ব্রেকিং নিউজ
Home | ফটো সংবাদ | ‘আন্দোলন ব্যর্থ হলে রাষ্ট্র টিকবে না’ : মির্জা ফখরুল

‘আন্দোলন ব্যর্থ হলে রাষ্ট্র টিকবে না’ : মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার : ‘গণতন্ত্র’ উন্নয়নের প্রথম শর্ত বলে দাবি করে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে চলমান আন্দোলন-সংগ্রামে আমাদের বিজয়ী হতে হবে। কারণ, গণতন্ত্র ও জনগণের অধিকার আদায়ের সংগ্রাম ব্যর্থ হলে রাষ্ট্র টিকবে না।’

মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘উন্নয়নের পূর্বশর্ত গ্রহণযোগ্য নির্বাচন’- শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। ‘বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক ফোরাম’ নামের একটি সংগঠন এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

‘বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক ফোরাম’-এর সভাপতি এইচএম হারিছুল হকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন-ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী, বিএনপির প্রচার সম্পাদক জয়নুল আবদিন ফারুক, ইসলামী ঐক্যজোটের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব, বিএনপি নেতা নবী উল্লাহ নবী, মাওলানা আবুল কাশেম, এ্যাডভোকেট কানিজ ফাতেমা প্রমুখ।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বাংলাদেশে এখন যারা ক্ষমতায় আছে, তারা গণতন্ত্রের সংজ্ঞা পাল্টে দিচ্ছে। তারা যে গণতন্ত্রের কথা প্রচার করছে, তা রেজিমেন্টেড গণতন্ত্র অর্থাৎ নিয়ন্ত্রিত গণতন্ত্র।’

তিনি বলেন, ‘উন্নয়নের প্রথম শর্ত হচ্ছে গণতন্ত্র। কিন্তু তারা বলছে, উন্নয়নের জন্য গণতন্ত্রের প্রয়োজন নেই।’

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, ‘নির্বাচন হলেই গণতন্ত্র হয় না। অনেক দেশে নির্বাচিত সরকার আছে কিন্তু তারা গণতান্ত্রিক নয়। আওয়ামী লীগ তাদের নিয়ন্ত্রিত গণতন্ত্রের স্বপক্ষে কিছু উদাহরণও দেয়। তারা বলে মালয়েশিয়া নিয়ন্ত্রিত গণতন্ত্রের জন্যই আজ উন্নত হয়েছে।’

তিনি দাবি করে বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ নিয়ন্ত্রিত নয়, উন্মুক্ত গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। সুতরাং তারা কোনো চাপিয়ে দেওয়া গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না, মেনেও নেয় না।’

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, ‘গণতন্ত্রের জন্য মুক্তিযুদ্ধ হলেও স্বাধীনতার পর এই আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র থেকে সরে এসেছে। তাদের সঙ্গে দ্বিমত হয়েই ইনু-মেননরা সেদিন আওয়ামী লীগ থেকে বের হয়ে ‘অস্ত্র’ হাতে তুলে নিয়েছিল। সশস্ত্র যুদ্ধ করেছিল। কিন্তু আজ দুর্ভাগ্য, সেই ইনু-মেননরা আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত হয়ে দেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে আরেকটি অপকর্ম করেছে। কারণ, ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতার অংশীদার হয়েছে তারা।’

দলীয় নেতা-কর্মীদের হতাশ না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গণতন্ত্রের লড়াই খুব কঠিন লড়াই। যখন একটি ফ্যাসিস্ট শক্তি গণতন্ত্রের নামে মানুষের অধিকার হরণ করে ক্ষমতায় বসে যায়, তখন সেই ফ্যাসিস্ট শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই খুব সহজ নয়। এ লড়াইয়ে সময় লাগতে পারে। তবে এতে হতাশ হওয়ার কিছু নেই।’

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা আজ বলে থাকেন, খেলায় বিএনপি অংশ নেয়নি, তাই খালি মাঠে তিনি গোল দিয়েছেন। নির্বাচন কোনো খেলা নয়। যারা জনগণের এই গুরুত্বপূর্ণ অধিকারকে হরণ করে এ ধরণের তামাশার কথা বলতে পারে, তাদের মন-মানসিকতা কোন পর্যায়ে তা জনগণ বুঝতে পারে।’

দেশ বর্তমানে কঠিন সঙ্কটময় সময় অতিক্রম করছে বলে উল্লেখ করে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, ‘পুরো দেশটাকে আজ দম বন্ধকর অবস্থায় নিয়ে গেছে আওয়ামী লীগ। এ থেকে আমাদের বের হতে হবে। বের হতে না পারলে আমরা কেউ বাঁচতে পারব না। আর এই সঙ্কট থেকে উত্তোরণ ঘটিয়ে আসতে না পারলে দেশের অস্তিত্বই বিপন্ন হয়ে পড়বে।’

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও দেশ রক্ষায় আন্দোলন চলছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘মানুষ এই ফ্যাসিবাদী সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে এ ফ্যাসিস্ট গণতন্ত্র হরণকারী সরকারকে গণতন্ত্রের পথে ফিরে আসতে বাধ্য করতে হবে। এজন্য আমাদের বিজয়ী হতে হবে। কারণ, গণতন্ত্র ও জনগণের অধিকার আদায়ের সংগ্রাম ব্যর্থ হলে রাষ্ট্র টিকবে না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত ব্রিটেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরনের

স্টাফ রিপোর্টার : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করেছেন বাংলাদেশ সফররত ...

মে দিবস উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শ্রমিক সমাবেশ করার প্রস্তুতি বিএনপির

স্টাফ রিপোর্টার : মহান মে দিবস উপলক্ষে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শ্রমিক সমাবেশ ...