করেছিল। এঘটনার পর আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। থানা পুলিশ রেডিও বার্তার মাধ্যমে বিভিন্ন থানায় অপহরনের বার্তাটি প্রেরন করেন। মাগুড়া থানা পুলিশ কাউয়ামাইজাই গ্রামের ওয়াদুদ মোল্লার বাড়ি থেকে অপহরনকারী জাকিরকে আটক করেন। একই সময়ে অপহৃতা ছাত্রীকেও উদ্ধার করে আশুলিয়া থানায় সোপর্দ করেন। দীর্ঘ ৩ মাস পর মেয়েকে কাছে পেয়ে উভয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পরেন। এসময় আশুলিয়া থানা এলাকায় এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক মোশারফ হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অপহৃতা স্কুল ছাত্রী ও অপহরনকারীকে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।
এদিকে নিজের মেয়েকে গুম করে স্বামী, শশুড় ও সৎ মায়ের নামে মিথ্যে অপহনের অভিযোগে মামলা দায়েরের দীর্ঘ সাড়ে তিন মাস পর মামলার বাদী অপহৃতার মায়ের নিকট থেকে তাকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এঘটনায় শিশুর মা সাহারা খাতুন ও তার নানী তাসলিনাকে আটক করে আদালতে প্রেরন করেছে।
জানতে চাইলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোফাজ্জল হোসেন বলেন, শিশুটি মা তার তালাকপ্রাপ্ত স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যদের উপর প্রতিশোধ নিতে গিয়ে নিজের মেয়েকে গুম করে অপহরনের অভিযোগে আশুলিয়া থানায় গত বছরের ডিস্মের মাসের ২৫ তারিখে একটি মামলা দায়ের করেন। তার দায়ের করা মামলায় শিশুটির বৃদ্ধ দাদা কফিল উদ্দিন (৬৫) এক মাস জেল খেটেছেন। মিথ্যে মামলার গ্রেফতার এড়াতে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তার পিতা নাজমুল ইসলাম সাঈম ও সৎ নানী নাজমা বেগম।  মঙ্গলবার বিকালে শিশুর মা মামলার বাদীর আচরনে সন্দেহ হলে বাইপাইল থেকে তার পিছু নেয় সাদা পোশাকধারী পুলিশ। বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানী ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট থানাধীন মানিকদি এলাকা থেকে কথিত অপহৃত শিশু সুজানা (৩), মা সাহারা আক্তার রিয়া (২৪) ও নানী তাসলিমা খাতুন (৪০) কে আটক করা হয়। বুধবার সকালে তাদের আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

৮ম শ্রেণির ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় আটক মাদ্রাসার অধ্যক্ষ

ডেস্ক রির্পোট : ঝালকাঠি সদর উপজেলার তেরআনা শাহমাহমুদিয়া আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এসএম ...

মাধবপুরে ফেনসিডিলসহ ২ যুবক গ্রেফতার

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : মাধবপুর থানার তেলিয়াপাড়া ফাঁড়ির পুলিশ ২০ বোতল ভারতীয় ফেনসিডিলসহ ...